সরাইলে ছাত্রীকে যৌনহয়রানির অভিযোগে শিক্ষক লাঞ্ছিত

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি, ০৪ ডিসেম্বর ২০১১॥
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে শিক্ষক কর্তৃক মাদ্রাসা ছাত্রী যৌনহয়রানির শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে আর্থিক জরিমানা করা হয়। তাছাড়া এলাকা ছাড়ার নির্দেশও দেন সালিশকারকরা। গত শনিবার দুপুরে উপজেলা সদরের বড্ডাপাড়া হাজেরা প্রি ক্যাডেট বালিকা মাদ্রাসায় এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী জানান, গত একমাস আগে ওই মাদ্রাসায় আবাসিক ছাত্রী হিসেবে ভর্তি হয় জেলার নাসিরনগর উপজেলার বননগর গ্রামের কতিপয় দরিদ্র এতিম এক কিশোরী। স্থানীয় ক’জন ব্যক্তি ওই এতিম কিশোরীর লেখাপড়ার খরচ চালাতেন। মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাওঃ ছফিউল্লাহ ওই এতিম কিশোরীর ওপর নানাভাবে যৌনহয়রানি চালায়। বিষয়টি ওই ছাত্রীর স্বজনরা জেনে যান।

গত শনিবার দুপুরে উপজেলার বড্ডাপাড়া গ্রামের সর্দার মো. হাবু মিয়া, আঁখিতারা গ্রামের জহির মিয়া, উচালিয়া পাড়া গ্রামের মসজিদের ঈমাম মাওঃ মাহফুজ মিয়া সহ ১০/১২ জন ব্যক্তি মাদ্রাসায় গিয়ে ছাত্রী নির্যাতনের অভিযোগে প্রধান শিক্ষককে উত্তম-মাধ্যম দেয়। এসময় ওই শিক্ষক উপস্থিত সবার কাছে তার কৃতকর্মের কথা স্বীকার করেন। ওইদিনই সালিশের মাধ্যমে অভিযুক্ত শিক্ষককে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করে ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়া হয়। সালিশকারক মাওঃ মাইনুল ইসলাম, হাফেজ মাওঃ রাকিব ও জহিরুল ইসলাম সহ বেশক’জন জানান, এতিম ওই ছাত্রীকে নানাভাবে নির্যাতন করা হয়েছে। সালিশে অভিযুক্ত শিক্ষক তা স্বীকার করেছেন। নির্যাতিতা ছাত্রীর স্বজনদের উপস্থিতিতেই এ সালিশ করা হয়।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মাদ্রাসা শিক্ষক মাওঃ ছফিউল্লাহ বলেন, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার। ঘটনাটি সত্য নয়। ওরা জোরপূর্বক আমাকে দিয়ে এসব স্বীকার করিয়ে নিয়ে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নিয়েছেন।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply