কিস্তির টাকার জন্য নারায়নগঞ্জের সোহরাবকে দেবিদ্বার এনে জবাই করে খুন করেছে ঘাতক জামাল

মোঃ ফখরুল ইসলাম সাগর, দেবিদ্বার (কুমিল্লা) সংবাদদাতাঃ

ঘাতক জামাল
নারায়নগঞ্জ জেলার ১নং বাবুরাইল এলাকার অটোরিক্স চালক মোঃ সোহরাব মিয়া(২৮)কে কুমিল্লার দেবিদ্বারে গত শুক্রবার রাতে রাজামেহার উখারী গ্রামে গলা কেটে হত্যা করা হয়।ওই সোহরাব হত্যা মামলার একমাত্র আসামী দেবিদ্বার উপজেলার রাজামেহার ইউনিয়নের উখারী গ্রামের আবুল কাসেমের পুত্র জামাল হোসেন (৩৫) কে আটক করা হয়েছে।

ঘাতক জামালের হত্যার স্বীকারক্তিঃ

নারায়নগঞ্জ পাইপাড়ায় একটি গেরেজে সিএনজি চালিত অটোরিক্সা মেরামতের কাজ করে সংসার চালাত। গেরেজের আয় দিয়ে স্ত্রি কণ্যা এবং পিতার দু’সংসারের ১০সদস্যের ভরন-পোষনের অভাব ঘুচানো কঠিন হয়ে পড়ে। ঘাতক জামাল ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে সোহরাবের অটোরিক্সাটি আত্মসাতের পরিকল্পনা নিয়ে একাই সোরাবকে হত্যা করেছে বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।

এনজিও থেকে আনা ঋণের পরিশোধের তালিকাঃ

পরিবারের স্বচ্ছলতা আনতে বিভিন্ন এনজিও থেকে আনা ঋণের দৈনিক ও সাপ্তাহিক কিস্তি পরিশোধে তিনি দিশেহারা হয়ে উঠেন। স্থানীয় ‘একতা’ এনজিও থেকে আনা ১লক্ষ ৫০হাজার টাকার দৈনিক কিস্তি ৯শত টাকা, পল্লী মঙ্গল সমিতির ১৪হাজার টাকার সাপ্তাহিক কিস্তি ৭শত, আশা এনজিও’র ১০হাজার টাকায় ৪শত এবং ‘সমতা’ সমিতির ১০হাজার টাকায় ৩শত টাকা কিস্তি পরিশোধ করতে হয়।

যেভাবে সোহরাবের সাথে পরিচয় হয়

নারায়নগঞ্জ জেলার ১নং বাবুরাইল এলাকার ২২৬ মোবারক শাহ রোড’র মৃতঃ আব্দুল বারেক মিয়ার পুত্র সোহরাব দেড় মাস আগে একটি অটোরিক্সা কিনে এনে জামালের গেরেজে রাখত সেই পরিচয়ে তাদের মাজে বন্ধুত্বের সম্পর্ক তৈরি হয়।এই সূত্রে জামাল সেহরাবকে নিয়ে গত বুধবার সন্ধ্যায় দেবিদ্বার উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামে খালার বাড়িতে বেড়াতে আসেন। খালু মফিজউদ্দিন সৌদী প্রবাসী, ভেবেছিলেন খালার কাছ থেকে ১০হাজার টাকা নিয়ে কিস্তি পরিশোধ করবে। খালা অপারগতা জানালে সে আরো বেশী হতাশ হয়ে পড়ে।

যেভাবে খুন করাহয়

জামাল সোহরাবকে খুনের চিন্তা তার ছিলনা। খালা টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে কোন উপায়অন্ত না পেয়ে তাৎক্ষনিক তার মাথায় সোহরাবের নতুন অটোরিক্সা আত্মসাতের কথা ভাবতে থাকে। খালার বাড়ি থেকে একটি ছেনি নিয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঢাকার উদ্দেশ্যে দু’বন্ধু রওয়ানা হয়। সন্ধ্যার পর উখারী গ্রামের নির্জন জলায় এসে পেছন দিক থেকে সোহরাবের মাথায় সজোরে কোপ মারে, সে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে আরো একটি কোপ মারলে তার নাক কেটে যায়, তৃতীয় কোপটি তার গলায় লাগে। ছেনিটি ধান ক্ষেতে ফেলে সে নারায়নগঞ্জ চলে যায়।

ঘাকত জামালকে যে ভাবে গ্রেফতার করা হয়

অটোরিক্সা চালক সোহরাব হত্যা মামলার একমাত্র শনিবার ভোর সাড়ে ৪টায় দেবিদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহ কামাল আকন্দ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে এক অভিযানে নায়নগঞ্জ জেলার পাইকপাড়ায় অবস্থিত একটি সিএনজি গেরেজ থেকে আসামী জামাল হোসেন (৩৫) কে আটক করা হয়।

দেবিদ্বার থানা পুলিশের বক্তব্যঃ

দেবিদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) শাহ্ কামাল আকন্দ জানান, শুক্রবার দুপুরে সোহরাবের লাশ উদ্ধার পূর্বক শনিবার সকালে ময়না তদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। এব্যপারে নিহতের ছোট ভাই বাদল মিয়া (২৬) বাদী হয়ে শুক্রবার রাতে জামাল হোনেকে একমাত্র আসামী করে দেবিদ্বার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। আসামী জামাল একাই সোরাবের অটোরিক্সাটি আত্মসাৎ করতে তাকে হত্যা করার সত্যতা স্বীকার করেছে। নারায়নগঞ্জ থেকে অটোরিক্সাটি উদ্ধার পূর্বক নিহতের পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।

Check Also

নিউইয়র্কের চিকিৎসক ফেরদৌস খন্দকারে দেওয়া খাদ্য পাচ্ছে দেবিদ্বারের ১ হাজার পরিবার

দেবিদ্বার প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে লকডাউনের কারনে কর্ম হারিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছে দেশের হাজার হাজার ...

Leave a Reply