সরাইলে সমবায় দিবসে অনুষ্ঠানের নামে চাঁদাবাজি

আরিফুল ইসলাম সুমন ॥
দিবসটি পালনে সরকারি বরাদ্দ কম। বরাদ্দের টাকা আসবে মাস দু’য়েক পরে। খোদ উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা এমন কথা প্রচার করেই সমবায় দিবসে অনুষ্ঠানের নামে প্রায় ৪৫ হাজার টাকা চাঁদা উঠিয়েছেন। এ জন্য তিনি একটি কমিটিও গঠন করেন। কমিটির প্রধান আ’লীগের স্থানীয় কতিপয় নেতা। বিষয়টি নিয়ে এখন উপজেলার সমবায়ীদের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা গেছে, গত শনিবার ছিল জাতীয় সমবায় দিবস। দেশের নানা স্থানের ন্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলায় যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালিত হয়। দিবসটি উপলক্ষে স্থানীয় সমবায় দফতর একটি শোভাযাত্রা ও আলোচনার সভার আয়োজন করেন। অনুষ্ঠানের ব্যয় ধরা হয় ১৮ হাজার টাকা। এ জন্য বিভিন্ন সমবায় সমিতি ও দফতর থেকে চাঁদা নেয়া হয়। সরাইল আদর্শ বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি মো. আবদুল খালেক জানান, সমবায় দিবস উপলক্ষে অন্যদের মতো আমরাও সমিতির ফান্ড থেকে দুই হাজার টাকা চাঁদা দিয়েছি। তাদের দাবি ছিল বেশী। সমবায় কর্মকর্তার নির্দেশে এই চাঁদার টাকা দিয়েছি। উপজেলা বিআরডিবি’র দপ্তর সূত্র জানায়, অনুষ্ঠান পালনের জন্য সমবায়কে তিন হাজার টাকা চাঁদা প্রদান করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সরাইল উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা গোলাম মহিউদ্দিন বলেন, উপজেলায় ১৫২টি সমবায় সমিতি রয়েছে। তবে ২০/২৫টি সমিতির কার্যক্রম সক্রিয় আছে। অনুষ্ঠান পালনে সরকারি বরাদ্ধ খুবই কম। তাড়াতাড়ি টাকা পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই একাধিক সমিতি থেকে পাঁচশত থেকে এক হাজার টাকা করে চাঁদা নেয়া হয়েছে। কমিটির মাধ্যমে টাকা খরচ করা হয়। সর্বমোট কত টাকা উঠানো হয়েছে, এর হিসেব আমার কাছে নেই।

ব্রা‏‏‏হ্মণবাড়িয়া জেলা সমবায় কর্মকর্তা মো. আমজাদ হোসেন বলেন, অনুষ্ঠান পালনে সরকারী বরাদ্দ কাটাকাটির পর মাত্র পাঁচ হাজার টাকা উপজেলা কর্মকর্তারা পাবেন। তাও আবার ২/৩ মাস পর। তাই স্থানীয়ভাবে কিছু টাকা উঠানো হয়েছে। বিষয়টি আমার জানা আছে।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply