মুরাদনগরে মামলা তুলে না নেয়ায় বাদী ও স্বাক্ষীকে কুপিয়ে জখম

মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি :
কুমিল্লার মুরাদনগরে ইউপি সদস্যসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা তুলে না নেয়ায় বাদী ও স্বাক্ষীকে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার দারোরা ইউনিয়নের কাজিয়াতল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এতে আহত উভয়ে মুরাদনগর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ব্যাপারে মুরাদনগর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

জানা যায়, কাজিয়াতল দক্ষিনপাড়া কাজী বাড়ি জামে মসজিদ নির্মানকে কেন্দ্র করে দু’গ্র“পের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত দ্বন্দ্ব চলে আসছে। উক্ত দ্বন্দ্বের জের ধরে ২২ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে মামলায় অভিযুক্ত আসামীরা তাজুল ইসলামের বাড়িতে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। তখন এর প্রতিবাদ করায় আসামীরা বাড়ি ঘর ও আসবাবপত্র ভাংচুর করে মোবাইল ও স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়। অভিযুক্তরা তাজুল ইসলামের মাতা জাহেরা বেগমকে (৮৮) মারধরপূর্বক ২ ঘন্টা আটকে রাখে। তাদের শোর-চিৎকারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের মোক্তারসহ এলাকার লোকজন এসে জাহেরা বেগমকে উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে মৃত কদম আলীর ছেলে তাজুল ইসলাম বাদী হয়ে ওই দিনই ইউপি সদস্য জহিরুল ইসলামসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে মুরাদনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। আসামীরা জামিনে এসে মামলা তুলে নিতে বাদী ও স্বাক্ষীদেরকে প্রকাশ্যে দফায় দফায় হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিল। এরই জের ধরে রোববার সন্ধ্যায় মামলার বাদী তাজুল ইসলাম (৩৫) ও স্বাক্ষী নজরুল ইসলাম (৩৯) কাজিয়াতল সুপার মার্কেট থেকে বাড়িতে যাবার পথে আসামরিা পূর্বপরিকল্পিত ভাবে আক্রমন চালায়। এতে গুরতর আহত হলে তাদেরকে চিকিৎসার জন্যে মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উক্ত ঘটনায় কোন মামলা হয়নি, তবে মুরাদনগর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য জহিরুল ইসলামসহ কতেক আসামীর সাথে চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

Check Also

দেবিদ্বারের সাবেক চেয়ারম্যান করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় মৃত্যু: কঠোর নিরাপত্তায় গ্রামের বাড়িতে লাশ দাফন

দেবিদ্বার প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ভাণী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান (৫৫) করোনায় আক্রান্ত ...

Leave a Reply