কুমিল্লার সবক’টি রুটে ঈদ উপলক্ষে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ

কুমিল্লা, ০৬ নভেম্বর, ২০১১ (কুমিল্লাওয়েব ডট কম) :

ঈদ উপলক্ষে কুমিল্লার বিভিন্ন রুটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। দ্বিগুণের বেশি ভাড়া আদায় করছে বলে অভিযোগ করেন যাত্রীরা। ইচ্ছে মতো ভাড়া বাড়ানোর অজুহাত একটাই সামনে ঈদ।

ঢাকা থেকে কুমিল্লাগামী তিশা, এশিয়া, প্রিন্স, প্রাইম, কভোডাসহ সকল যানবাহন পরিবহন ১৩০ টাকার ভাড়া ২৫০ থেকে ৪০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করেছে বলে অভিযোগে জানা গেছে।

যাত্রীরা জানান- ঢাকা থেকে কুমিল্লাগামী যাত্রীদের কাছ থেকে ৪০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া আদায় করা হয়েছে। এদিকে সিএনজি ভাড়া ২৫ টাকার ভাড়া এখন ৪০ টাকা করে আদায় করেছে বলে জানা গেছে। কুমিল্লা শহর থেকে পদুয়ার বাজার বিশ্বরোডগামী সিএনজি হঠাৎ করে গতকাল থেকে যাত্রীদের কাছ থেকে ১৫ টাকা হারে ভাড়া আদায় শুরু করে। একইভাবে অটোবাইকও ১৫ টাকা হারে ভাড়া আদায় করে। এর আগে এই ভাড়া ছিলো ১২ টাকা। জেলার অন্যান্য রুটেও একই ভাবে যাত্রীদের কাছ থেকে বিভিন্ন হারে অধিক ভাড়া আদায় করা হয় বলে জানাগেছে।ফ্রি স্টাইল ভাড়া আদায় নিয়ে যাত্রীদের সাথে মালিক, শ্রমিক ও চালকদের মধ্যে বাক বিতন্ডা এবং বচসা হয়। দেখার কেউ নেই। প্রতিকার করারও কেউ নেউ।জেলা উপজেলা প্রশাসন নিরব নির্বিকার ভ’মিকা পালন করছে।

অপরদিকে কুমিল্লা পরিবহন খাতে মালিক শ্রমিক ও চালকদের বেপরোয়া ভাড়া আদায়ের দৌরাত্মে নাকাল ঈদে ঘরমুখো যাত্রী সাধারণের। এ ব্যাপারে প্রশাসনকেও রহস্যজনকভাবে নিরব ভূমিকা পালন করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভূক্তভোগীরা।

ঈদকে কেন্দ্র করে ঢাকা-হোমনা-কুমিল্লা রুটে বাস ছাড়াও উপজেলা অভ্যন্তর এবং দাউদকান্দি, মুরাদনগর ও বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় চলাচলকারী সিএনজি অটোরিক্সা মালিক, শ্রমিক ও চালকদের বেপরোয়া ভাড়া আদায়ের দৌরাত্মপনাকে প্রতিরোধ করতে যেন কারোই কোনো নিয়ন্ত্রণ কিংবা ভূমিকা নেই। ফলে মাত্রাতিরিক্ত ভাড়া আদায়কে কেন্দ্র করে ওই সব নৈরাজ্য সৃষ্টিকারী চালক ও শ্রমিকদের সাথে প্রতিদিনই ঘরমুখো সাধারণ মানুষের বচসার ঘটনা ঘটছে। এতে করে এসব অঞ্চলের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে।

ঢাকা থেকে হোমনা ৫৫ কিমি দূরত্বের ভাড়া আদায়ে যেন নৈরাজ্যের পাখা মেলেছে। গত দু’মাস আগের ৭০ টাকা ভাড়ার স্থলে ৮০ টাকায় উন্নীত করলেও ঈদ উপলক্ষে এক লাফে জন প্রতি ২শ’টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। অবশ্য বাস মালিকরা এর জন্য সায়েদাবাদে প্রতি ট্রিপে ২হাজার টাকা করে চাঁদা দেয়ার কথা বলেন। হোমনা উপজেলার অভ্যন্তরে ও পার্শ্ববর্তী উপজেলায় চলাচলকারী সিএনজি চালকদের দাপটও কোন অংশে কম নয়। হোমনা বাসস্ট্যান্ড থেকে ১২ কিমি দূরত্বের রামকৃষ্ণপুর ৩৫ টাকা ভাড়ার স্থলে ৬০ টাকা, ৮কিমি. দূরতের¡ দুলালপুর ২০ টাকার স্থলে ৪০ টাকা, ৮কিমি দূরত্বের কাশিপুর ২০ টাকার স্থলে ৩০ টাকা,১৮কিমি দূরত্বের গৌরীপুর ২৫ টাকার ভাড়া ৪০ টাকা, ১২ কিমি দূরত্বের বাঞ্ছারামপুর ৩৫ টাকার অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে। ফলে প্রতিদিনই ঘটছে নানা অপ্রীতিকর ঘটনা।

সাধারণ যাত্রীদের অভিযোগ, সরকার ও প্রশাসনের কোনো নজরদারি না থাকায় অন্যায়ভাবে মাত্রারিক্তি ভাড়া আদায় করছে। সচেতন মহলের দাবি এখনই যদি এদেরকে না থামানো যায় তবে আগামী দু’দিন ও ঈদ পরবর্তী আরো এক সপ্তাহ জনগণকে আর্থিক, মানসিক,সামাজিকভাবে মারাত্মক নিরাপত্তাহীনতায় পড়তে হবে। এব্যাপারে হোমনা ইউএনও মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অতিরিক্তি ভাড়া আদায়ের ব্যাপারে আগেও অভিযোগ পেয়েছি। লোকবলও নেই সবাই ছুটিতে চলে গেছে। তবুও ওসি সাহেবের সাথে আলাপ করে পদক্ষেপ নিচ্ছি।

Check Also

দেবিদ্বারে অগ্নিকান্ডে ১কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

দেবিদ্বার প্রতিনিধিঃ– কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ফতেহাবাদ ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামে রান্না ঘরের গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরনে ১৫টি ...

Leave a Reply