এফআইসিএল’র চেয়ারম্যান শামীম কবির অপপ্রচারের শিকার

জামাল উদ্দিন স্বপন:

কথায় বলে কারো ভালো কেউ দেখতে পারেনা। কেউ যদি নিজের যোগ্যতা, কর্মদক্ষতা, অভিজ্ঞতা, কলা-কৌশল ও পরিশ্রমের মাধ্যমে সাফল্যের সিঁড়ি বেয়ে উন্নতির শীর্ষ শিখরে আরোহন করেন তখন তার প্রতিবেশি তথা সমপর্যায়ে থাকা উন্নতি করতে না পারা বিশেষ ব্যক্তিরা হিংসার আগুনে জ্বলে পুড়ে ছাই হন। তারা তখন শুরু করে নানা চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার। যদিও ষড়যন্ত্রকারীরা কখনই সফল হয়না। এমনই অবস্থা হয়েছে ফারইষ্ট ইসলামী (এফ আই সি এল) কো-অপারেটিভ সোসাইটি লি: এর চেয়ারম্যান শামীম কবিরের বেলায়। বলা বাহুল্য ক্ষুধা, দারিদ্রপীড়িত অসহায় মানুষের জীবনে মাইক্রো ক্রেডিট ব্যবস্থা এখন আশার আলো সঞ্চার করেছে। দারিদ্রতা বিমোচনের হাতিয়ার হিসেবে সমবায় ভিত্তিক ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম এখন গ্রামেগঞ্জে এবং শহরে এখন অতি জনপ্রিয়। তফসীলভুক্ত ব্যাংক থেকে ঋণ পেতে যেখানে হয়রানি ও ঘুষ দুর্নীতির শিকার হতে হয় সেখানে সমবায় ভিত্তিক মাইক্রো ক্রেডিটের বেলায় সে রকম হয়রানির শিকার হতে হয় না এবং ঘুষ দিতে হয়না বলে এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়েই চলেছে এবং এফআইসিএল’র মাধ্যমে ঢাকা জেলার নারায়নগঞ্জ জেলা চট্টগ্রাম বিভাগ সহ প্রায় দু’হাজার বেকার যুবক-যুবতির কর্মসংস্থানসহ দেশের অর্থনীতিতে একবিরাট অবদান রেখে চলেছেন। এফ আই সি এলের অগ্রগতিতে ঈর্ষান্বিত হয়েও বেশ কিছুদিন ধরে একটি বিশেষ মহল এফআইসিএল’র ভাবমূর্তি বিনষ্টের জন্য একের পর এক ষড়যন্ত্র ও মিথ্যা অপপ্রচার চালানোর হীন প্রচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।

সমবায় ভিত্তিক মাইক্রো ক্রেডিটের ক্ষেত্রে একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র ফারইষ্ট ইসলামী কো-অপারেটিভ (এফ আইি স এল) গ্রুপের চেয়ারম্যান শামীম কবির। তার দক্ষ পরিচালনায় এফআইসিএল এখন মাইক্রো ক্রেডিট ক্ষেত্রে বাংলাদেেেশর সমবায় অঙ্গণের একটি দীর্ঘ পরীক্ষিত, বিশ্বস্ত, স্বনামধন্য ও দেশের শীর্ষস্থানীয় সমবায়ী প্রতিষ্ঠান। এখানে বিশেষভাবে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, সংস্থার নিয়মনীতি কঠোরভাবে রক্ষা করতে গিয়ে অর্থাৎ অনেকের অন্যায় আবদার রক্ষা করতে না পারায় অনেকেই ক্ষেপে যান চেয়ারম্যান শামীম কবিরের বিরুদ্ধে। তারা মোবাইল ফোনে প্রথমে তার নিকট চাঁদা দাবী, তাকে ভয়-ভীতি প্রদর্শন ও হত্যার হুমকি দেয় দৈনিক পত্রিকাকে মোটা অংক দিয়ে ম্যানেজ করে ভিত্তিহীন, বানোয়াট, উদ্দেশ্যমুলক ও বিভ্রান্তিকর সংবাদ প্রকাশ করে। কয়েকটি পত্রিকায় এ জাতীয় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করার পর শামীম কবির এবিষয়ে পত্রিকা সমূহের সম্পাদকের কাছে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত করে উত্থাপিত অভিযোগ সমূহের মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যমূলক ভাবে এসব অভিযোগ উপস্থাপন করা হয়েছে মর্মে পত্রিকার প্রতিবেদকগণ তাদের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন দখিল করেন।

তাদের তদন্ত প্রতিবেদন সমূহ তারা নিজের উদ্যেগে নিজ নিজ পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশ করেন এবং সংবাদটি বস্তুনিষ্ঠ ছিলনা বলে উল্লেখ করে পত্রিকা কর্তৃপক্ষ এ ধরনের সংবাদ প্রকাশ করার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন।

এখন স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন আসে যারা এ ধরনের মিথ্যা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তাদের কি শাস্তি হবে? শামীম কবির তাদের বিচারের ভার মহান সৃষ্টিকর্তার নিকট ছেড়ে দিয়েছেন এবং সাথে সাথে দেশবাসী ও এফআইসিএল’র সাথে সম্পৃক্ত সকল মহলকে এহেন মিথ্যা অপপ্রচার ও বিভ্রান্তিকর সংবাদে আতংকিত, বিচলিত ও বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য অনুরোধ জানান। আসলে শামীম কবির বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ ডিগ্রীধারী, শিক্ষানুরাগী, সমাজসেবক, পরিশ্রমি, সৎ, নিষ্ঠাবান, ন্যায়পরায়ন, কর্মঠ ও অভিজ্ঞ একজন বিশিষ্ট সমবায়ী ব্যক্তিত্ব ও যুব সংগঠক। তার দক্ষ পরিচালনায় এফআইসিএল কো-অপারেটিভ সোসাইটি লি: আজ সাফল্যে সিঁড়ি বেয়ে এগিয়ে চলেছে। দুর্নীতিবাজ ও চক্রান্তকারী বিশেষ ব্যক্তিরা তাদের অন্যায় সুবিধা হাসিল করতে পারছেনা বলেই অপপ্রচার চালাচ্ছে।

সকল ষড়যন্ত্র চক্রান্ত ও অপপ্রচারকে পেছনে ফেলে শামীম কবির এগিয়ে যাবেন এবং তার প্রতিষ্ঠিত এফআইসিএল কো-অপারেটিভ সোসাইটি লি: দেশের শীর্ষস্থানীয় সমবায়ী প্রতিষ্ঠান হিসেবে সু-প্রতিষ্ঠিত হবে এবং সুনামের সাথে টিকে থাকবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply