কুমিল্লায় শিক্ষকের বাসায় স্কুল ছাত্রী ধর্ষন :মোবাইল ফোনে ছড়িয়ে দিচ্ছে যৌনতার দৃশ্য

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী,কুমিল্লা :
কুমিল্লার দাউদকান্দিতে স্কুল শিক্ষকের বাসায় কৌশলে ডেকে নিয়ে ওই শিক্ষকের ছেলেসহ ৩ যুবকের সহায়তায় ৮ম শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষন করেছে এক লম্পট। গত ২৩ অক্টোবর এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় প্রভাবশালী একটি চক্র বিচারের নামে প্রহসনে মেতে উঠায় ঘটনার ৪ দিন পরও মামলা করতে পারেনি ধর্ষিতার পরিবার। এদিকে ধর্ষকসহ তার সহযোগীরা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ধর্ষনের চিত্র ছড়িয়ে দেয়ায় ধর্ষিতার পরিবার চরম আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, জেলার দাউদকান্দি উপজেলার সুন্দলপুর ইউনিয়নের সুন্দলপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক হুমায়ুন কবীরের ছেলে শুভ গত ২৩ অক্টোবর একই স্কুলের ৮ম শ্রেনীর তন্বী (১৫) (ছদ্মনাম) কে তার বাবা ডেকে বলে কৌশলে ঘরে নিয়ে যায়। সেখানে সে সহ আরো ২জনের সহযোগীতায় ওই স্কুলের দশম শ্রেনীর ছাত্র মাহবুব জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এসময় তার সহযোগীরা ধর্ষনের চিত্র মোবাইল ফোনে ধারন করে বিষয়টি কাউকে না বলতে নির্দেশ দেয়। এদিকে ওই দিন বিকেলেই ধর্ষক ও তার সহযোগীরা মোবাইলফোনের মাধ্যমে ধর্ষনের চিত্র স্থানীয় সহ বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে দিতে থাকে। ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি নিস্পত্তির জন্য চাপদেয়।

সূত্র জানায়, স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্র ধর্ষকদের পক্ষ নিয়ে ধর্ষিতার পরিবারকে বিভিন্ন ভাবে চাপ দিতে থাকে। সর্বশেষ তাদের বাধ্য করে সামাজিক ভাবে বিষয়টির মিমাংসার জন্য। প্রভাবশালীরা কালক্ষেপন করতে থাকে মামলার আলামত নষ্টের। এদিকে বিষয়টি সমাধানের জন্য প্রভাবশালীরা স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির চেয়ারম্যানের সাথেও রফা-দফা করার অভিযোগ উঠেছে। ফলে ধর্ষিতা যেমন বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তেমনি ধর্ষক মাহবুব, শুভ সহ ৪ লম্পট অপরাধ করেও প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্র জানায়,সুন্দলপুর স্কুলের প্রধান শিক্ষক বদরুল মিল্লাত তার সহযোগী শিক্ষক হুমায়ুন কবীরকে বাঁচাতে উঠে পড়ে লেগেছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আসলাম মিয়াজী’র ভূমিকা নিয়েও স্থানীয়রা ভয়ে মুখ খুলছে না। এব্যপারে চেয়ারম্যান বলেন, তিনি বিষয়টি শুনেছেন।

সামাজিক ভাবে সমাধানের চেষ্ঠার কথাও বলেন। স্কুল কমিটির সভাপতি আব্দুস সাত্তার বলেন, বিষয়টি আমাদের নিজস্ব, আপনার কি মা বোন নেই যে বিষয়টি পত্রিকায় প্রকাশ করতে চাইছেন? পাল্টা তাকে হাটে বাজারে মোবাইল ফোনে ওই ধারনকৃত ছবি ছাড়া হয়েছে এ বিষয়ে দৃষ্টি আকষর্ন করা হলে তিনি সদুত্তর দিতে ব্যর্থ হন।

এদিকে দাউদকান্দি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে এবিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি উত্তেজিত হয়ে বলেন, আমার থানার বিষয় আমি জানি না, আপনি জানলেন কোথা থেকে।

কুমিল্লার পুলিশ সুপার মোঃ মোখলেছুর রহমান বলেন, পুলিশের কাছে অভিযোগ না দিলে কি করার আছে। ধর্ষিতার পিতা অভিযোগ দিলে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Check Also

দাউদকান্দিতে সড়ক দুর্ঘটনার কবলে খন্দকার মোশাররফ হোসেনের গাড়িবহর : ছাত্রদলকর্মী নিহত

দাউদকান্দি প্রতিনিধি :– কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে বিএনপি নেতা ড. খন্দকার মোশাররফ ...

Leave a Reply