লাকসামে চুক্তিভঙ্গ করে নদী বাংলা ভূইয়া টাওয়ার ভবন নির্মাণের পায়তারা

লাকসাম প্রতিনিধি:

নির্মাণ কাজ বন্ধে আদালতের নিষেধাজ্ঞাজারী
কুমিলার লাকসামে চুক্তিভঙ্গ করে এবং আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নদী বাংলা ভূইয়া টাওয়ার ভবন নির্মাণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এ ভবন দেখিয়ে বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে বলেও জানা যায়। এ বিষয়ে গতকাল বুধবার কুমিলা অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট কোর্টে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

জানা যায়- কুমিলার লাকসাম উপজেলার বাইপাস (লাকসাম-চৌদ্দগ্রাম সড়ক)’র ২০৫ নং লাকসাম মৌজার হাল দাগ ১২১৫ সাবেক দাগ নং ৬৪৮ শারিজা খতিয়ান নং-১৬৪৩, বিএস খতিয়ান নং-১৫২৪ দাগের ১৮ শতক সম্পত্তির মূল মালিক মনোহর আলী। তিনি মৃত্যুর পর ৪ পুত্র হারাহারি ভাবে অংশীদার হন। মনোহর আলীর পুত্রদ্বয় হচ্ছে জাহাঙ্গীর হোসেন, লেয়াকত হোসেন, কামাল হোসেন ও জামাল হোসেন। ওই সম্পত্তিতে ১১ তলা বিশিষ্ট ভবন নির্মাণের জন্য ‘নদী বাংলা ডেভেলপারর্স কোম্পানীর সাথে ৪ ভাইয়ের সাথে ২০১০ সালের নভেম্বর মাসে চুক্তিবদ্ধ হয়। চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা ও প্রলোভন দেখিয়ে প্রায় ১’শ জনের নিকট থেকে দোকান বরাদ্ধ দেয়ার নামে অগ্রিম বাবদ প্রায় ৪/৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় নদী বাংলা ডেভেলাপারস কোম্পানী। দ্রুতগতিতে দোকান বরাদ্ধ বুঝিয়ে দেবার কথা থাকলেও ১ বৎসরের অতিবাহিত হওয়ার পরও ভূমিতে নির্মাণ কাজ শুরু না হওয়ায় ভূমির মালিক ও দোকান মালিকরা প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হচ্ছে। ভূমির মালিক ও দোকান মালিকরা আতঙ্কে বিরাজ করছে এবং যে কোন সময় ডেভেলাপারস পালিয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছে। ভূমি মালিক ও দোকান মালিকরা ডেভেলাপারর্সকে দোকান বুঝিয়ে দেয়া এবং নয়তোবা টাকা ফেরত চাইতে গেলে উল্টো লাকসাম স্থানীয় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ক্যাডারদের দিয়ে উল্টো হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে দোকান মালিকরা জানান। এ ঘটনায় কামাল হোসেন ভূঁইয়ার স্ত্রী আমিনা আফরোজা বেগম বাদী হয়ে গতকাল বুধবার ২৬/১০/২০১১ইং তারিখে কুমিলা বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে কাজ বন্ধ রাখার জন্য একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- পি আর ১৫৬৭/১১। তারিখ ২৬/১০/২০১১। মামলার আসামীরা হচ্ছেন লাকসাম, বাইপাস ভূইয়া টাওয়ার ১৪ গ্রাম রোডের, নদী বাংলা ডেভেলাপারর্স কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ নাসের, পিতা-হাজী ছালে আহম্মদ ও কোম্পানীর ম্যানেজার সালাউদ্দিন, পিতা আবদুস সাত্তার ভূইয়া। আদালত উক্ত ভূমিতে ভবন নির্মাণ কাজ স্থগিত করার নির্দেশ দিয়েছে।

এ বিষয়ে ভূমি মালিকরা জানান- ২০১০ সালের নভেম্বর মাসে নদী বাংলা বাংলা ডেভেলপারর্স কোম্পানীর সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়। চুক্তিবদ্ধ হওয়ার ১ বৎসর পর ২০১১ সালের ২১ অক্টোবর ডেভেলপার্সরা কাজ শুরু করে। এছাড়াও প্রায় ১’শ জনেরর নিকট থেকে দোকান বরাদ্দ দেয়ার নামে প্রায় ৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। যে কোন মুহর্তে পালিয়ে যেতে পারে। ভূমি মালিকরা আরও জানান- ডেভেলপারর্সরা চুক্তি ভঙ্গ করেছে। তারা চুক্তিটি ইংরেজিতে করে আমাদের নিকট থেকে স্বাক্ষর নেয়। কিন্তু ইংরেজি কি লেখা আছে তা আমরা পুরোপুরি বুঝতে পারি না। ডেভেলপারপার্স কর্তৃপক্ষ লক্ষ্মীপুর রামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ শাহাজাহান কণ্ট্রাক্টরের নাম ভেঙ্গে আমাদেরকে প্রতিনিয়ত হুমকি ধমকি দিচ্ছে। যদিও নদী বাংলা ডেভেলপার্স মালিক জামায়াতের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ততা রয়েছে। তারপরও সে লক্ষ্মীপুর রামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ শাহাজাহান কণ্ট্রাক্টরের নাম ভাঙ্গিয়ে এবং লাকসাম উপজেলার কতিপয় ছাত্রলীগ যুবলীগ নেতাকর্মীদের নাম ভাঙ্গিয়ে হুমকি ধমকি দিচ্ছে। নেতা বর্তমানে ৫তলা ফাউন্ডেশনের ১ তলা বিশিষ্ট একটি ভবন রয়েছে। ভবনটি ভেঙ্গে ভবনের ক্ষতিপূরণ বাবদ ৬০ লক্ষ টাকা দেয়ার কথা থাকলেও তারা কোন টাকাই দিচ্ছে না।

Check Also

লাকসাম-মনোহরগঞ্জের বিএনপি’র সাবেক এমপি আলমগীরের জাতীয় পার্টিতে যোগদান

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা-১০ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) বিএনপি’র সাবেক এমপি এটিএম আলমগীর জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেছেন। সোমবার জাতীয় ...

Leave a Reply