তিতাসে ৯৮ একর ফসলী জমিতে জলাবদ্ধতা রবি ফসল থেকে বঞ্চিত শতাধিক কৃষক

নাজমুল করিম ফারুক, তিতাস :

তিতাস উপজেলা কমপ্লেক্স সংলগ্ন ৯৮ একর জমিতে জলাবদ্ধতার ফলে প্রায় শতাধিক কৃষক রবি ফসল উৎপাদন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
তিতাস উপজেলার কমপ্লেক্স সংলগ্ন কড়িকান্দি বাজারের হোমনা-গৌরীপুর সড়কের সওজ জায়গায় অতিকৌশলে বালু ভরাটের মাধ্যমে অবৈধভাবে দখল করার ফলে ৯৮ একর ফসলী জমিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। যার ফলে কড়িকান্দি গ্রামের প্রায় শতাধিক কৃষক রবি ফসল আলু, টমেটো, খিরা, মরিচ জাতীয় ফসল উৎপাদন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নুরুন নাহার পারভীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদের আগষ্ট মাসের সভায় বিষয়টি উপজেলা সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আঃ রব উত্থাপন করেন। তিনি সভায় জানান, হোমনা-গৌরীপুর সড়কের কড়িকান্দি বাজার সংলগ্ন পানি সরবরাহের দু’টি কালভার্ট এর দু’পাশে জলকোরটি এলাকার কতিপয় লোকজন ড্রেজিং এর মাধ্যমে ভরাট করছে; এতে পানি চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে এবং উপজেলা পরিষদের চারদিকে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে। তিনি আরো জানান, জলাবদ্ধতার কারণে রবি মৌসুমে উক্ত এলাকার কৃষকগণ রবি ফসল রোপনে ব্যাঘাত ঘটবে। বিষয়টি নিয়ে দীর্ঘ আলোচনার পর পানি সরবরাহের জলকোর বা গৌরীপুর-হোমনা সড়কের পাশ দিয়ে ড্রেজিং এর মাধ্যমে ভরাট ও পানির চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির প্রতিরোধ করার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা কৃষি অফিসার ও অফিসার ইনচার্জ তিতাস থানাকে অনুরোধ করা হয়। কিন্তু বিধিবাম। বিষয়টি নিয়ে রহস্যজনকভাবে প্রশাসন নিরব থাকলেও উক্ত জলাবদ্ধতা এখন প্রায় শতাধিক কৃষকের মাঝে মরার উপর খাড়ার ঘা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আঃ রব এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, বিষয়টি নিয়ে একাধিক পরিষদের সমন্বয় সভা (২৫ আগষ্ট’১১) ও আইন শৃঙ্খলা সভায় (১৭ অক্টোবর) সংশ্লিষ্টদের অবগত করা হয়েছিল। তিনি আরো জানান, উক্ত এরিয়ায় ২টি প্রদর্শনী ফসল করার কথা থাকলেও জলাবদ্ধতার কারণে তা করা যাচ্ছে না। ৫৬ হেক্টর জমির মধ্যে বর্তমানে ৪০ হেক্টর অর্থ্যাৎ ৯৮ একর জমিতে জলাবদ্ধতা রয়েছে একটু বৃষ্টি হলে বাকি ১৬ হেক্টর জমির ফসলও তলিয়ে যাবে তখন আর্থিকভাবে কৃষক ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আমিনুল ইসলাম জানান, যথাসময়ে পুলিশ পাঠিয়ে কাউকে না পাওয়ায় ব্যবস্থা নেওয়া যায়নি। তবে জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য কোন বরাদ্দ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নুরুল আলম তালুকদার জানান, সংশ্লিষ্ট বিষয়টির সাথে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সম্পৃক্ত নয়, তা উপজেলা কৃষি অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার ভালো বলতে পারবে।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply