স্বৈরাচারী ও অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে সংগ্রাম চালাতে এসেছি। ——— খালেদা জিয়া

আরিফুল ইসলাম সুমন, সরাইল::
চারদলীয় জোট নেত্রী বিএনপি’র চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, অবৈধ, স্বৈরাচারী, জালেম ও মঈন-ফকরুদ্দিনের সাথে আতাত করে আসা মহাজোট সরকারের বিরুদ্ধে সংগ্রাম চালাতে এসেছি। আপনারা এ দেশের মানুষ পাতানো সরকারকে হটানোর সংগ্রাম শুরু করুন। তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা পুনর্বহাল ও জনসমস্যা সমাধানের দাবিতে চারদলীয় জোট ও সমমনা দলগুলোর রোডমার্চ কর্মসূচিতে গতকাল সোমবার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়ার সরাইল বিশ্বরোড মোড়ের পথসভায় তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি’র চেয়ারপার্সন আরো বলেন, ট্রানজিট চুক্তির নামে মহাজোট সরকারের অসম চুক্তি মেনে নেয়া যায় না। এই জালেম আওয়ামী লীগ সরকারের বয়স এখন তিন বছর। মানুষের পেটে খাবার নেই। গ্যাস নেই, বিদ্যুৎ নেই। বেকারত্ব বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু তাদের রয়েছে শুধু লুটপাট, সন্ত্রাস, টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, মন্দিরের জায়গা দখল, গুপ্ত হত্যা, ছাত্রী নির্যাতন, বিরোধী দলকে নিপীড়ন, নির্যাতন, দুর্নীতি, খাল-বিল, নদী-নালা দখল। দেশের বিচার বিভাগ আজ তাদের ইশারায় নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে। আওয়ামী লীগ অতীতে মতায় থাকাকালে ৪০ হাজার মানুষকে হত্যা করেছে। এখনও প্রতিদিন হত্যার ঘটনা ঘটছে। তারপরও উনারা মুখে বলেন দেশ প্রেমের কথা। তাদের নিজেদের ছেলে মেয়ে বিদেশে থাকেন। এ দেশের যুবসমাজের দিকে তাদের খেয়াল নেই। নিজেদের পেট ভরে বিদেশে টাকা পাচার করছে তারা। ইন্টারপ্লানের কথা বলে মানুষকে ধোকা দিয়ে টাকা কামিয়ে যাচ্ছেন। আওয়ামী লীগের স্বাধীনতার পর থেকেই রিলিফের মাল চুরি অভ্যাস রয়েছে। তা দেশের মানুষ জানেন। আওয়ামী লীগের অতীত ইতিহাস জানলে কোন ভদ্র লোক এ দল করবেন না। কিছু না বলেই হুট করে তারা গ্যাসের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। বিদ্যুতের দাম আরো বাড়াবে বলে জানিয়েছে। জরুরি অবস্থার সময় দায়ের করা রাজনৈতিক মামলাগুলো থেকে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা পার পাচ্ছে। কিন্তু বিএনপি’র নেতা-কর্মীরা এ সুযোগ তো পাচ্ছেই না উল্টো নতুন নতুন মামলা দেয়া হচ্ছে। জামায়াত নেতাদের বেড়ি পড়ানো হচ্ছে। খালেদা জিয়া বলেন, যোদ্ধাপরাধীদের বিচার আমরাও চাই। তবে সেটা হতে হবে আর্ন্তজাতিক মানের। আ’লীগের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, আপনাদের ঘরে মানবতাবিরোধী রয়েছে। তাদের বিচার করুন। নতুবা মানবতাবিরোধী বিচার কাজ অস্বচ্ছ থেকে যাবে। আওয়ামী লীগ মতায় আসলেই শেয়ার বাজার লুটপাট হয়। ১০ টাকা কেজি চাল, ঘরে ঘরে চাকুরি দেয়ার কথা বলে তারা মতায় এসেছে। দেশনেত্রী উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে বলেন, আমি তিন বার প্রধানমন্ত্রী হয়েছি। মন্ত্রী হওয়া বড় কথা নয়। দেশের মানুষের মুখে হাসি ফুটানোই আমার উদ্দেশ্য। আর সময় নেই। আসুন আমরা দেশ ও দেশের মানুষকে বাঁচাতে এই জালেম সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে নেমে পড়ি।

এর আগে সরকার বিরোধী রোডমার্চ কর্মসূচি সফলে গতকাল ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়া জেলায় বিভিন্ন এলাকাগুলোতে লাখো মানুষের ঢল নামে। মহাজোট তথা আওয়ামী লীগ সরকারের বিভিন্ন জনস্বার্থবিরোধী কর্মকান্ডের প্রতিবাদ জানাতে জেলার নানা শ্রেণী পেশার মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে মহাসড়কে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রোডমার্চে অংশ নেন। আওয়ামী লীগ সরকারের নানা ব্যর্থতার প্রতিবাদে রোডমার্চ কর্মসূচি দেশের পূর্বাঞ্চলীয় জনসাধারণের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। চারদলীয় জোট ও সমমনা দলগুলোর এই বিশাল জনসমর্থিত রোডমার্চ কর্মসূচির ফলে দলের নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের মাঝে প্রাণচাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বিএনপি’র একাধিক ত্যাগী নেতা-কর্মী দাবি করেছেন- সরকার বিরোধী এই রোডমার্চ কর্মসূচি বিএনপিসহ অংশগ্রহনকারী অন্যান্য দলগুলোকে আরো শক্তিশালী করবে। জনসমস্যা সমাধানের দাবিতে বিএনপি’র চেয়ারপার্সনের নেতৃত্বে এই রোডমার্চ কর্মসূচিকে লাখ লাখ মানুষ সমর্থন জানিয়েছেন। তারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে সরকার বিরোধী এই কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন। এই কর্মসূচির ফলে বিএনপি’র তৃণমূল বহু নেতা-কর্মী এক পাটফর্মে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দলের কর্মকান্ডকে আরো চাঙ্গা করে তুলবেন।
গতকাল খালেদা জিয়ার রোডমার্চ কর্মসূচিকে ঘিরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ থেকে বুধন্তী পর্যন্ত ২৯ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে হাজারো মানুষের মিছিলে মিছিলে মুখরিত ছিল পুরো মহাসড়ক। নিত্যপণ্যের মূল্য উর্ধ্বগতি, পুঁজিবাজার লুন্ঠন ৩৩ লাখ ুদ্র বিনিয়োগকারী সর্বশান্ত, আদালত ও প্রশাসন দলীয়করণ দেশে অরাজকতা, দেশে সন্ত্রাস বৃদ্ধি, বিদ্যুৎ গ্যাস ও জ্বালানী তেলের অব্যাহত মূল্য বৃদ্ধি জনজীবনে সীমাহীন দূর্ভোগ, সংবিধান থেকে মহান আলাহ্র প্রতি আস্তা ও বিশ্বাস মুছে ফেলা, প্রতিনিয়ত সীমান্তে মানুষ খুন, নারী নির্যাতন, হত্যা, ডাকাতি, রাহাজানি, নেই উন্নয়ন দেশের রাস্তা-ঘাট ব্রীজ-কালভার্টের বেহাল দশা, টেন্ডার ও ইজারায় সন্ত্রাস চাঁদাবাজি, গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রন করার অপচেষ্টা, তিস্তার ন্যায্য পানি আদায়ে ব্যর্থতা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিরোধী দলের প্রতি বিদ্বেষ জুলুম অত্যাচার নিপীড়ন নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে লাখো মানুষ রাজপথে নেমে আসেন। রোডমার্চ কর্মসূচির নেতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সরাইল বিশ্বরোড মোড়ের পথসভায় যোগ দিতে সোমবার সকাল থেকেই জেলার বিভিন্ন এলাকার মানুষ স্বতঃস্ফুর্তভাবে তারেক জিয়া ও খালেদা জিয়ার ছবি সম্বলিত ব্যানার পোষ্টার নিয়ে মিছিল সহকারে আসতে শুরু করেন। বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে মিছিল সহকারে সভাস্থলে আসেন। একসময় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পথসভাস্থল বিশ্বরোড় মোড় জনসমুদ্রে পরিণত হয়।
বিএনপি’র কেন্দ্রিয় নেতা এডঃ হারুন আল রশিদের সভাপতিত্বে পথসভায় বক্তব্য রাখেন, বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, কেন্দ্রিয় নেতা সাদেক হোসেন খোকা, ড. মঈন খান, আমান উল্লাহ আমান, মির্জা আব্বাস, বরকত উল্লাহ বুলু, এডঃ শামসুজ্জামান দুদু, এডঃ আশরাফি আক্তার পাপিয়া, নাজিম উদ্দিন আলম, এডঃ মাহবুব উদ্দিন খোকন, মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, গোলাম আকবর খন্দকার, সহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, কাজী আনোয়ার হোসেন, উকিল আবদুস সাত্তার ভূইয়া, আবদুস সালাম, ইঞ্জিনিয়ার মাহবুব হোসেন শ্যামল প্রমূখ।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply