সরাইলে প্রেমের টানে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেছেন সুকেশ দাস

সরাইল(ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি::॥
প্রেম মানে না জাত-কূল ধর্ম। প্রেমে কোনো ভেদাভেদ নেই ধনী গরীবের। প্রেমের টানে অনেক প্রেমিক মজনু পরিবার-পরিজন ত্যাগ করতেও পিছু হটেন না। যা কিছু হোক ভালোবাসার মানুষটিকে তার চাই-ই চাই। গতকাল শনিবার ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার সরাইলে এমন একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে। সরাইল উপজেলার অরুয়াইল ইউনিয়নের বাদে অরুয়াইল গ্রামের মৃত সুমঙ্গল দাসের দ্বিতীয় পুত্র সুকেশ দাস(২৬)। প্রেমিক সুকেশ দাস তার প্রেমকে জয়ী করতে গিয়ে নিজ ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেছেন।
সুকেশ দাসের পারিবারিক সূত্র জানায়, সুকেশ দাসের চার ভাই। পরিবারের অসচ্ছলতার কারণে সুকেশ অষ্টম শ্রেণীর বেশী পড়ালেখা করতে পারেনি। সুকেশ অরুয়াইল বাজারে ওষুধের ব্যবসা করত। একসময় সে ঢাকার মহাখালীতে একটি ফার্মেসীতে চাকুরি নেয়। প্রেমে পড়ে নেত্রকোনা জেলার কমলাকান্দা উপজেলার পূর্বধলার মূলগাঁও গ্রামের মৃত আব্দুর জব্বারের ষোড়শী কন্যা গামেন্ট কর্মী লাভলী আক্তারের সঙ্গে। দু’জনই মুঠোফোনে দীর্ঘ দুই বছর ধরে চলে মন দেয়া-নেয়া ও কথোপকথন। প্রেমিকার কাছে সুকেশ তার সাম্প্রদায়িক পরিচয় ও নাম গোপন রাখে। একসময় একে অপরকে কাছে পেতে ব্যাকুল হয়ে পড়ে। গত শুক্রবার প্রেমের টানে দু’জনে পাড়ি দেন সুকেশের নিজ এলাকা সরাইলে। তাদের এই বিষয়টি নিয়ে সুকেশের নিকট আত্মীয়রা ও গ্রাম্য মাতাব্বর বৈঠকে বসেন। তখনই সব ছেড়ে আসা মেয়েটি জানতে পারে তার প্রেমিক পুরুষটি হিন্দু ধর্মাবলম্বী। অসহায় মেয়েটির মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে। নিজ ধর্ম ও পরিবার ত্যাগ করেই মেয়েটি বিয়ে করার প্রস্তাব দেয় সুকেশ। শনিবার নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে প্রথমে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করে সুকেশ। সুকেশের নাম পরিবর্তন করে নতুন নাম দেয়া হয় মো. রাজীব মিয়া। পরে ইসলাম ধর্মের নিয়মানুযায়ী দু’জনের বিয়ে সম্পন্ন হয়। এদিকে ধর্ম ত্যাগ করায় মনোক্ষুন্ন সুকেশের পরিবার। এ প্রসঙ্গে রাজীব ও লাভলী জানান, আমাদের প্রেম জয়ী হয়েছে। এখন আমরা খুবই খুশি।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply