নাঙ্গলকোটে আপত্তিকর অবস্থায় প্রেমিক-প্রেমিকা আটক

জামাল উদ্দিন স্বপন:
মঙ্গলবার রাতে ভালোবাসার নামে অবৈধ যৌন কাজে লিপ্ত থাকা অবস্থায় ২প্রেমিক-প্রেমিকাকে গ্রামবাসীর হাতে আটক করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে কুমিলা জেলার নাঙ্গলকোট উপজেলার আদ্রা ইউনিয়নের পদুয়া গ্রামে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পদুয়া গ্রামের হাশেম মিয়ার ২য় মেয়ে তানজিনা আক্তার শিপী (১৭) এবং পাশ্ববর্তী মনোহগঞ্জ থানার নাথেরপেটুয়া গ্রামের পাগলা ভান্ডারীর ১ম ছেলে সুমনের (২০) সাথে দীর্ঘদিন যাবত ভালোবাসা এবং অবৈধ যৌন সম্পক কয়েছে। আরো জানা যায় সুমন তানজিনার দুলাভাইয়ের চাচাতো ভাই। গত মঙ্গলবার তানজিনার মা তানজিনার নানা বাড়ীতে বেড়াতে চলে যায়। এই সুযোগে ঘর খালি থাকায় তানজিনা রাতে সুমনকে তাঁর বাড়ীতে আসার জন্য ফোন করে। ছেলেটি রাত ১০টায় একটি রিক্সা চড়ে তাদের গ্রামে আসে ঐ রিক্সা চালক পদুয়া গ্রামের বাসিন্দা। ঐ রিক্সা চালক ছেলেটিকে আর কখনো গ্রামে দেখেনাই বলে সন্দেহ করে রাফিয়া নামের আরেকটি ছেলেকে নিয়ে সুমনের পিছু নেয়। এর পর দেখে ছেলেটি তানজিনাদের ঘরে ঢুকে। রিক্সা চালক ঐ বাড়ীতে কিছুক্ষন অপেক্ষা করে দেখতে পায় তাঁরা অবৈধ মিলামিশা করছে। তখন রিক্সা চালক ঘটনাটি বাড়ীর মুরব্বী মোস্তফা মিয়া ও আবুল খায়ের কে জানায়। জনানের পর তারা তানজিনাদের ঘরের সামনে এসে দরজা খোলার জন্য ডাক দেয়। অনেকক্ষন পর তানজিনা এসে দরজা খুললে ঐ লোক গুলো তাকে জিজ্ঞাসা করে তোমার ঘরে আর কে কে আছে। সে বলে আমি ছাড়া আর ঘরে কেউ নাই । এক পর্যায়ে গ্রামবাসীরা তানজিনাদের ঘর চেক শুরু করে। পরে তাদের গোলার মধ্যে উলঙ্গ থাকা অবস্থায় সুমন কে পাওয়া যায়। গোলা থেকে নামানোর পর দেখে ছেলেটি তাদের আতœীয়। মেয়ের সম্মান এবং ছেলের আতœীয়তা রক্ষার্থে ঘটনাটি আর কাউকে না জানিয়ে রাতেই ছেলেটিকে ছেড়ে দেওয়া হয়। পরবর্তীতে এ ঘটনা গ্রামে ছড়িয়ে পড়ে। এর ফলে গ্রামের উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply