মুরাদনগরে সরকারী রাস্তায় মসজিদ ও কবরস্থান নির্মাণকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের আশঙ্কা

ছবি তোলার সময় টানা হেছড়ায় ভোরের কাগজ সাংবাদিক লাঞ্চিত
মো শরিফুল আলম চৌধুরী মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ
কুমিল্লায় মুরাদনগর উপজেলায় দারোয়া ইউনিয়নের দারোরা-ইলিয়টগঞ্জ সড়কের মধ্যবর্তী কাজিয়াতল হাসান মার্কেটের উত্তরের কাজী বাড়ী এলাকায় ২৮ শতাংশ কেয়ারের রাস্তায় কাজী বাড়ী জামে মসজিদ ও গোরস্থানের নামে দখল করে মসজিদ নির্মাণের কাজ চলছে। উপজেলা প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইউপি সদস্য জহিরুল এর ছত্র ছায়ায় একটি প্রভাবশালী মহল দারোরা -ইলিয়টগঞ্জ সড়ক এর কাজিয়াতল এলাকায় ওই সড়কের এক তৃতীয়াংশ সড়কই দখল করে মসজিদ নির্মাণের জন্য ইতিমধ্যে পাইলিং এর কাজ শুরু করেছেন। রাস্তা দখল করে মসজিদ নির্মাণ করার ফলে ওই এলাকায় প্রতিদিন অন্ততঃ ৩-৪ হাজার মানুষ ও সহ¯্রাধিক রিক্সা, অটোরিক্সা, ভ্যান, মাইক্রোবাস, মালবাহি পিকআপ ও ট্রাক চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে। ক্ষতিগ্রস্ত হবে অন্ততঃ লক্ষাধিক মানুষ। এ ছাড়া হুমকির মূখে পড়বে পরিবেশ ও জনচলাচল। স্থানীয় সচেতন মহলদের মতে মৃত রেনু মিয়া মসজিদের নামে ১ শতাংশ জায়গা ওয়াকফ দান করেন। তার দুই পুত্র আনোয়ার হোসেন, আবুল কালাম ওই ওয়াকফ কৃত মসজিদেরে ১শতাংশ জায়গার সাথে আরেকটি কবর স্থান নির্মাণসহ ১ নং খাসখতিয়ানের সম্পত্তি ১৯১৩ দাগের ২৮ শতাংশ রাস্তা দখল করে হাজার হাজার মানুষের চলাচলের প্রতি বন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। এ ব্যাপারে প্রশাসন নীরব ভূমিকা পালন করেছে বলে স্থানী বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে জনস্বার্থে রাস্তা ও মসজিদ বাঁচাও কমিটির আহবায়ক মোঃ তাজুল ইসলাম বাদী হয়ে গত ১১ সেপ্টেম্বর মসজিদ কমিটির সেক্রেটারী অবসর প্রাপ্ত সেনাসদস্য আবুল কাশেম ইউপি সদস্য জহির, মৃত রেনু মিয়ার ছেলে আবুল কালাম ও আনোয়ার হোসেন ও মৃত আবদুল খালেকের ছেলে জসিম উদ্দিনকে অভিয্ক্তু করে সরকারী রাস্তা দখলমুক্ত করার জন্য পৃথক পৃথক ভাবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুরাদনগর ও দারোরা ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে বলা হয়, অভিযুক্ত ব্যক্তিরা একটি প্রভাবশালী মহলের প্রভাবে প্রভান্বিত হয়ে দারোরা-ইলিয়টগঞ্জ সড়কের কাজিয়াতল এলাকায় এক তৃতীয়াংশ সড়কসহ ২৮ শতাংশ হালট দখল করে তাতে মাটি ভড়াট করে মসজিদ ও কবরস্থান তৈরী করছেন। প্রতিদিন প্রায় শতাধিক শ্রমিক দিয়ে কবর স্থানের অবকাঠামো নির্মাণ ও মসজিদের পাইলিংয়ের কাজ চলছে। এতে ৫০ গ্রামের প্রায় লক্ষাধিক মানুষের পথ চলা চল বন্ধ হয়ে যাবে। সরকারী রাস্তা দখল করে মসজিদ নির্মাণের প্রতিবাদে স্থানীয় লোকজন মিছিল সমাবেশ করলেও প্রভাবশালী মহলটি তাতে তোয়াক্কা করেছেন না। বরং তারা সন্ত্রাসী দিয়ে গ্রামবাসীর উপর হামলা নির্যাতন চালাচ্ছেন। এ নিয়ে গ্রামের সচেতন মহলদের সাথে প্রভাবশালী ভূমি দস্যুদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্খা করা হচ্ছে। স্থানীয় মাতাব্বর ফজলু মিয়া সরকার বলেন, রাস্তা দখল কারী প্রভাবশালী মহলরা সরকারী ভূমি অফিসের আমিন শীপ হানিফ মিয়ার উপর ও চড়াও হয়, এবং তাকে রাস্তার অংশ মেপে বাহির করতে বিভœতা সৃষ্টি করায়। এ সময় ইউপি চেয়ারম্যান কাদের মোক্তার উপস্থিত থাকলেও নিরব থাকেন। ওই ঘটনায় গত বুধ বার সকালে ভোরের কাগজ মুরাদনগর প্রতিনিধি সাংবাদিক শরিফুল আলম চৌধুরী সরেজমিনের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করতে গেলে ইউপি মেম্বার জহিরুল ইসলামের নেতৃত্বে ১০/১২ জনের একটি মাদকসেবী দল তার উপর চড়াও হয়, এবং টানা হেচড়া করে তাকে ছবি তুলতে বাধা দেয়। ওই দিন দুপুরে সাংবাদিক শরিফুল আলম চৌধুরী বাদী হয়ে মুরাদনগর থানায় ইউপি সদস্য জহিরুল ইসলাম সহ অজ্ঞাত আরো ১০/১২ জনকে অভিযুক্ত করে একটি এজহার দায়ের করেন। মসজিদ কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ আলীর ০১৭১৩৩২২৯১০ নম্বারে বাব বার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। মসজিদ নির্মাণ কমিটির আরেক সদস্য জহিরুল ইসলাম মেম্বার বলেন, মসজিদ একটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠন এনিয়ে কেউর বাড়া বাড়ি করা ঠিক হবেনা। এনিয়ে কথা বললে পাপ হয়। ওই জামে মসজিদের ইমাম মৌলানা ইমরান বলেন, ওয়াকফ কৃত জায়গা ছাড়া কোন জুমা মসজিদ স্থাপন করলে হাদীস ও সূন্নাহ্ অনুযায়ী ওই মসজিদে নামাজ পড়া জায়েয হবেনা। মুরাদনগর ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার হাফিন মিয়া বলেন, আমি রাস্তার পুরো জায়গা মেপে দেখেছি মসজিদের পুরো অংশই হালটে পড়েছে। আজকালের মধ্যেই উহার প্রতিবেদন উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের নিকট দাখিল করব। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নামজা বেগম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি এই ব্যাপারে কাননগুকে নির্দেশ দিয়েছি তদন্ত পূর্বক জরুরী ভিত্তিতে ব্যাস্থা গ্রহণ করা জন্য।




Check Also

করিমপুর মাদরাসায় বোখারী শরীফের খতম ও দোয়া

মো. হাবিবুর রহমান :– কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার করিমপুর জামিয়া দারুল উলূম মুহিউস্ সুন্নাহ মাদরাসায় ১৪৪০ ...

Leave a Reply