দেবিদ্বারে এক স্কুলে দু’ প্রধান শিক্ষক: শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত!

এম.এ হোসাইস :
কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলাধীন আবদুলাপুর হাজী আমির উচ্চ বিদ্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের পদ নিয়ে ওই বিদ্যালয়েরই দু’শিক্ষক ও তাদের সমর্থকরা মুখোমুখি অবস্থানে থাকায় ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্বকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। তাই আসন্ন জেএসসি এবং এসএসসি’র টেষ্ট পরীক্ষা নিয়েও শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা চরম উৎকণ্ঠায় রয়েছে। ওই বিদ্যালয়ের বর্তমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হারুন অর রশিদের বিরুদ্ধে একই বিদ্যালয়ের অপর ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দাবীদার সুনীল চন্দ্র দত্তসহ এমপিওভুক্ত অপর আরো ৬ শিক্ষক নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককের পদ থেকে হারুন অর রশীদ কে প্রত্যাহারের দাবী জানিয়ে কর্মবিরতি পালন করে আসছে।
জানা যায় ওই বিদ্যালয় থেকে ২০০৫ সালে তৎকালীন প্রধান শিক্ষক নুরুল আমিন ভূইয়া বিদায় নেয়ার পর একই বছরের ২০ মার্চ সুনীল চন্দ্র দত্ত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককের দায়িত্বভার গ্রহন করেন। কিন্তু বিগত তত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বিদ্যালয়ের এডহক কমিটি ২০০৭ সালের ২৮ মার্চ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককের পদ থেকে তাকে সরিয়ে একই বিদ্যালয়ের শিক্ষক হারুন অর রশিদকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককের দায়িত্ব প্রদান করে। কিন্তু হারুন অর রশিদ দায়িত্ব নেয়ার পরও নানা কারনে প্রধান শিক্ষক নিয়োগের বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহন করেননি। কিন্তু চলতি বছরের গত ২৪ মার্চ পূনরায় সুনীল চন্দ্র দত্তকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের পদে অধিষ্ঠিত করার পর সে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন করে। কিন্তু নব নির্বাচিত কমিটির সভাপতি সবুর আহমেদ খান দায়িত্ব গ্রহনের পর গত ২১ আগষ্টের সভায় সুনীল চন্দ্র দত্ত কে তার দায়িত্ব থেকে সরিয়ে পূনরায় হারুন অর রশিদকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককের পদে অধিষ্ঠিত করা হয়। এতে বিদালয়ের শিক্ষকরা বিরুদ্ধ হয়ে উঠে। এর পতিবাদে বিদ্যালয়ের এমপিওভুক্ত ১০ শিক্ষককের মধ্যে বর্তমানে ৬ জন শিক্ষক , ১ জন করনিক এবং ২ জন পিয়ন গত ১০ সেপ্টেম্বর থেকে বিদ্যালয়ে দায়িত্ব পালন থেকে বিরত রয়েছেন। এতে বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্বকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। আন্দোলনরত শিক্ষকরা জানান ম্যানেজিং কমিটি ও বর্তমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হারুন অর রশিদের কর্মকান্ডের কারনে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহতসহ বিদালয়ে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ওই চক্রের বিতর্কিত কর্মকান্ডের কারনেই বিগত বছরে এখানে সভাপতির পদ থেকে অনেক খ্যাতনামা ব্যক্তিকে সরে যেতে হয়েছে। এ বিষয়ে আন্দোলনরত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সুনল চন্দ্র জানান প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েও হারুন অর রশিদের বিতর্কিত কর্মকান্ডের কারনে সে ওই পদে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করছে না। সর্বশেষ গত ৪ আগষ্ট পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি আহবান করলে প্রধান শিক্ষক পদে ১১ জন আবেদন করে। এ পদে বিতর্কিত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হারুন অর রশিদও আবেদন করেছেন। তাকে প্রধান শিক্ষক পদে বসাতে স্থানীয় একটি চক্র অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবুল কাশেম জানান বিদ্যালয়ের শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে বিতর্কিত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হারুন অর রশিদকে সেচ্ছায়ই দায়িত্ব ছেড়ে দেয়া উচিত। এছাড়াও যথাযথ প্রক্রিয়ায় ইতিমধ্যে আবেদনকৃতদের থেকে যোগ্য প্রার্থীদের প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দিয়ে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দাবী জানান তিনি। বিদালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষকরা এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এবিএম গোলাম মোস্তফার হস্তপে কামনা করেছেন। এ বিষয়ে স্কুলের পরিচালনা কমিটির সভাপতি মোঃ সবুর আহমেদ খান জানান এ স্কুলে নতুন প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে। বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হারুন অর রশিদ জানান স্কুল পরিচালণা কমিটি আমাকে দায়িত্ব দিয়েছে,তরা যখন আমাকে এ পদ থেকে সরিয়ে দেবে তখনই দায়িত্ব হস্তান্তর করবো, এ নিয়ে আন্দোলনের দরকার নেই। বিদ্যালয়ের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান হাজী আবদুর রঊফ সরকার জানান বর্তমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও স্থানীয় একটি চক্রের কারনে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ বিঘিœত হচ্ছে, নষ্ট হচ্ছে ছাত্র/ ছাত্রীদের লেখা পড়া। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানান শিক্ষকরা আন্দোলনে থাকায় কিন্ডার গার্টেনের শিক্ষকরা অংক ইংরেজি ক্লাস নিচ্ছে,তাই তারা এ বিষয়ে প্রশাসনকে দ্রুত পদপে নেয়ার দাবী জানান। এদিকে বিদ্যালয়ের কতিপয় শিক্ষার্থী বৃহস্পতিবার ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের পদ থেকে হারুন অর রশিদকে অপসারনের দাবী জানিয়ে বৃহস্পতিবার দেবিদ্বার উপজেলার রসুলপুর বাজারে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply