নাঙ্গলকোটে চোর হত্যার ঘটনা তিন লাখ টাকায় রফাদফা

জামাল উদ্দিন স্বপন:
কুমিল্লার নাঙ্গলকোট থানায় দায়েরকৃত একটি হত্যা মামলা তিন লাখ টাকায় রফাদফা করেছেন। সোমবার রাতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও নাঙ্গলকোট পৌরসভার মেয়র মো. সামছুদ্দিন কালুর বাড়িতে তাঁর মধ্যস্থতায় এই রফাদফা করা হয়। জানা যায়,গত শনিবার গভীর রাতে উপজেলার পেড়িয়া ইউনিয়নের মাধবপুর গ্রামে চুরির অভিযোগে একই গ্রামের মৃত তাজুল ইসলামের ছেলে মো. রবিউল হক (৩০) নামে এক যুবক পিটিয়ে হত্যা করা হয়। ওই গ্রামের ইউপি সদস্য মো. আবুল কালাম ও তাঁর ছেলে সাখাওয়াত হোসেনসহ অন্যান্যরা এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছেন। হত্যাকান্ডের অভিযোগ এনে নিহত যুবকের মা অহিদা বেগম পরদিন রোববার ইউপি সদস্য ও তাঁর ছেলেসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে নাঙ্গলকোট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ইউপি সদস্য মো. আবুল কালাম এ প্রতিনিধিকে মুঠোফোনে বলেন, মামলা দায়েরের পরদিন তাঁকে নাঙ্গলকোট পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামীলীগ নেতা মো. সামছুদ্দিন কালু তাঁর বাড়িতে ডেকে নেন এবং হত্যা মামলাটি নিষ্পত্তির প্রস্তাব দেন। মামলা রফাদফা করতে খরচাপাতি বাবদ ও থানা পুলিশকে এক লাখ এবং মামলার বাদিকে দুই লাখ টাকাসহ মোট তিন লাখ টাকা দিতে হবে। পৌরসভার মেয়র এই সিদ্ধান্ত দেন। সে অনুযায়ী পুলিশের এক লাখ টাকা মেয়রের কাছে দেওয়া হয়েছে। বাদির দুই লাখ টাকা পরিশোধের জন্য আগামী মঙ্গলবার (১৩সেপ্টম্বর) সময় বেঁধে দিয়েছেন মেয়র। নিহতের ভাই জসিম উদ্দিন জানান, তাঁর ভাইকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় গত সোমবার রাতে মেয়রের মধ্যস্থ’তায় তাঁর বাড়িতে বিবাদির তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। তার মধ্যে মামলা নিষ্পত্তির ব্যাপারে খরচাপাতি ও থানা পুলিশের জন্য এক লাখ টাকা রেখে আগামী মঙ্গলবার (১৩সেপ্টম্বর) তাদেরকে দুই লাখ টাকা দিবেন। মামলার বাদি নিহতের মা অহিদা বেগমও ঘটনা রফাদফার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নাঙ্গলকোট পৌরসভার মেয়র মো. সামছুদ্দিন কালু মুঠোফোনে জানান, নিহত রবিউল হক এলাকায় একজন চিহ্নিত চোর। তবে পরিবারটি অস্বচ্ছল। যেহেতু একটি দুর্ঘটনা ঘটে গেছে। তাই বাদি-বিবাদি এবং তাদের উভয় পক্ষের আত্মীয়-স্বজননের উপস্থিতি ও সমম্মতিতে ইউপি সদস্য মো. আবুল কালাম নিহতের পরিবারকে দুই লাখ টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। মামলা রফাদফা করতে থানা পুলিশকে এক লাখ টাকা দেওয়ার বিষয়টি তিনি এড়িয়ে যান।

নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রশান্ত পাল জানান, নিহত রবিউল হকের বিরুদ্ধে পূর্বে থানায় কোন মামলা বা অভিযোগ নেই। তবে সে এলাকায় একজন চিহ্নিত চোর হিসেবে স্বীকৃত।ওসি বলেন, তিন লাখ টাকায় হত্যা মামলা রফাদফা সম্পর্কে তাঁর জানা নেই। এ রকম কথা তিনিও শুনেছেন। তিনি জানান, থানায় নিয়মিত হত্যা মামলা রুজু হয়েছে এবং তদন্ত চলছে।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply