কুমিল্লায় পাগলের চল্লিশার নামে ১২ কোটি টাকার সম্পত্তি দখলের পায়তারা

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী,কুমিল্ল :
কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ময়নামতিতে একটি প্রভাবশালী গোষ্ঠী আদালতের নির্দেশ অমান্য করে জামশেদ (৮২) নামের এক পাগলের চল্লিশার আয়োজনের নামে তার রেখে যাওয়া প্রায় ১২ কোটি টাকা মূল্যের স¤পত্তি হাতিয়ে নেয়ার যাবতীয় প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে। আগামী ১০ সেপ্টেম্বর এই চল্লিশার দিন ধার্য করা হয়।

স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, জেলার বুড়িচং উপজেলার ময়নামতি ইউনয়নের সিন্দুরিয়া পাড়া গ্রামের মৃত জুলফিকার হায়দারের পুত্র জামশেদ যৌবনে মস্তিস্ক বিকৃতির কারনে পাগল হয়ে যায়। পিতা জুলফিকার হায়দার এসময় বিশাল সম্পত্তি রেখে মারা গেলে জামশেদের স¤পত্তি অরক্ষিত হয়ে পড়ে। এসময় সম্পত্তি দখলের জন্য নিকটাআতœীয়দের মাঝে প্রতিযোগীতা শুরু হলে বিষয়টি আদালতে গড়ায়। কুমিল্লার মাননীয় বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ আদালত ১৯৬২ সালে এক আদেশ বলে জামশেদকে পাগল বলে স্বীকৃতি দিয়ে তার নামে পিতা জুলফিকারের সাড়ে ৬’শ শতক ভূমি রেখে যাওয়া ভূমি দেখা শুনার দায়িত্ব দেয় প্রতিবেশী একই গ্রামের দুরসম্পর্কিয় আতœীয় আবুল বাশারের কাছে। আদালত পাগলের জমি বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা এবং তার সম্পত্তির আয়ের উপর পাগল জামশেদের ভরন পোষানের আদেশ দিলেও প্রথম থেকেই ওই চক্রটি ভূমি দখলের পায়তারা শুরু করে। জীবিতাবস্থায় আবুল বাশার তার নির্বাচনী ব্যয় মিটিয়েছেন পাগল জামশের কিছু সম্পত্তি বিক্রি করে। পরবর্তীতে আবুল বাশারের মৃত্যুর পর তার ৩ পুত্র আদালতের অনুমতি ছাড়াই পাগলের সম্পত্তি ভোগ দখলে করতে থাকে। এসময় তারাও কিছু সম্পত্তি বিক্রিও করে দেয়। গত ৪ আগষ্ট ২০১১ তারিখে বিনা চিকিৎসায় অসুস্থাবস্থায় পাগল জামশেদ আবুল বাশারের মেয়ে রিনা বেগমের সিন্দুরিয়া পাড়ার বাসায় মৃত্যু বরন করলে তার নামে থাকা সম্পত্তি দখলের প্রতিযোগীতা শুরু করে দেয় আবুল বাসারের ৩ পুত্র আখলাদ, আরিক, লালন ও চাচাতো ভাই জাহাঙ্গীর। সর্বশেষ দখল প্রক্রিয়া সম্পন্নের জন্য তারা মৃত জমশেদের চল্লিশার নামে বিশাল আয়োজন করে এবং আগামী ১০ সেপ্টেম্বর দিন তারিখ নিদির্ষ্ট করে তাদের পক্ষের লোকদের দাওয়াত দিচ্ছে। কথা হলো, আদালত দেখা শোনার দায়িত্বদিল আবুল বাশারকে। তিনি মারা গেলেন। আদালতে কোন হিসেব রেখে গেলেন না। এখন ছেলেরাও আদালতে আয় ব্যয়ের হিসাব দিলেন না। তাহলে মৃত জামশেদের জন্য থাকা আদালতের রায় অনুযায়ী সাড়ে ৬শ’ শতক জমির মালিক কে ? কেনইবা মৃত পাগলের নামে লাখ লাখ টাকা ব্যয় চল্লিশার বিশার আায়োজন ? চল্লিশার এই টাকার যোগনদাতার কে ? পাগলের সম্পত্তির বর্তমান বাজার মুল্যের ১২ কোটি টাকার মালিক কে ? কেয়ার টেকারের পক্ষীয়লোকজন কেন মৃত পাগলের চল্লিশার জন্য হাজার হাজার মানুষের খাবারের বিশাল আয়োজনের উদ্যোগ ?

চল্লিশার নামে এই বিশাল আয়োজন দেখে স্থানীয় এলাকাবাসীদের মনে নানা প্রশ্ন ঘুর পাক খাচ্ছে । এমনকি প্রভাবশালীদের ভয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অতঙ্কগ্রস্থ নিহতের নিকট আতœীয় ও প্রতিবেশীরা আরো বলেন, যার কোন উত্তরাধিকার নেই, তার উদ্দেশ্য খাওয়ার জন্য কেনই বা এত অর্থ অপচয় ?

বিষয়টির ব্যাপারে কথা বলার জন্য একাধিকবার তাদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজী হয়নি। এ অবস্থায় পাগলের সম্পত্তি বিক্রি করা সম্পত্তি পুনরুদ্ধার এবং চল্লিশার খরচ দেখিয়ে কমপক্ষে ১২ কোটি টাকার মুল্যের সম্পত্তি হাতিয়ে নেয়ার হাত থেকে রক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছেন এ পরিবারটি।

Check Also

বুড়িচংয়ের ময়নামতি রেজভিয়া দরবার শরীফের প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ মিছিল

বুড়িচং(কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ– কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ময়নামতি ইউনিয়নের শমেষপুর গ্রামে বুধবার রাতে ওয়াজ মাহফিলে মোল্লা নাজিম ...

Leave a Reply