লাকসামে কর্মকর্তা খুন, গ্রেপ্তারের পর ঘাতকের মৃত্যু

জামাল উদ্দিন স্বপন:

লাকসামে একটি মাল্টিপারপাসের কর্মকর্তা খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃত খুনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল রাতে লাকসাম সরকারী হাসপাতালে মারা গেছে। লাকসাম শহরে অবস্থিত তরুন মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি নামে একটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার হোল্ডার ও ব্যবস্থাপক কলেজ ছাত্র জসিম উদ্দিন (২৪) কে গতকাল মঙ্গলবার ঘাতক সাবেরুল ইসলাম ওরফে নবী কুপিয়ে হত্যা করে। নিহত জসিম উদ্দিন উপজেলার আজগরা ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের ইউনুছ মিয়ার ছেলে। তিনি লাকসাম নওয়াব ফয়েজুন্নেসা সরকারি কলেজে সম্মান শ্রেনীর ব্যবস্থাপনা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, নিহত জসিম উদ্দিন পড়ালেখার পাশাপাশি লাকসাম পৌরশহরে রাজাপুর সুপার মার্কেটের চতুর্থ তলায় অবস্থিত তরুন মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি নামে একটি প্রতিষ্ঠানে শেয়ার হোল্ডার ও ব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্বপালন করতেন। ওই প্রতিষ্ঠানের পিয়ন সাবেরুল ইসলাম ওরফে নবী মঙ্গলবার দুপুরে অফিস কক্ষে পরিকল্পিতভাবে জসিমকে কুপিয়ে হত্যা করে। ঘাতক নবী লাকসাম পৌর এলাকার উত্তরকুল গ্রামের জাফর আহমদের ছেলে এবং তরুন মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রফিকুল ইসলাম শান্ত’র নিকট আত্মীয়।

পুলিশ জানায়, ওইদিন দুপুর ২.৩০ মিনিটের সময় ওই কর্মকর্তা প্রতিষ্ঠানের কার্যালয়ে যোহুরের নামাজ পড়তে ছিল। পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে ওই প্রতিষ্ঠানের পিয়ন সাবেরুল ইসলাম ওরফে নবী আকস্মিক ভাবে ধারালো দা দিয়ে মাথায়,হাতে, পিঠে, ঘাড়ে এবং শরীরে বিভিন্নস্থানে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে তাঁকে রক্তাক্ত জখম করে। এসময় জসিম উদ্দিন জ্ঞান হারিয়ে ফেললে ওই প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ অন্যান্য লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে নিয়ে যায়।পরে আশংকাজনক অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

একটি সূত্র জানায়, ঘাতক পিয়ন সাবেরুল ইসলাম ওরফে নবী ওই প্রতিষ্ঠানের তিনজন কর্মকর্তার স্বাক্ষর জাল করে চেক জালিয়াতির মাধ্যমে ২০হাজার টাকা আত্মসাত করে। এ ঘটনা ধরা পড়লে গত রোববার সন্ধ্যায় ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাবৃন্দের সমন্বয়ে একটি সমঝোতা শালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এসময় অভিযুক্ত পিয়ন তাঁর মা নূর জাহান বেগম এবং এক আত্মীয় উপস্থিত ছিলেন।

শালিশ বৈঠকে পিয়ন সাবেরুল ইসলাম ওরফে নবী সকলের উপস্থিতিতে কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর জাল করে চেক জালিয়াতির মাধ্যমে ২০ হাজার টাকা আত্মসাতের কথা স্বীকার করেন। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী আত্মসাতকারী ২০ হাজার টাকা ফেরত দেওয়ার অঙ্গিকার করে শালিশ বৈঠকে। ওই ঘটনার জের ধরেই পিয়ন সাবেরুল ইসলাম ওরফে নবী ব্যবস্থাপক জসিম উদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।

লাকসাম থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবুল কাশেম চৌধুরূী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সন্ধ্যায় ঘাতক পিয়ন সাবেরুল ইসলাম ওরফে নবীকে গ্রেপ্তারের জন্য ওইভবনে অভিযান চালালে ভবনের চারতলার ছাদ থেকে পাশের ৩য়তলা ভবনে থেকে লাফ দিয়ে পড়লে ঘাতক মারাত্মক ভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে গুরুতর আহত হয়। আহত ঘাতককে চিকিৎসার জন্য লাকসাম সরকারি হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসারত অবস্থায় রাত ২টার দিকে ঘাতক সাবেরুল ইসলাম নবীর মৃত্যু হয়।

ঘাতক নবীর মৃত্যু নিশ্চিত করে লাকসাম সরকারী হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আবুল হাসেম আনছারী জানান, আঘাত জর্নিত কারনে তার মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের পিতা ইউনুছ মিয়া গতকাল রাতে ও প্রতিষ্ঠানের পিয়ন সাবেরুল ইসলাম ওরফে নবী. ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল ইসলাম শান্ত ও ক্যাশিয়ার সালেহ আহমদ সোহাগকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। পুলিশ ৩ আসামীকে গ্রেপ্তার করলেও মামলা দায়েরের পর চিকিংসাধীন অবস্থায় ঘাতক নবীর মৃত্যু হয়।





Check Also

নবাব ফয়জুন্নেছা চৌধুরানীর ১১২তম মৃত্যু বার্ষিকী পালন

স্টাফ রিপোর্টার :– নানা কর্মসূচী পালনের মধ্যদিয়ে কুমিল্লার লাকসামে নারী জাগরণের অগ্রদূত নবাব ফয়জুন্নেছা চৌধুরানীর ...

Leave a Reply