চৌদ্দগ্রামে ফসলি জমি কেটে মহাসড়কের ৪ লেনের কাজ

চৌদ্দগ্রাম সংবাদদাতা :

চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ছুপুয়া নামক স্থানে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ৪ লেনে উন্নয়ন কাজে ফসলি জমির মাটি কেটে ভরাটের অভিযোগ উঠেছে। ছুপুয়া মৌজার ৬ গ্রামের বাসিন্দারা বৃহস্পতিবার এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

এলাকাবাসীর দাবি এতে মহাসড়ক সংলগ্ন এক কিলোমিটার এলাকার শতাধিক পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হবে। এতে প্রায় ৩০০ একর ফসলি জমি নষ্ট হয়ে যাবে।
কালিকাপুর গ্রামের হাজী সামছুল হক জানান, তার ২ একর জমি রয়েছে। জমিতে আমনের চারা লাগানো ছিল।

মাটি কাটার ফলে জমি ও ফসল সবই গেছে। ক্ষতিগ্রস্থ মোঃ আনোয়ারুল করিম মজুমদার, আবদুল মালেক, আবদুল লতিফ জানান, এতদিন এই জমিতে তারা আবাদ করে আসছিলেন। মাটি কাটায় বাঁধা দিলে কাজ বন্ধ থাকে।

আবার রাতে গ্রামবাসী চলে গেলে কাজ চলে। ছুপুয়া মৌজায় কালিকাপুর ইউনিয়নের ৫ গ্রাম কালিকাপুর, দুর্গাপুর, বর্ধনবাড়ী, চাঁনপুর, বাবুচি ও সংলগ্ন ইউনিয়নের নোয়াপুর গ্রাম রয়েছে। মহাসড়কের পাশের জমির মালিক এসব গ্রামের বাসিন্দারা।

চায়না প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো কর্পোরেশন লিমিটেডের ফোরম্যান চাঁন মিয়া জানান, মহাসড়ক সংলগ্ন ১০০ ফুটের মধ্যে মাটি কাটার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
স্থানীয় কালিকাপুর ইউয়িনের চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন মজুমদার জানান, ব্রিটিশ আমলে সড়ক ও জনপথ এই জমিগুলো হুকুম দখল করে।

পরে মহাসড়কের গতিপথ পরিবর্তন হলে জমির মালিকরা নিজেদের নামে বিএস খতিয়ান করায়। তিনি বলেন, চায়না প্রতিষ্ঠান স্থানীয় ঠিকাদার সিন্ডিকেটের কাছে মাটি ভরাটের কাজ দেয়।

ওই সিন্ডিকেট ব্রিটিশ আমলের হুকুম দখলের সুযোগ নিয়ে ফসলি জমি কেটে একাকার করছে। এলাকার অনেক গরিব কৃষক তার সামান্য ফসলি জমির উপর নির্ভরশীল। এতে তারা সর্বশান্ত হয়ে পড়বে।

৪ লেন প্রকল্পের কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম অঞ্চলের নির্বাহী প্রকৌশলী-২ মাসুম সারোয়ার জানান, সড়ক ও জনপথের অব্যবহৃত জমির এক তৃতীয়াংশ কেটে উন্নয়ন কাজ চলেছে। ৩০০ ফুটের মধ্যে আমরা ১০০ ফুট কাটার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এ বিষয়ে সংশিষ্ট মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ আমাদের কাছে রয়েছে।





Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply