নাঙ্গলকোটে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে সর্বস্ব লুট

জামাল উদ্দিন স্বপন:
কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে কাজের মেয়ে সেজে এক প্রতারক খাবারের সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে পরিবারের সবাইকে অচেতন করে স্বর্ণালংকার, নগদ টাকা, আসবাবপত্র লুট করার ঘটনা ঘটেছে। ওই প্রতারক এ সময় ৭ ভরি স্বর্ণালংকার, নগদ ২০ হাজার টাকা, বিপুল পরিমাণ কাপড়-চোপড় নিয়ে যায়। যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ৪ লক্ষাধিক টাকা বলে জানা যায়।
সরেজমিনে জানা যায়, ্উপজেলার মক্রবপুর ইউনিয়নের শাহেদাপুর গ্রামের ডিভাইন গ্র“পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডঃ দেলোয়ার হোসেনের বাড়িতে তার ভগ্নিপতি সৈয়দ আহম্মদ অবস্থান করছিলেন। গত ১ সপ্তাহ পূর্বে চট্রগ্রামে অবস্থানরত তার ভাগ্নির মাধ্যমে কাজের মেয়ে জহুরা বেগমকে (৩৫) তার বাড়িতে নিয়ে আসেন। সে ইতোমধ্যে কাজকর্মের মাধ্যমে পরিবারের সবার মন জয় করে নেন। গত সোমবার ভোর রাতে প্রতারক কাজের মেয়ে জহুরা সেহেরির খাওয়ার সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য মেশানো খাদ্য বাড়িতে অবস্থানরত দেলোয়ার হোসেনের বোন জরিনা বেগম (৫০), আত্মীয় মাসুমা আক্তার (৬০), ভাগ্নি ফাতেমা আক্তার (১৫), ভাগিনা রাশেদ আহম্মকে (২০) খাওয়ালে সবাই অচেতন হয়ে পড়ে। এ সুযোগে জহুরা বেগম দেলোয়ার হোসেনের বোন জরিনা বেগম, ভাগ্নি ফাতেমা আক্তারের সাথে থাকা স্বর্ণালংকার, আলামারীর তালা ভেঙ্গে স্বর্ণালংকার, নগদ টাকা, বিপুল পরিমাণ কাপড়-চোপড় নিয়ে যায়। দুপুরে দেলোয়ার হোসেনের ভগ্নিপতি সৈয়দ আহম্মদ মেয়ের বাড়ি থেকে বাড়িতে এসে সবাইকে অচেতন অবস্থায় দেখতে পান। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। ধারণা করা হচ্ছে, প্রতারক জহুরা তার প্রতারক চক্রের সঙ্গীয় লোকজনের মাধ্যমে গাড়ি নিয়ে এসে মালামাল নিয়ে নির্বিঘেœ পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে।





Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply