সরাইল আ’লীগ না পাওয়ার বেদনায় হতাশ : নেতাদের স্বেচ্ছায় পদত্যাগের ঘোষণা

লিটন চৌধুরী.ব্রাহ্মণবাড়িয়াঃ-
না পাওয়ার বেদনায় হতাশ হয়ে পড়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল আওয়ামী লীগ। ক্ষোভ দুঃখ ও বঞ্চনার গ্লানি নিয়ে অধিকাংশ নেতা পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া- ২ আসনের মহাজোটের এমপি জাপা’র কেন্দ্রিয় ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা সরাইল আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন করছেন না। বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ থেকে তাদের বঞ্চিত রেখেছেন। তিনি নিজ দলের জাপা’র নেতা-কর্মীদের সুবিধা দিয়ে যাচ্ছেন। আ’লীগ নেতাদের সঙ্গে বিমাতা সুলভ আচরণ করছেন। সরাইলে জাতীয় পার্টিকে চাঙ্গা করতে কৌশলে অনেক নেতা-কর্মীকে দল বিমূখ করছেন। গত শনিবার উপজেলা গণমিলনায়তনে অনুষ্ঠিত দিনব্যাপী বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগের শতাধিক সুবিধা বঞ্চিত নেতা-কর্মী এসব অভিযোগ আনেন।

বর্ধিত সভায় তৃণমূল নেতা-কর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আওয়ামী লীগের সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকার পরও জাপার এমপি তাদের পাশ কেটে যাচ্ছেন। কোনো সুপারিশ বা কাজ নিয়ে গেলে এমপি বিষয়টি গুরুত্ব দিতে চান না। অফিস আদালতে নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন করা হয় না। প্রশাসন নেতাদের কথা শোনেন না। দল ক্ষমতায় থাকলেও সবকিছু থেকে তারা বঞ্চিত। কালীকচ্ছ ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি লস্কর হারুন অর রশিদ বলেন, আওয়ামী লীগের নৌকায় পাড়ি দিয়ে তিনি এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচনে তৃণমূল নেতা-কর্মীরা সক্রিয়ভাবে কাজ করেছেন। আমাদের ভোটে নির্বাচিত এমপি আজ আমাদের মূল্যায়ন করছেন না। তিনি নিজ দলের নেতা-কর্মীদের সকল সুবিধা দিয়ে যাচ্ছেন।

শাহবাজপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল হুদা চৌধুরী বাদল বলেন, মহাজোটের এমপি শাহবাজপুর এলাকার সকল উন্নয়ন কর্মকান্ডে শুধু নিজ দলের লোকদেরকে সম্পৃক্ত রাখেন। আমাদের সাথে কোন বিষয়েই কথা বলেন না। এর জন্য আমাদের সাংগঠনিক দুর্বলতায়ই দায়ী।

অরুয়াইল আ’লীগের সভাপতি মফিজ মিয়া বলেন, এমপি অন্য দলের। জলমহালের ৮০ হাজার টাকায় পুকুর ইজারা পেতে দিতে হয়েছে ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা। বিষয়টি হালিম ভাই জানেন। এলাকায় নিজেকে সভাপতি পরিচয় দিতে লজ্জা লাগে। উপজেলায় নতুন কমিটি না হলে পদত্যাগ করব।

চুন্টা ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি সোলায়মান কবির ক্ষোভে দুঃখে নিজ দলের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে বলেন, উপজেলার নেতারা নিজের ইচ্ছা ও চিন্তা দিয়ে স্বার্থের জন্য যাচ্ছে তাই করে যাচ্ছেন। আমাদের কোনো মূল্য তাদের কাছে নেই। যুদ্ধের সময় সৈনিকের দরকার হলে আমাদের খোঁজেন। এভাবে একটা দল চলে না। উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক হাজী মাহফুজ আলী দলের তৃণমূল নেতা-কর্মীদের ক্ষোভের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে বলেন, জাতীয় সংসদ এবং উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তারা মহাজোটের প্রার্থীর পক্ষে সক্রিয়ভাবে কাজ করে গেছেন। আজ তারা বিভিন্ন কাজে বঞ্চিত হচ্ছে। তাদের যথাযথ মূল্যায়ন করা না হলে আমরাও পদত্যাগ করব।

উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এ কে এম ইকবাল আজাদ বলেন, নির্বাচনের পূর্ব জনসভায় বর্তমান এমপি বলেছিলেন, আওয়ামী লীগ হচ্ছে জাহাজ। আর আমার জাতীয় পার্টি হচ্ছে ওই জাহাজে বাঁধা ছোট্ট একটি ডিঙ্গি (নৌকা)। জাহাজ ডিঙ্গিকে টেনে যেদিকে নিবে, সেই দিকেই যাবে। কিন্তু এখন দেখছি ওই ডিঙ্গি টেনে নিয়ে যাচ্ছে জাহাজকে। এর জন্য দায়ী উপজেলা আ’লীগের দুর্বল সাংগঠনিক কার্যক্রম। সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুর রাশেদ বলেন, উপজেলা আ’লীগের ৩ বছর মেয়াদের ও যুবলীগের আহবায়ক কমিটি চলছে ৭ বছর ধরে। দীর্ঘ ১২ বছর যাবত পূর্ণাঙ্গ কমিটি শূন্য উপজেলা ছাত্রলীগ।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের সংসদ সদস্য জাপা’র কেন্দ্রিয় নেতা অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা বলেন, আ’লীগ বড় দল। তাদের রয়েছে আভ্যন্তরীণ কোন্দল। সরকারি বরাদ্দের বার আনাই তাদেরকে দেওয়া হয়। তাদের দলের নেতাদের অনুরোধে ও আলোচনা সাপেক্ষেই আমি বরাদ্দ দিয়ে থাকি। আ’লীগকে বেশী দিয়ে ফেলি। এজন্য জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীরাও আমার ওপর ক্ষুব্ধ।





Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply