লম্পট অভির বিচারের দাবিতে উত্তাল সরাইল :মানববন্ধন-প্রতিবাদসভা

লিটন চৌধুরী.ব্রাহ্মণবাড়িয়াঃ-

লম্পট নারী লিপ্সু, ধর্ষক অভির বিচারের দাবিতে এখন উত্তাল সমগ্র সরাইল। থানায় হয়েছে মামলা। ছাত্রীদের মানববন্ধন, প্রতিবাদ সভা সমাবেশে চলছে অভির গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবী। রাস্তায় নেমে এসেছে কর্মকর্তা-কর্মচারি,শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী,সুশীল সমাজ,জনপ্রতিনিধি সহ সকল শ্রেণী পেশার মানুষ। দেওয়া হচ্ছে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম। দ্রুত গ্রেফতার করতে না পারলে দেয়া হচ্চে থানা ঘেরাও করার ঘোষনা। লোমহর্ষক এ ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে সন্দেহ সংশয় সৃষ্টি হয়েছে সচেতন মহলে।

বুধবার সকালে সরাইল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহস্রাধিক ছাত্রী নেমে পড়ে রাস্তায়। সংঙ্গে ছিল শিক্ষক-শিক্ষিকা, ব্যবস্থাপনা পরিষদও অভিভাবকবৃন্দ। তাদের সঙ্গে যোগ দেয় সর্বস্তরের লোকজন। ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে লম্পট ধর্ষক অভির বিরুদ্ধে দেয় নানা শোগান। অষ্টম শ্রেণীর ওই ছাত্রীকে বেকমেইল করে নগ্ন ভিডিও চিত্র মোবাইল ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ায় অভির প্রতি জানাচ্ছে ধিক্কার। প্রেমের ফাঁদে ফেলে কৌশলে স্কুলছাত্রীটির সর্বস্ব ছিনিয়ে নিয়ে এখন লাপাত্তা লম্পট অভি। প্রিয় সহপাঠীর নির্মম নির্যাতনের বিষয়টি বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা। তারা আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে বখাটে ধর্ষক অভিকে গ্রেফতার করতে না পারলে থানা ঘেরাও কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছে। মিছিল শেষে ছাত্রীরা উপজেলা চত্বরে মানববন্ধন করে। বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী ইসরাত জাহান রিতা, দশম শ্রেণীর ছাত্রী ফারহানা আক্তার ক্ষোভের সাথে জানায়, এমন জঘন্য ঘটনা ঘটিয়ে বখাটে অভি এখনও গ্রেফতার এড়িয়ে বেড়াচ্ছে। আমরা তার ফাঁসি চায়। রাস্তায় নিরাপদে চলতে চায়। আর কোন অভি যেন আমাদের ক্ষতি না করতে পারে সেজন্য প্রশাসনের সহযোগিতা চায়। মানব বন্ধন শেষে উপজেলা চত্বরে বালিকা বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা পরিষদের সভাপতি রফিক উদ্দিন ঠাকুরের সভাপতিত্বে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। বক্তব্য রাখেন- ব্যবস্থাপনা পরিষদের সদস্য জহির উদ্দিন আহমেদ, সাংবাদিক বদর উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদা পারভীন, প্রধান শিক্ষক মো. আইয়ূব খান, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মো. আব্বাছ উদ্দিন ও শিক্ষক আজহারুল ইসলাম ঠাকুর। বক্তারা বলেন, দ্রুত বখাটে ধর্ষক অভিকে গ্রেফতার করে বিচারের কাঠ গড়ায় দাঁড় করাতে হবে। এর ব্যতিক্রম ঘটলে বৃহত্তর আন্দোলনের কর্মসূচি দেওয়া হবে। বক্তারা টেম্পু ষ্ট্যান্ড, নিজ সরাইল ব্রীজ, বড় দেওয়ান পাড়ার গলি ও হাসপাতাল মোড়ে বখাটেদের উৎপাত বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রশাসনের সহযোগিতা চান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হেলাল উদ্দিন ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি এ ঘটনায় তোমাদের মতো অত্যন্ত দুঃখিত ও ব্যথিত। কথা দিলাম বখাটে অভি যেখানে থাকুক তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে। পুলিশের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা যেভাবে এগোচ্ছেন এটা শুভনীয় নয়। ঘটনাটি শুধু সরাইলের নয়, দেশের জন্য লজ্জাজনক। ওদিকে মেয়েটির মা বাদী হয়ে গত মঙ্গলবার রাতে শীলতাহানি ঘটানোর অভিযোগে অভির বিরুদ্ধে সরাইল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের (১০) ধারায় মামলা দায়ের করেছেন।

প্রসঙ্গত, সরাইল উপজেলার সরাইল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রীর সঙ্গে এক যুবকের আপত্তিকর ছবি এখন সবার হাতের নাগালে । মোবাইল ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে এসব ছবি ছড়িয়ে দিয়ে ’কথিত প্রেমিক’ সরাইল সদর ইউনিয়নের ছোট দেওয়ান পাড়ায় বসবাসরত আব্দুল খালেকের ছেলে অভি (২২) এখন লাপাত্তা।

ওই স্কুল ছাত্রীর পক্ষ থেকে বিয়ের প্রস্তাব দেওয়া হলে অভি তা প্রত্যাখান করে তার সংঙ্গে তোলা আপত্তিকর ছবি মোবাইল ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে ছেড়ে দেয়। এর আগে প্রেমের ফাঁদে ফেলে আপত্তিকর ছবি তুলে তা ছাড়ার ভয় দেখিয়ে মেয়েটিকে একাধিকবার ধর্ষণও করে অভি।




Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply