চান্দিনায় একজন মুক্তিযোদ্ধা চিকিৎসকের আকুতি

মাসুমুর রহমান মাসুদ, স্টাফ রিপোর্টার :
স্বাধীনতার ৪০ বছর অতিবাহিত হলেও স্বাধীনতার স্বাদ পেলাম না। জীবনবাজী রেখে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেও কোন সুযোগ সুবিধা প্রত্যক্ষভাবে ভোগ করিনি। এমন বেদনা প্রকাশ করলেন চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মুক্তিযোদ্ধা ডা. মো. ফজলুর রহমান। মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ের সময় তিনি ওই আকুতি জানান। তিনি জানান, সম্প্রতি সিভিল সার্জন পদে পদোন্নতির জন্য অনেক কনিষ্ঠ কর্মকর্তাদের সাক্ষাৎকার এর জন্য পত্র দেয়া হলেও তিনি সাক্ষাৎকারের চিঠি পাননি। কারণ তার চাকরিকাল আর মাত্র ছয় মাস। তার প্রশ্ন, তাহলে সময়মত কেন পদোন্নতি প্রদান করা হলোনা ? কেন আমাদেরকে বঞ্চিত করা হলো ? পাঁচ বছর পূর্বে ওই নিয়ম হলে আমরা পদোন্নতি পেতে পারতাম। তার আরও প্রশ্ন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার যোগ্যতা থাকা স্বত্তেও কেন পদোন্নতি পাচ্ছিনা এর প্রতিকার কে করবে ? দেশের জন্য ভালবাসার কি মূল্যায়ন আমরা পেলাম ?

বি.এল.এফ মুক্তিযোদ্ধা সদস্য হয়েও ’৭৫ পরবর্তী সময়ে পরিচয় দিতে পারেননি ওই মুক্তিযোদ্ধা। সতীর্থ কিছু কিছু বি.এল.এফ সদস্যের নাম মুক্তিবার্তায় লিপিবদ্ধ হলেও তার নাম মুক্তিবার্তায় নেই। পরবর্তীতে চাকরি গ্রহণের পর বর্তমান সরকারের সময় কাগজপত্র দাখিল করেও মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সনদ পত্র পাননি তিনি।

তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, পত্র-পত্রিকায় দেখেছি অনেক উচ্চপদস্থ কর্মকতৃাও ভুয়া সনদপত্র গ্রহণ করেছেন। চাকরি জীবনে ২য় বিশেষ বিসিএস (স্বাস্থ্য) পরীক্ষায় মেধায় উত্তীর্ণ হয়েও অদ্যাবধি কোন পদমর্যাদা পাইনি। ১৯৮১ সালে চাকরিতে যোগদান করেও অদ্যাবধি উপজেলা পর্যায় হতে উর্দ্ধমুখি হতে পারিনি।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply