প্রতিবেদকের বক্তব্য এবং জনগণের কিছুকথা

বিশেষ প্রতিনিধি:

ইউএনও রেহান উদ্দিন
কুমিল্লাওয়েবে প্রকাশিত ”নাঙ্গলকোটের ইউএনও রেহান উদ্দিনকে চিনব কি দেখে” শীর্ষক প্রতিবেদনের প্রতিবাদে ইউএনও রেহান উদ্দিনের প্রতিবাদের জবাবে কুমিল্লাওয়েব তার পূর্ণ বক্তব্য তার নিজস্ব প্রতিবেদকের মাধ্যমে প্রকাশ করার ঘোষনার প্রেক্ষিতে এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হল।

নাঙ্গলকোটের নির্বাহী কর্মকর্তা রেহান উদ্দিনের বিরুদ্ধে প্রকাশিত, প্রচারিত সংবাদ গুলো তার নিত্য দিনের কৃত কর্মের ক্ষুদ্র খতিয়ান মাত্র। কোন সাংবাদিক- সম্পাদক বা প্রতিবেদকের একক বক্তব্য নয়। বরং জনগণের দীর্ঘ দিনের ক্ষত গাওয়ার প্রতিবিম্ব রূপ কিছু লিখিত ও মৌখিক অভিযোগের চিত্র মাত্র।

এখানে সব দুর্নীতির কথা বলা হয়েছে, তার কোনটাই অতিরিক্ত বা অমূলক নয়। বরং সবকটি দুর্নীতি সঠিক ও বস্তুনিষ্ঠ। সরকারের যথার্থ কতৃপক্ষ সুষ্ঠু তদন্ত করলে এবং গোয়েন্দা সি আইডি’র তদন্তে সব প্রস্ফুটিত হবে বলে সর্ব জনের জোরালো মন্তব্য।

এখানে জনগণের মনের আরো কিছু কথা বলা হচ্ছে- এক কালের অবহেলিত নাঙ্গলকোট বাসীর ভাগ্যাকাশে ডা: কামরুজ্জুমান, মরহুম জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া এবং আবদুল গফুর ভূঁইয়া তিনটি নক্ষত্র বিভিন্ন সময়ে রাজনীতির পুরুধা হিসেবে আর্বিভূত হয়ে নাঙ্গলকোটের জনগণের খেদমতে আত্ম নিয়োগ করেছেন। মধ্য জনের ইন্তেকালের পর তার পদে এমপি হয়ে বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ আ হ ম মোস্তফা কামাল এবং উপজেলা চেয়ারম্যান হয়ে আলহাজ্ব শাহ্জাহান মজুমদার জনগণের সেবায় দিন রাত চিন্তা করছেন। নাঙ্গলকোটের সাবেক ২ এমপি ডা: কামরুজ্জামান সাহেব ও গফুর ভূঁইয়া ও স্ব স্ব অবস্থান থেকে এখনো নাঙ্গলকোট বাসীর সেবা ব্রতে রাজনৈতির মধ্যে আছেন। তাঁরাও সাবেক জনপ্রতিনিধি। আর সরকারী কর্মকর্তাদের মধ্যে নির্বাহী হচ্ছেন ক্ষমতার শীর্ষ পুরুষ। জন কল্যাণে সকলের সমন্বিত প্রচেষ্ঠার উপজেলার সার্বিক উন্নয়ন সাধিত হবে এটাই নিশ্চিত। কিন্তু এ উপজেলা বাসীর দুর্ভাগ্য যে, হাতে গোনা গুটি কয়েক নির্বাাহী ছাড়া নাঙ্গলকোট বাসীর ভাগ্যে পর পর সৎ আদর্শ কর্মকর্তার বিপরীত কর্মকর্তার আগমনী ঘটেছে। এদের মধ্যে বর্তমান নির্বাহী কর্মকর্তার রেহান উদ্দিন প্রথম থেকে শীর্ষে অবস্থান করছেন বলে সর্ব শ্রেণীর মানুষের মন্তব্যে জানা গেছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগদানের পর পরই তার ব্যাপারে মানুষ বিভিন্ন মন্তব্য করেছে, রেহান উদ্দিন ইন মাকাল ফ্রুট ( তিক্ত কেন্দা ফল- যার উপর লাল চক চকে, ভিতরে কটু গন্ধ- চরম তিতা)। তাকে দেখে সাধারণ মানুষ প্রথমে নেককার বান্দা মনে করলে ও পরে সকলে ই মন্তব্য করেছেন, নির্বাহী রেহান উদ্দিন নাঙ্গলকোটের জনগণের জন্য ‘সাদা তিলের’ কাজ করবেন। তাদের মন্তব্য শেষ পর্যন্ত ষোল কলায় পূর্ণ হয়। আসলে সাধারণ মানুষের ভবিষ্যৎ দেখলো নাঙ্গলকোটে তাদের নির্বাহী ও রেহান উদ্দিনের মধ্যে। তিনি তার আগমনের অব্যবহিত পর নানা অনিয়ম-দুর্নীতি করে অর্থ ধান্ধায় মনোনিবেশ করেন।

নির্বাহী রেহান উদ্দিনের মনে অর্থ লিপসার ‘জীবানু’ কিলবিল করে বলেই তিনি তার পকেট ভারী করতে জনগণের উন্নয়নের পরিবর্তে আগে নিজের উন্নয়নে ব্রতী হন যা শত শত মানুষের মন্তব্যে জানা গেছে। আসলে নাঙ্গলকোটের জন মানুষের মাঝে রেহান উদ্দিন ‘জগদ্দল পাথর’ হিসেবে চেপে আছেন বলে সারা উপজেলার দীর্ঘ দিন থেকে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল। নির্বাহী রেহান উদ্দিন নিজে ও জানেন- তাকে নিয়ে সর্ব মহলে সর্বদা সমালোচনার ঝড় চলছে। বিশেষ করে ক্ষমতাসীন আ’লীগের সব শ্রেণীর নেতা-কর্মীরা ও তার কর্মকান্ডে চরম ক্ষুদ্ধ। এ মর্মে উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান মজুমদারও অনেক সভা-সমাবেশ এবং পৃথক ভাবেও নির্বাহী কে সর্তক করে হেদায়াতের চেষ্টা করেন। এম পি কামালের বাড়িতেও আ‘লীগের এক বৈঠকে উক্ত নির্বাহীর দুর্নীতির অনেক আলোচনা হয়। অনেকে তাদের মক্তব্য রেহান উদ্দিন কে এ উপজেলা থেকে সরাতে পরামর্শ রাখেন। তবে তার দুর্নীতির কঠোর সমালোচনা করে নাঙ্গলকোটের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলী হোসেন চৌধুরী জব্বর কথা বলেছেন। তিনি নির্বাহী রেহান উদ্দিনের শত দুর্নীতির খবর সম্পর্কে আ’লীগ সহ সর্ব সাধারণ লোক থেকে প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত এবং অভিযোগের কথা জেনে এমপি লোটাস কামালের কাছে নালিশ দিয়ে বলেন, নির্বাহী রেহান উদ্দিন আর কিছু দিন নাঙ্গলকোট থাকলে তিনি আমার প্রিয় নাঙ্গলকোট কে রেহান (বন্ধক) দিয়ে ছাড়বেন।

নির্বাহী বিগত দিনে কতো শত দুর্নীতি করেছেন, তা হাজার হাজার ভুক্তভোগী মানুষের জানা। তিনি নিজেও সব জানেন। কেননা ‘ঘরের মালিক ঘরের বিষয়ে সম্যক জ্ঞাত’। এখন তিনি তার দুর্নীতির সংবাদকে অস্বীকৃতি জানান এবং প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ (!) ও জানান। বিগত দিনে তার কত শত শত অপরাধের মধ্যে স্বল্প সংখ্যক অপরাধ দুর্নীতির খতিয়ান ই সবুজপত্র, নির্ভীক সংবাদ, সূর্যোদয় ও কুমিল্লা ওয়েভে প্রকাশ পেয়েছে। এ সামান্য অভিযোগ গুলো যদি সরকারের কোন সৎ ও নীতি বান তদন্ত দল খতিয়ে দেখেন, তখন ঐ গুলোর অক্ষরে অক্ষরে সত্যতা তো পাওয়া যাবেই বরং আরো নিখুত তালাশ করলে বিশেষ করে সি আই বি গোয়েন্দা দলের মাধ্যমে তত্ত্ব তালাশ করলে তার আরো অনেক অপরাধের খতিয়ান বেরিয়ে পড়বে যা কিনা ‘কেঁচো খুড়তে সাপ’ বেরিয়ে পড়ার কাহিনীকে হার মানাবে। এমনি মন্তব্য করেছেন অনেক শিক্ষিত সমাজে।

এদিকে নির্বাহী রেহান উদ্দিন তার বিরুদ্ধে সবুজপত্র….. বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত দুর্নীতি গুলোকে ২ ভাগে (৪+৩) ৭টি শব্দে উড়িয়ে দিতে একটি প্রতিবাদও পাঠিয়েছেন। তিনি তার বিরুদ্ধে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ লিপিতে লিখেছেন, সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন, এবং উদ্দেশ্য প্রণোদিত। একই সাথে নিজেকে পাক-সাফ, পুত-পবিত্র এবং তুলশী ধোয়া হিসেবে জাহের করতে গিয়ে তার ব্যাপারে ৩টি শব্দ চয়ন করেছেন সততা, আদর্শ ও নিষ্ঠা’ বলে।

ইতো পূর্বে তার ব্যাপারে মানুষের জানা শুনা এবং পত্রিকায় প্রকাশিত অভিযোগ গুলো পাঠ করে মানুষ খুবই আশান্বিত হয়েছেন। অন্যদিকে তার প্রেরিত প্রতিবাদ লিপি পড়ে অনেক পাঠক ও ভুক্তভোগী চরম ক্ষুদ্ধ হয়েছে। তারা এটা কে ‘চুরিতো চুরি ফের সীনা জুরি, শাক দিয়ে দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা ইত্যাদি বলে মন্তব্য করেছে।

তবে তিনি শত অনুরোধ করেও নিজেকে মাছুম, নিরপরাধ ও ফিরিশতা তুল্য একনিষ্ট মানুষ দাবি করলে ও তার ব্যাপারে জর্জরিত জনগোষ্ঠি এবং নাঙ্গলকোটের সচেতন জনতা বিশেষ করে উন্নয়ন কামী জনতার মনে তার প্রতি আস্তার ধস নেমেছে। তবে কথা হচ্ছে দুর্নীতি পরায়ন নির্বাহী নাঙ্গলকোটে যোগদানের প্রথম থেকে অভিসাপ হিসেবে আর্বিভুত হন বলে জন রব উঠেছে। সর্বশ্রেণীর মানুষ মনে করে রেহান ( বন্ধকী) নির্বাহী যতই নাঙ্গলকোট থাকবেন ততই নাঙ্গলকোট বাসীর ক্ষতি বৃদ্ধি পাবে। আর ক্ষমতাসীন পার্টির জন্য দ্বিগুন ক্ষতি হবে।

তাই নাঙ্গলকোট বাসীর ক্ষতির মাত্রা আর না বাড়াতে এবং সরকারের ডিজিটাল দেশ গড়া ‘গোপন প্রতিবন্ধক’ নির্বাহী রেহান উদ্দিন কে দ্রুত সরানো আবশ্যক বলে রাজনৈতিক সচেতন ও নাঙ্গলকোটের উন্নয়ন কামী জনতার জোর দাবি। এদিকে আশু নজর দিতে তারা নাঙ্গলকোটের ৫ লক্ষ জনতার নেতা এমপি লোটাস কামাল সাহেব ও তাদের কাছের মানুষ, তাদের নিত্য দিনের সুখ-দুঃখের সাথী এবং উন্নয়নের কান্ডারী, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহজাহান মজুমদার সহ সরকারের জন প্রশাসন মন্ত্রনালয়ের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply