প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদে একটু মন্তব্য

বিশেষ প্রতিনিধি:

গত ৪ জুলাই সোমবার। লাকসাম বাজারে হঠাৎ নজরে পড়লো ৪ কালারের একটি পত্রিক্ াপত্রিকা টি পড়তে গিয়েই নিচে বাঁয়ে ৪ শব্দের রঙ্গিন কালারে সাদা ৪টি শব্দ “প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ” ১টি শিরোনাম। ৪ প্যারার ২৭ লাইন বিশিষ্ট লেখাটি পড়লাম। প্রতিবাদকাররি নাম ঠিকানা ও পড়লাম। এতে প্রতিবাদকারী বেশ কিছু সা”্চা কালাম লিখেছেন। তা পাঠ করে উপলিব্ধি করলাম, প্রতিবাদ কারী হলেন মুহাম্মদ রেহান উদ্দিন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, নাঙ্গলকোট, কুমিল্লা।

লেখাটি পড়ে বুঝতে পারি, নাঙ্গলকোট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মি: রেহান উদ্দিন এর বিরুদ্ধে বেশ কিছু দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে সাম্প্রতিক কালের সাপ্তাহিক সবুজপত্র, নির্ভিক সংবাদ, সূর্যোদয় এবং হাজারিকা প্রতিদিনে। আমার জানা মতে সবুজপত্র লাকসাম থেকে আর বাতী ৩টি রাজধানী ঢাকা থেকে প্রকাশিত। ওই সব পত্রিকায় নাকি নির্বাহী কর্মকর্তা রেহান উদ্দিনের নানা দুর্নীতির কিছু বিবরন ছাপা হয়েছে।

যাক প্রতিবাদ লিপিটির প্রারম্ভে নির্বাহী রেহান উদ্দিন লিখেছেন, সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা, সাংবাদিকরা দেশ গড়ার কারিগর। হলুদ সাংবাদিকতা সমাজ কে অনিশ্চয়তার দিকে নিয়ে যায়। তাই বস্তু নিষ্ঠ সাংবাদিকতা সময়ের অপরিহার্য দাবি। এতে দেশ, জাতি ও রাষ্ট্র উপকৃত হয়।

আহ! তার উপরোক্ত বয়ান পাঠ করে নিজেকে প্রবোধ দিলাম, নাঙ্গলকোট উপজেলা নির্বাহী অফিসার একজন ভাল মানুষ- জ্ঞানী ও নীতি বান মানুষ। সম্ভবত: তিনি ও একজন সংবাদ পত্র জগতের সদস্য হবেন- এমন ধারনা ছিল আমার। কারণ তার লেখায় বেশ কিছু নীতিগত বক্য ঝকঝক করছিল। কিন্তু পরে তার বিরুদ্ধে প্রকাশিত সংশ্লিষ্ট পত্রিকাও ওয়েভ দেখে এবং আরো কিছু অনুসন্ধান মূলক তথ্য উপাত্ত পেয়ে তার প্রতি আমার বিরূপভাব জমে। বুঝতে আর বাকী রইলো না, তার প্রকাশিত বক্তব্য কতো মূল্যের অধিকারী।

গভীর ভাবে তত্ত্ব তালাশ করে জানতে পারি সারা উপজেলার সিংহ ভাগ মানুষ তার কার্যক্রমে চরম নাখোশ। তার নিন্দনীয় দুর্নীতিতে খোদ আ’লীগের নেতা-কর্মীরা ও ক্ষুদ্ধ। শীর্ষ নেতৃবৃন্দ ও তার কুনীতি দুর্নীতি ভালো করেই জানেন। সকলে ঐ লোককে নাঙ্গলকোট বাসীর জন্য বিষ ফোঁড়া হিসেবে জানেন। তবে কিছু লোক কে তিনি হাতে রেখে তার দুর্নীতির মিশন চালু রেখেছেন।

ওই সব সুবিধা ভোগী আর খামাখা লোকরা নির্বাহী রেহান কে আস্কারা দিয়ে থাকেন বলে অনুসন্ধানে জানা গেছে।

এখানে আমার ২/১ টা মন্তব্য বাক্য পাঠকদের উদ্দেশ্যে লিখছি।

নির্বাহী যে সব নীতি বাক্য প্রতিবাদ লিপিতে বলেছেন, তা যে সর্বাংশে সত্য এবং সাংবাদিকরা যে জাতির বিবেক ও দেশ গড়ার কারিগর তা ও ঐতিহাসিক সত্য। তবে তারা যদি কোন ব্যক্তি বা দলের বিপক্ষে লিখেন বা কারো সার্থে আঘাত হানেন- তা হলে ওই সংবাদ মিথ্যা, কাল্পনিক, বানোয়াট এবং উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে যায়। একই সাথে দীর্ঘ দিনের সাংবাদিক সাহেব হঠাৎ করে হলুদ সাংবাদিক, হয়ে যান এবং তার সত্য-নিরেট-বস্তুনিষ্ঠ সংবাদটির কারণে হলুদ সাংবাদিকতার লকব পড়ে যায়। হায়রে দুর্ভাগ্য! হায়রে স্বার্থপর বান আদম। কোন দেশে আমরা বাস করি। নিউজ পক্ষে হলে ভালো। কারো স্বার্থে ঘা পড়লে সবই খারাপ।

এবার বলতে হচ্ছে আরেকটি সত্য কথা।নাঙ্গলকোট উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা রেহান উদ্দিন যোগদানের পর থেকেই এ পর্যন্ত নানা অনিয়ম-দুর্নীতি কথা ভুক্তভোগী ও সাধারণ মানুষের মুখে শুনা গেছে, তা নাঙ্গলকোট উপজেলার কোন লোকের অজানা নয়। এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের জানা শুনা সবার চেয়ে বেশি। তারা রেহান উদ্দিনের মতো লোকের শত দুর্নীতির ব্যাপারে ওয়াকিফ হাল হয়ে ও যদি নিন্দিত লোকটির লোভের ফাঁদে পড়ে টোপ গিলেন, তা হলে সাধারণ জনতা যাবে কোথায়? সাংবাদিকদের নীতি ও ঠিক থাকলো কিভাবে?

এদিকে নির্বাহী কর্মকর্তা রেহান উদ্দিন কী কী দুর্নীতি করেছেন, তা তার ও ভালো জানা। তার ব্যাপারে সর্ব মহলে নানা সমালোচনা সমানে চলছে। উপজেলা চেয়ারম্যান ও তাকে বার বার হেদায়েত নসিহত করেছেন এবং এমপি সাহেবের কাছে ও বহু আ’লীগ নেতা কর্মী অভিযোগ করেছেন তার বিরুদ্ধে, তার পরও তিনি ‘দুধে ধোয়া’ পাক্কা মুসল্লীরা মাছুম ফিরিশতা হয়ে গেলেন বলে দাবি করেন কী ভাবে? আবার তিনি কিছু হলুদ সংবাদ কর্মীকে ম্যানেজ করে তার পক্ষে অন্য পত্রিকায় মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে বিজ্ঞাপন দেন এ গুলো কি আসন কিংবা সাদা সাংবাদিকের কাজ? যে বা যারা হলুদ সাংবাদিকতা করে টু পাইস কামইর ধান্ধা করে তারা আর যাই হোক এরা কোন নীতিবান সাংবাদিক নন। এদের প্রতি জনগণের কোনই আস্থা ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা থাকেনা। জেনে শুনে যারা টাকার লোভে সত্য কে দাফন করে মিথ্যা ও দুর্নীতি কে উর্দ্ধে উঠাতে চায়, তাদের কে মানুষ সদা ঘৃনার চোখেই দেখবে। এরা নিজের বিবেক ও সমাজের কাছে সদা অভিযুক্ত।




Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply