আশুগঞ্জে ৩ দিনের ভারী বর্ষণে নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকা মূল্যের ধান

লিটন চৌধুরী .ব্রাহ্মণবাড়িয়া ॥
দেশের উত্তর পূর্বাঞ্চলের বৃহত্তম ধান-চালর মোকাম ব্রাহ্মনবাড়িয়ার আশুগঞ্জে গত ৩ দিনের টানা ভারী বর্ষনে রৌদ্র না থাকায় বন্ধ হয়েগেছে উপজেলার প্রায় ৪ শতাধিক চাতালকল। নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকা মূল্যের সিদ্ধ ধান। আর এসব চাতালকলে কর্মরত প্রায় ২০ হাজার শ্রমিক কাজ না থাকায় বেকার হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। অপরদিকে, টানা ভারী বর্ষনের জনজীবন বিপর্যস্থ হয়ে পড়েছে।

জানা যায়, গত ৩ দিনের টানা ভারী বর্ষণের কারণে রোদ্র না উঠায় পানিতে ভিজিয়ে হাউজের সিদ্ধ ধান ও খোলা মাঠে টুপরি দিয়ে ঢেকে রাখতে হচ্ছে। এতে করে অধিকাংশ চাতালকলের হাজার হাজার মণ ভিজা ধানের মধ্যে চারা জেগে উঠেছে এবং নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ব্যবসায়ীদের কোটি কোটি টাকার সিদ্ব্‌ ধান। তাছাড়া ধান শুকানো না যাওয়ায় চাতাল কলগুলোতে ধান মাড়াই করে চাউল উৎপাদন করতে না পারায় বাজারে চাউলের সরবরাহও কমে গেছে। আর নষ্ট হয়ে যাওয়া অধিকাংশ ধানেই দুর্গন্ধ ছুটে গেছে। এসব ধান মারাই করে যে চাল উৎপাদিত হয়ে বাজারে আসবে তাতেও দুগন্ধ থেকে যাবে।চাতালকল মালিক কামরম্নজ্জামান রিপন জানান, বৈরি আবহাওয়ার কারণে গত ৪দিন যাবৎ হাউজের ধান রোদ্র না থাকায় চারা জেগে গেছে। এতে করে মোটা অঙ্কের টাকা ক্ষতি হচ্ছে আমাদের। আশুগঞ্জ চাতালকলে কর্মরত শ্রমিকরা জানান, বৃষ্টির কারণে ধান শুকানো না যাওয়া তাদের কাজ বন্ধ থাকায় গত ৩দিন ধরে বেকার বসে থাকতে হচ্ছে। চাতালকল মালিক সমিতির সভাপতি হাজী মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, গত ৪ দিনের ভারী বর্ষনের কারণে উপজেলার চাতালকল গুলোর সিদ্ধ করা ধান গুলো শুকানো না যাওয়া কোটি কোটি টাকার ধান নষ্ট হচ্ছে।

উলেখ, বৃহত্তর হাওরাঞ্চল কিশোরগঞ্জ, সিলেট, ব্রাহ্মনবাড়িয়, হবিগঞ্জ, নেত্রকোনা, ময়মনসিংহ,সহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আশুগঞ্জ মোকামে প্রতিদিনই আসছে হাজার হাজার মণ ধান। আর এসব ধান স্থানীয় রাইছ মিলে পক্রিয়াজাত করে চাউলে রূপানত্মর করে

ঢাকা,চট্টগ্রাম,সিলেট,কুমিলা,নোয়াখালী,চাঁদপুর ও ফেনীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক ও নৌ পথে সরবরাহ করে এসব এলাকার চাউলের চাহিদা পুরণ করা হয়ে থাকে।


Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply