জুম্মা পড়া হলনা আম্বিয়ার : ভোরের ঘাটে দরাকার শুধু একটি ব্রীজ

স্টাফ রিপোর্টার, মুরাদনগর :

মুরাদনগরের কাজিয়াতলের ৩ ম ফুট দৈর্ঘ্য মরনফাদ ভোরের ঘাটের সাঁকো ।(ছবি----------- শরিফ)
বাঁশের তৈরি ভাঙ্গা সাঁকো দিয়ে পাড় হয়ে মসজিদে জামাতের সহিত জুম্মা’র নামাজ আদায় করা হলোনা বিধবা আম্বিয়ার। উল্টো তাকে জামাতের সহিত জানাজা শেষে দাফন করার জন্য মসজিদের মুসল্লী সহ এলাকার শত শত নারী পুরুষ, ছোট শিশুরা পর্যন্ত তার বাড়িতে ভীর জমায়। গত শুক্রবার সাড়ে ১২ টায় কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার ১৯ নং দারোরা ইউনিয়নের কাজিয়াতল গ্রামের মৃত ছাদিম আলীর স্ত্রী মোসাঃ আম্বিয়া খাতুন (৬৪) কাজিয়াতল বড়বাড়ি বায়তুল আমান জামে মসজিদে জুম্মা’র নামাজ আদায় করার উদ্যেশ্যে রওনা হন। বাড়ির পশ্চিম পার্শ্বে ভোরের ঘাটের বাশের সঁকোর মধ্যবর্তী স্থানে ভেঙ্গে পরে ঘটনা স্থলেই তিনি নিহত হন। এলাকার লোকজন খবর পেয়ে আহত আম্বিয়াকে সাঁকোর নিচের খাল হতে উদ্ধার করে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে ওই দিনই কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন। জুম্মা’র নামাজ আদায় করতে আসার পথে বাঁশের সাঁকো হতে পড়ে বিধবার মৃত্যুর খবর এলাকায় প্রচার হলে এলাকার শত শত নারী পুরুষ , শিশুরা ওই বৃদ্ধার লাশ এক নজর দেখার জন্য তাঁর বাড়িতে যেতে ওই সঁকো পার হওয়ার জন্য লম্বা লাইনে দাড়িয়ে বিরম্বনার শিকাড় হতে হয়। বিধবার লাশ দেখতে যাওয়া বাঁশের তৈরি ভাঙ্গা সাঁকো দিয়ে পাড় হচ্ছিল কাজিয়াতল গ্রামের ফরিদ মিয়ার স্ত্রী রৌশনারা (৩২) আবুল হাশেমের স্ত্রী তাহেরা বেগম(৪০) ও মৃত আবদুল কাদেরের স্ত্রী দেলোয়ারা বেগম (৩৮) সাঁকোর ছবি তুলতে দেখে সাংবাদিককে বলেন, “যতই ফটো তুলেন এই পুল কোনদিন পাকা অইত না। পত্তি বছর কত সম্বাদিক এই পুলের ছবি তুইল্লা লইয়া যায়, কিন্তু আমি সহ আমার বাপ দাদার জনমের পর থাইক্কা এইডা বাশেঁর আছে”। কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার ১৯ নং দারোরা ইউনিয়নের কাজিয়াতল পূর্ব পাড়ার মরিচা খালের উপর ভোরের ঘাটের সাঁকো স্বাধীনতার ৪০ বছরেও পরিনত হয়নি পাকা সেতুতে। ফলে কাজিয়াতল কৃষ্ণপুর শিদ্দেশ্বরী পরমতলা মোকশাইড়, লক্ষ্মীপুর ও আমপাল গ্রামের প্রায় ৫০ হাজার মানুষের দুর্ভোগ এখন চরমে পৌঁছেছে। শুধু তাই নয় সাঁকো পাড় হওয়া পূর্বাংশে বৃহত্তম কাজিয়াতল গ্রামের শত শত শিশু ও শিক্ষার্থীরা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা হতে বঞ্চিত হচ্ছে। এলাকার একাধিক বাসিন্ধাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে , স্বাধীনতার ৪০ বছর অতিবাহিত হলেও এই সেতুটির জন্য শতাধিক আবেদন করেও কোন ফল হয়নি। ভোটের আগে মেম্বার , চেয়ারম্যান ও এমপিরা বহুবার প্রতিশ্রুতি দিলেও পরে কথা রাখেনি। প্রতিবছরই এলাকার প্রকৌশলী আলহাজ্ব রমিজ উদ্দিন সরকারের নিজস্ব আর্থায়ন সহ ইউনিয়ন পরিষদের আংশিক বরাদ্ধ ও বাড়ি বাড়ি বাঁশ তুলে জোড়া তালি দিয়ে ৩ শ ফুট দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট সাঁকোটি চলাচলের উপযোগী রাখার চেষ্টা করা হয়। বাঁশের সাকো দীর্ঘ্য দিন স্থায়ী না হওয়ায় এ গ্রামবাসীর দুর্ভোগ সারা বছরই লেগে থাকে। গ্রামবাসী শহর বলতে মুরাদনগর ও দেবিদ্বারকে বুঝে। সেখানে তাদের চাকুরী , ব্যবসা -বাণিজ্য, ব্যাংক বীমা , স্কুল কলেজ , হাট বাজার সহ সকর প্রকার গুরুত্ব পূর্ণ কাজ সাড়তে হয়। মুরাদনগর ও দেবিদ্বার যেতে গ্রাম থেকে প্রায় ১২ কি: মি; পথ পাড়ি দিতে হয়। বাশের সাঁকো অনেক সময় ভেঙ্গে অনেকেই আহত হয়। গত ৩ দিন পূর্বেও কাজিয়াতল গ্রামের সুবল চন্দ্রের পুত্র স্কুল ছাত্র রিকু দাস (১২) স্কুলে যাওয়ার সময় সাঁকো হতে পরে তার বাম পা ভেঙ্গে যাওয়ার কারণে ওই স্কুল ছাত্র এখন তার স্কুলে যাওয়াই বন্ধ করে দিয়েছে। তাছারা সময়মত কোন মুমুর্ষ রোগী বা গর্ভবতী মহীলাদের শহরে উন্নত চিকিৎসার জন্য নেয়া সম্ভব হয়না। এছারা বর্ষা কালে পানির প্রবল স্্েরাতে এই বাঁশের সাঁকোটি ভেঙ্গে যায়। তখন শহরে যেতে আরো অতিরিক্ত ৫ কি:মি: পথ ঘুরে পায়ে হেটে মুরাদনগর ও দেবিদ্বার পৌছতে হয়। তাই এতদ্ব অঞ্চলের বৃহৎ জনগোষ্ঠির স্বার্থে জরুরী ভিত্তিতে এই বাঁশের সাঁকোর উপর পাঁকা সেতু অথবা বেইলী ব্রীজ নির্মানের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন গ্রাম বাসী। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমা বেগম বলেন, অত্র উপজেলায় এতবড় দীর্ঘতম বাঁশের সাঁকো আছে তা আমার জানা ছিলনা। এখন যেুহেতু জানতে পেড়েছি , এলাকা বাসী আবেদন করলে জনস্বার্থে অবশ্যই এ ব্যপারে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। মুরাদনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হারুন আল রশিদ এ প্রতিবেদককে বলেন, জুম্মা’র নামাজ পড়তে আসা ভদ্র মহিলা সাঁকো ভেঙ্গে মৃত্যু বরন অত্যন্ত দুক্ষজনক ও মর্মান্তিক। আজ (রবিবার) তিনি সহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকৌশলীকে নিয়ে ওই মানুষ মারার মরন ফাঁদ সাঁকোটি পরিদর্শন সহ মৃত্যুবরনকারী শোকাহত পরিবার বর্গের সাথে দেখা করবেন বলে জানিয়েছেন। উপজেলা প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন বলেন, শিগগিরই ওই সাঁকোটি জরিপ কার্য সম্পাদন করে প্রয়োজনীয় বরাদ্ধ দেওয়ার জন্য প্রাক্কলন তৈরি করে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করব। ভোরের ঘাটে সেতু নির্মানের দাবীতে মানব বন্ধন ও সমাবেশ উপজেলার বৃহত্তম গ্রাম কাজিয়াতলে সাঁকো ভেঙ্গে পড়ে বিধবা আম্বিয়া(৬৪) এর নিহত হওয়ার ঘটনায় সেতু নির্মানের দাবী ক্রমশ জোড়ালো হচ্ছে। শনিবার সকালে গোমতির শাখা নদী মরিচা খালের উপর ভোরের ঘাটে সেতু নির্মানের দাবীতে মানব বন্ধন ও সমাবেশ করেছে ৬ গ্রামের মানুষ। ভোরের ঘাটে সেতু নির্মানের দাবীতে সাঁকোর পশ্চিম ও পূর্ব পাড়ে মানব বন্ধনে ৬ গ্রামের কাজিয়াতল, শিদ্ধেশ্বরী , কৃষ্ণপুর, পরমতলা, মোকশাইড় ও লক্ষ্মীপুর গ্রামের হাজার হাজার নারী পুরুষ ও শিশুরা মানব বন্ধনে অংশ নেয়। সকাল ১১ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত মানব বন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়। পরে এ দাবীতে এক সমাবেশ ও অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে ভোরের ঘাট সেতু নির্মান বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি সাংবাদিক শরিফুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন কাজিয়াতল গ্রামের সমাজ সেবক ও ৯ নং ওয়াড পুলিশিং কমিটির সভাপতি ঠিকাদার মোঃ আবু তাহের, প্রয়াত বিধবার পুত্র ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম, সাবেক ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলম ভূঞা ও মোঃ রুকু মিয়া, ৭,৮, ও ৯ নং ওয়ার্ড মহিলা সদস্য রেহেনা বেগম, মুরাদনগর উপজেলা ওলামালীগ সভাপতি হাফেজ সুয়াইবুল হোসেন শাহজাহান মুন্সী, উপজেলা মহিলা লীগ সভানেত্রী শাহিন আক্তার মায়া, কুমিল্লা উঃ জেলা ছাত্রলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা মরিয়ম বেগম সাথী, মুরাদনগর উপজেলা মহিলা লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও দৈনিক আজকালের খবর পত্রিকার মুরাদনগর প্রতিনিধি সুলতানা চৌধুরী মনি, সমাজ সেবক মনু মিয়া ব্যপারী ও গোলাম মোস্তফা প্রমুখ। ভোরের ঘাট সেতু বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি সাংবাদিক শরিফুল আলম চৌধুরী বলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমা বেগম, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হারুন আল রশিদ ভোরের ঘাটে সেতু নির্মানের প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় এতদ্ব অঞ্চলের যোগাযোগ যথাযথ সহজতর হবে। এছাড়া এ সেতু দিয়ে হাতচূড়া , কদমমুড়া ও বড়ইমুরা বিলের প্রায় ৯ শ একর জমির ফসল নিয়ে অনায়াসে কৃষক সহ অসংখ্য শিক্ষার্থী স্কুল কলেজে যাতায়াত ও জনচলাচলে সুবিধা হবে। এ স্থানে সেতু নির্মান হলে এলাকার জনযোগাযোগের ব্যপক উন্নয়ন হবে বলেও তিনি দাবী করেন।




Check Also

দেবিদ্বারের সাবেক চেয়ারম্যান করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় মৃত্যু: কঠোর নিরাপত্তায় গ্রামের বাড়িতে লাশ দাফন

দেবিদ্বার প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ভাণী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান (৫৫) করোনায় আক্রান্ত ...

Leave a Reply