নাসিরনগরে অবহৃত স্কুল ছাত্র মোসাব্বির ৫ দিনেও উদ্ধার হয়নি

লিটন চৌধুরী (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) ১মার্চ :
১০ লাখ টাকা মুক্তিপনের দাবীতে অবহৃত প্রথম শ্রেণীর ছাত্র মোসাব্বির ৫ দিনেও উদ্ধার হয়নি। এ ঘটনায় মোসাব্বির পরিবারে চলছে কান্নার রুল। অপহরণের ব্যাপারে মোসাব্বিরের পিতা কৃষক ইলাল খা তার ভায়রা পুত্রদের সন্দেহ করছেন। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার গোকর্ণ গ্রামের ইলাল খাঁর একমাত্র সন্তান গোকর্ণ পশ্চিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র মোসাব্বির খাঁ (৭) গত শুক্রবার বিকেলে তার খালাত ভাই পার্শ্ববর্তী ফুলপুর গ্রামের ইয়াদুল মিয়ার ছেলে রোপন (১২) এর সাথে ঘুরতে বের হয়। সন্ধ্যার দিকে রোপন বাড়িতে এসে মোসাব্বিরকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানান। এদিন রাত ১২টার দিকে গ্রামীণ ফোনের একটি নাম্বার থেকে ইলাল খাকে ফোন করে তার ছেলেকে অপহরণ করার কথা স্বীকার করে ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়া হবে বলে জানায়। শনিবার সকালে এ ব্যাপারে ইলাল খা নাসিরনগর থানায় সাধারণ ডায়রী করেন। মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত মোসাব্বিরকে উদ্ধার করতে পারেনি নাসিরনগর থানা পুলিশ। দীর্ঘ ৫ দিনেও মোসাব্বির উদ্ধার না হওয়ায় এলাকায় নানামুখী আলোচনা চলছে। একমাত্র সন্তান অপহরণের ঘটনায় চরমভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন পিতা ইলাল খা ও মা রিনা বেগম। তাদের বাড়িতে চলছে কান্নার রুল। মা রিনা বেগমের চিৎকারে আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠছে। ইলাল খা এ প্রতিবেদককে জানান, মোসাব্বির অপহরণের পর থেকে তার ভায়রা পুত্র রোপন ও তার বড় ভাই খোকন (১৮) এর কর্মকান্ড নানা সন্দেহের সৃষ্টি করে। এমনকি অপহরণকারীরা টেলিফোনে খোকনের কথাও জিজ্ঞেস করে। খোকন অর্থের বিনিময়ে বিষয়টি মিমাংসার কথা বলায় সন্দেহ আরো ঘনীভূত হয়। গত ৩ দিন যাবত খোকন ও তার পরিবার ইলাল খাদের সাথে কোনো যোগাযোগ রাখছে না। তবে অপহরণকারীরা টেলিফোনে নিয়মিত টাকা দাবী করে আসছে।




Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply