লিবিয়ায় চলমান বিক্ষোভে শতাধিক বাংলাদেশী জিম্মি :আহত ১৫

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ২১ ফেব্রুয়ারী (কুমিল্লাওয়েব ডট কম) :

লিবিয়ায় চলমান বিক্ষোভে দমন-পীড়নের মুখে সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীরা ৩শ’র বেশি বিদেশিকে জিম্মি করেছে, যার মধ্যে শতাধিক বাংলাদেশি রয়েছে। লিবিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় শহর বেনগাজি থেকে প্রায় ৩৫০ কিলো মিটার পূর্বে দারনা সিটিতে কয়েকদিন ধরে এরা আটক রয়েছেন বলে জিম্মি থাকা এক বাংলাদেশি জানান।

জিম্মিদের ধারণা, নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করতেই বিদেশিদের আটক করা হয়েছে।

রাজনৈতিক সংস্কারের দাবিতে প্রসিডেন্ট গাদ্দাফির বিরুদ্ধে লিবিয়ায় গত কয়েকদিন ধরে বিক্ষোভ চলছে। বিক্ষোভ রাজধানী ত্রিপোলিতে ছড়িয়ে পড়লে মুয়াম্মার গাদ্দাফির সরকার কঠোরভাবে তা দমন করছে। মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ) জানিয়েছে, বুধবার থেকে শুরু হওয়া সরকারবিরোধী বিক্ষোভ-সহিংসতায় লিবিয়ায় নিহত হয়েছে অন্তত ১৭৩ জন।

দারনা সিটিতে জিম্মিদের একজন মানিকগঞ্জ জেলার শফিউদ্দিন বিশ্বাস সোমবার দুপুরে টেলিফোনে বলেন, “গত শুক্রবার বিকালে ৩০/৪০ জন সশস্ত্র ব্যক্তি আমাদের ক্যাম্প অফিস থেকে জিম্মি করে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে একটি মসজিদে নিয়ে যায়। পরের দিন স্থান পরিবর্তন করে পাশের দুটি কমিউনিটি সেন্টারে আমাদের আনা হয়েছে।” জিম্মিরা দক্ষিণ কোরিয়ার একটি নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন। জিম্মিদের মধ্যে বাংলাদেশি ছাড়াও কোরিয়া, নেপাল ও শ্রীলংকার নাগরিক রয়েছেন বলে জানান শফিউদ্দিন।

এ বিষয়ে ত্রিপোলির বাংলাদেশ মিশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, তারা ঘটনাটি রোববার জেনেছেন। বিষয়টি সেদেশর পুলিশকে জানানো হলেও এলাকাটি সরকারবিরোধীদের ঘাঁটি হওয়ায় পুলিশ অভিযান চালাতে পারেনি।
মিশন থেকে জানানো হয়েছে, লিবিয়াতে প্রায় ৪০ হাজার বাংলাদেশি বসবাস করছেন। এরমধ্যে বেনগাজিতে প্রায় ৫ হাজার বাংলাদেশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত।

আরেক জিম্মি ফরিদপুরের আব্দুল আজিজ বলেন, “আমাদেরকে আটকে রাখা হয়েছে। প্রথম কয়েকদিন সারাদিন দুটি করে রুটি খেতে দেওয়া হয়েছে। সামান্য হলেও পানি দিয়েছিলো। কিন্তু রোববার থেকে পানি পাচ্ছি না। আজ এখন পর্যন্ত (বাংলাদেশ সময় বেলা ১২টা) কোনো খাবার দেওয়া হয়নি। আমাদের কাছে সামান্য পানি আছে, সেটাই খাচ্ছি।” “আমাদের ফোন করতে দিচ্ছে না। তবে ফোন এলে আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে কথা বলতে দিচ্ছে। তারা এখনো কিছু দাবি করেনি। শুধু বলছে গাদ্দাফি ক্ষমতাচ্যুত হয়েছে, এখন আমাদের শাসন চলবে”, বলেন তিনি।

এদিকে বার্তাসংস্থা রয়টার্সের এক খবরে বলা হয়েছে, অস্থির লিবিয়ায় সশস্ত্র হামলায় ১৫ বাংলাদেশিসহ ১৮ জন শ্রমিক আহত হয়েছে।আহতদের বাকি তিনজন কোরিয়ার নাগরিক।আহতদের মধ্যে দুই বাংলাদেশির অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানান মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা। আহতদের কারো নাম-পরিচয় জানা যায়নি। কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, সশস্ত্ররা স্থানীয় সময় রোববার রাত ১১টায় দক্ষিণ কোরিয়ার একটি নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর করে চলে যায়। কয়েক ঘণ্টা পর তারা আবার ফিরে আসলে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। স্থানীয় সময় ভোর ৫টার দিকে সংঘর্ষ থামে।

দক্ষিণ কোরিয়ার ইয়োনহ্যাপ বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, ওই প্রতিষ্ঠানে এক হাজারের বেশি বাংলাদেশি ও ৪০-৫০ জন কোরিয়ান শ্রমিক কর্মরত।

উল্লেখ্য ১৯৬৯ সালে তরুণ কয়েকজন সেনা কর্মকর্তাকে সঙ্গে নিয়ে এক সামরিক অভ্যূত্থানের মাধ্যমে লিবিয়ার রাষ্ট্রক্ষমতা নেন গাদ্দাফি। তখন থেকে দেশটি শাসন করে আসছেন তিনি।




Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply