উদ্ভোধনী ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভারতের দাপুটে জয়

স্পোর্টস ডেস্ক, ১৯ ফেব্রুয়ারি (কুমিল্লাওয়েব ডট কম) :

পোর্ট অব স্পেনের সুখ স্মৃতি আর বেশি দিন রইল না বাংলাদেশের কাছে। শনিবার বিশ্বকাপ ক্রিকেটের দশম আসরে প্রতিবেশী ভারতের কাছে ঘরের মাঠে ৮৭ রানের ব্যবধানে হেরেছে টাইগাররা। এই জয়ে একদিকে ভারত বিশ্বকাপে দুঃস্বপ্নের স্মৃতি ভুললো। অন্যদিকে কিছুটা হলেও প্রতিশোধের বিষবাষ্প ছড়ালো ধোনি বাহিনী।

শনিবার দিবা-রাত্রির ম্যাচে মিরপুর জাতীয় স্টেডিয়মে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন দলনেতা সাকিব আল হাসান। তার সিদ্ধান্তকে পুরোপুরি অকেজো করে দেয় বীরেন্দর শেবাগ আর বিরাট কোহলি। মূলত এই দুজনের শতকের ভর করে ভারত ৩৭০ রানের পাহাড় গড়ে।

রানের পাহাড় ডিঙাতে খারাপ করেনি টাইগাররা। শেষ পর্যন্ত লড়াই করে ৯ উইকেটে ২৮৩ রান করতে সক্ষম হয়। ফলে ৮৭ রানে হার দিয়ে শুরু হলো বাংলাদেশ দলের বিশ্বকাপ মিশন। তবে পরাজয়ের এই ম্যাচেও সাফল্য সম্ভাব্য তারকা হিসেবে পরিচিতি পাওয়া দলনেতা সাকিব (৫৫) ও সহ অধিনায়ক তামিমের (৭০)অর্ধশতক।

মুনাফ প্যাটেলের মিডিয়াম পেসে প্রথম দিকের আশা জাগানিয়া ব্যাটিং ২০ ওভার পার হতেই নেতিয়ে আসে। শেষ পর্যন্ত বল করে ৪৮ রান খরচায় ৪ উইকেট শিকার করেন এই ডানহাতি বোলার।

এরআগে ভারতের মতোই ব্যাট হাতে উড়ন্ত সূচনা করে বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে ইমরুল কায়েসের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে চার ওভারে অর্ধশতক পূর্ণ করে টাইগাররা। তবে আক্রমণাত্মক খেলতে গিয়ে ব্যক্তিগত ২৯ বলে ৩৪ রান করে মুনাফ প্যাটেলের বলে বোল্ড হন ইমরুল। এরপর ক্রিজে থাকা তামিম ইকবালের সঙ্গে জুটি গড়েন জুনায়েদ সিদ্দিক।

ইমরুলের পর এ দুজনের দারুণ সমঝোতায় প্রথম ১০ ওভার শেষে বাংলাদেশ এক উইকেটে সংগ্রহ করে ৬৯ রান। যেখানে শেবাগ আর টেন্ডুলকার এই একই ওভারে করেছিলেন ৬০ রান।

ওপেনার তামিম ইকবাল আর জুনায়েদ জুটি বাংলাদেশ শিবিরে যখন পোর্ট অব স্পেনের স্মৃতি রোমন্থনের সুযোগ করে দেয় তখনই ২২তম ওভারে বড় আঘাত হানেন হরভাজন। ভারতীয় অধিনায়ক ধোনির স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হয়ে ব্যক্তিগত ৩৭ করে সাজঘরে ফেরেন জুনায়েদ। অবশ্য টিভি রিপ্লেতে স্পষ্ট দেখা গেছে জুনায়েদের পা মাটিতে ছিল। যেখানে সুযোগটি ব্যাটসম্যানের পক্ষে যাওয়ার কথা সেখানে দুর্ভাগ্যই বলতে হবে জুনায়েদের। এই আউটেই ম্যাচ ভারতের দিকে মোড় নেয়।

তবে এরপর তামিম ইকবালের সঙ্গে জুটি গড়ে টাইগার দলনেতা সাকিব আল হাসানও বাংলাদেশ শিবিরে জয়ের আশা জাগায়। তামিমের সঙ্গে জুটি গড়ে সাকিব ২৬ ওভারে দলীয় সংগ্রহ দেড়শ’ স্পর্শ করে। ২৮তম ওভারের প্রথম বলে দলের পক্ষে এ আসরে প্রথম অর্ধশতক পূর্ণ করেন তামিম। এজন্য ব্যয় করেন ৭১ বল। তবে ৮৬ বলে ৭০ রান করে মুনাফ প্যাটেলের বলে যুবরাজের সহজ ক্যাচে বিদায় নেন তামিম।

তামিম আউট হওয়ার আগে প্রথমে জুনায়েদ ও পরে সাকিবের সঙ্গে দুটি চমত্কার জুটি গড়ে কিছুটা হলেও ভারত শিবিরে কাঁপন ধরিয়ে দেন।

তামিমের বিদায়ের পর সাকিবও বেশিক্ষণ স্থায়ী হননি। ইউসুফ পাঠানের বলে ডিপ মিড উইকেটে হরভজন সিংয়ের হাতে ধরা পড়ার সময় তার ব্যক্তিগত সংগ্রহ ছিল ৫৫ রান। এই উইকেটের পরে স্পষ্টত পরাজয়ের পাল্লা বাংলাদেশের দিকে হেলে পড়ে।

তবে উইকেট আগলে রেখে দলকে টেনে নেয়ার সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যান রকিবুল। কিন্তু ৪২ ওভারের তৃততীয় বলে মুশফিক ব্যক্তিগত ২৫ রানে সাজঘরে ফিরে গেলে টেল এন্ডার ব্যাটসম্যানরা তাকে সঙ্গ দিতে ব্যর্থ হন। ফলে শুরু হয় আসা যাওয়ার পালা। পাওয়ার প্লেতেও রান তোলার গতি একেবারেই থেমে যায়। দলীয় ২৬১ ও ব্যক্তিগত ৬ রানে প্যাটেলের শিকার হন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

৮ বলে ২ রান সংগ্রহ করে নাঈম ইসলাম, ৫ বলে ১ রান সংগ্রহ করে আব্দুর রাজ্জাক আর রানের খাতা খোলার আগেই হরভাজন সিংয়ের ছোড়া বলে রান আউট হন শফিউল। জয়ের সম্ভাবনা একেবারেই ম্লান হলেও রাকিবুলকে সঙ্গ দিতে শেষ পর্যন্ত বল মোকাবিলা করে ক্রিজে দাঁড়িয়ে থাকেন পেসার রুবেল হোসেন। ফলে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২৮৩ রান।

এরআগে মিরপুর জাতীয় স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ভারত শেবাগ ও বিরাট কোহলির শতকে বাংলাদেশের সামনে ৩৭১ রানে লক্ষ্য নির্ধারণ করে। বাংলাদেশের পক্ষে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ৭ ওভারে ৪৯, সাকিব ১০ ওভারে ৬১ এবং শফিউল ৭ ওভারে ৬৯ রানে একটি করে উইকেট লাভ করেন। এছাড়া রুবেল ১০ ওভারে ৬০, রাজ্জাক ৯ ওভারে ৭৪, নাঈম ইসলাম ৭ ওভারে ৫৪ রান দেন।

ব্যাটিং তাণ্ডব দেখানো ভারতের বীরেন্দর শেবাগ ম্যাচ সেরা হয়েছেন।




Check Also

মুস্তাফিজের বিশ্ব রেকর্ড

  কুমিল্লাওয়েব ডেস্ক :– বিশ্ব ক্রিকেটের ইতিহাসের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ওয়ানডে ও টেস্ট দুই ধরনের ...

Leave a Reply