তিতাসের ১৩১টি গ্রামে চলছে ইরি-বোরো চাষের মহোউৎসব

নাজমুল করিম ফারুক, তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি :

ইরি-বোরো চারা রোপন শেষে জমিতে মেশিনের সাহায্যে গুটি ইউরিয়া দিচ্ছেন একজন কৃষক।
তিতাস উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ১৩১টি গ্রামের চলছে ইরি-বোরো চাষের আবাদ শুরু হয়েছে। তবে ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে সেচকাজ ব্যাহত হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ও কৃষকদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, তিতাস উপজেলার একমাত্র আয়ের উৎস হলো কৃষি। যার ফলে প্রতিটি বছরের মধ্যে অধিকাংশ সময় কাটাতে হয় কৃষি কাজ করে। প্রতি বছরের মতো এবারও কৃষকরা ব্যস্ত হয়ে পড়েছে ইরি-বোরো চাষে। একাজে নারী ও শিশুরাও বসে নেই। নারী ও শিশুরা চারা রোপন ও বীজতলা থেকে চারা উত্তোলন করে কৃষকের হাতে পৌছে দিচ্ছে। ফলে তাদের নিঃশ্বাস ফেলার সময় নেই। আলাপকালে অনেক কৃষক জানান, প্রতিবছর তিতাস উপজেলায় উৎপাদিত এ ধান এলাকার চাহিদা পূরণ শেষে উদ্বৃত্ত ধান কৃষকরা বাজারে বিক্রি করে আর্থিকভাবে লাভবান হয়ে থাকে। তারা রাত দিন পরিশ্রম করে জমি তৈরী, ইরি-বোরোর চারা রোপন ও জমিতে সার প্রয়োগে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। ফলে তাদের ঘুম, নাওয়া খাওয়া হারাম হয়ে গেছে। তবে বর্তমানে ঘনঘন লোডশেডিংয় এবং আগামী ১৯ তারিখ থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে লোডশেডিংয়ের মাত্রা আরো বেড়ে যাওয়ার আংশকা করছে। ঐ সময় লোডশেডিংয়ের কারণে সেচকাজ ব্যাহত হবে বলে তারা জানান।

এদিকে উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি সেচ মৌসুমে তিতাস উপজেলার ৭ হাজার ২শত ৬৫ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। যার মধ্যে হাইব্রিড রয়েছে ১শত ৪০ হেক্টর ও উফশী ৭ হাজার ১শত ২৫ হেক্টর। ফেব্রুয়ারীর প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত ১শত ২৫ হেক্টর জমিতে হাইব্রিড ও ৬ হাজার ৭শত ৮৯ হেক্টর জমিতে উফশী জাতীয় চারা রোপন করা হয়েছে। আগামী মধ্য মার্চের মধ্যে ইরি-বোরো রোপন শেষ হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়। এ লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য ২ হাজার ৯৪টি সেচযন্ত্র স্থাপনের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। এর মধ্যে গভীর বিদ্যুৎচালিত সেচযন্ত্র ১টি, অগভীর বিদ্যুৎচালিত সেচযন্ত্র ২৫টি, ডিজেল চালিত সেচযন্ত্র ১ হাজার ৬শত ৯৫টি, এলএলপি’র আওতায় বিদ্যুৎচালিত সেচযন্ত্র ৫১টি ও ডিজেল চালিত সেচযন্ত্র রয়েছে।




Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply