সরাইলে পুলিশের উপস্থিতিতে জুয়া: অনুমতির মূল্য ৯ হাজার টাকা

আরিফুল ইসলাম সুমন, সরাইল (ব্রা‏‏‏হ্মণবাড়িয়া) :
ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার সরাইলে বাউল মেলায় কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যদের উপস্থিতিতেই প্রকাশ্যে জনসমূখ্যে রাত ব্যাপী চলছে জুয়ার আসর। জুয়া খেলার অনুমতির জন্য পুলিশকে দিতে হয়েছে ৯ হাজার টাকা। বৃহস্পতিবার উপজেলার কালীকচ্ছ ইউনিয়নের ধর্মতীর্থ গ্রামে বাউল শিল্পীদের অংশগ্রহণে এক বাউল মেলা অনুষ্ঠিত হয়। সরজমিনে দেখা যায়, ওই দিন সন্ধ্যা থেকে মেলার কার্যক্রম শুরু হয়। রাত সাড়ে ৮ টায় কমিটির সভাপতি দুর্গাচরণের সভাপতিত্বে আলোচনা সভার মাধ্যমে বাউল মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হাজী ইকবাল হোসেন, কালীকচ্ছ ইউপি আ’লীগ সভাপতি লস্কর হারুন অর রশিদ, যুগ্ম সম্পাদক ছলিম উদ্দিন, ডা. আবুল কাশেম তালুকদার প্রমূখ। থানা থেকে মাত্র দেড় কিলোমিটার দূরে অনুষ্ঠিত ওই মেলায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে ছিলেন সরাইল থানার এস আই শফিকুল ইসলাম। অতিথিরা মেলার স্থল ত্যাগ করা মাত্র পুলিশের উপস্থিতিতেই জুয়াড়ীরা জুয়া খেলায় মত্ত হয়ে পড়ে। এসময় জুয়ার আসর থেকে মাত্র ৮/১০ গজ দূরে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে নিশ্চিন্তে গান উপভোগ করছিলেন এস আই শফিকুল ইসলাম। পুলিশ গান শুনছে, পাশেই চলছে জুয়া বিষয়টিকে ঘিরে মেলায় আগত দর্শনার্থীদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। মেলার কাজে নিয়োজিত কালীকচ্ছ ইউনিয়ন পরিষদের দফাদার মো. খোরশেদ আলম(৪৫), গ্রামপুলিশ শওকত আলী(৩৮) ও ইকবাল(৩৫) জানান, সরাইল থানার দ্বিতীয় কর্মকর্তা (এস আই) সমির বাবু জুয়া চলছে দেখে চলে গেছেন। বর্তমানেও পুলিশ উপস্থিত আছে। তারা কিছুই বলছে না। আমারা (গ্রাম পুলিশ) কি করব? এলাকার পেশাদার জুয়াড়ী ও মেলায় জুয়া পরিচালনাকারী মো. আবদুল কাদির(৩৮) গর্বের সাথে বলেন, মেলায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত এস আই ও কনষ্টেবলদের টাকা দিয়েই জুয়া খেলা পরিচালনা করছি। থানায় ফোন করলে কিছুই হবে না। সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র সাহা বলেন, ওই মেলায় জুয়া খেলা ও পুলিশকে টাকা দেয়ার বিষয়ে আমি কিছুই জানি না।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply