সরাইলে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করেছে শ্বশুরবাড়ির লোকজন :থানায় মামলা

আরিফুল ইসলাম সুমন, সরাইল :

নিহত গৃহবধূ আসমা ও ৫বছরের ছেলে জয় (ফাইলফটো)
ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়নের আঁখিতারা গ্রামে তিন সন্তানের মা গৃহবধূ আসমা বেগম (২৮) কে নির্যাতন করে হত্যা করেছে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। সোমবার গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গতকাল বুধবার নিহত আসমার পিতা কেরামত আলী সরাইল থানায় শ্বাশুড়ীসহ তিন জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। আসমার মা আফিয়া বেগমের অভিযোগ, স্বামীর পরিবারের লোকজন আসমাকে হত্যা করে মুখে বিষ ঢেলে দেন। তিনি বলেন প্রায় ১২ বছর আগে একই গ্রামের হামদু মিয়ার ছেলে সোহেল মিয়া ভালোবেসে আসমাকে বিয়ে করেন। সোহেলের পরিবারের লোকজন সামাজিকভাবে বিয়ে মেনে নিলেও বিভিন্ন সময় আসমাকে নির্যাতন করত। এসব বিষয় নিয়ে এলাকায় সালিশ-বৈঠক হয়। সোহেল বর্তমানে মধ্যপ্রাচ্যে রয়েছেন। বিদেশে যাওয়ার সময় আসমার পরিবারের লোকজন সোহেলকে দুই লাখ টাকাও দেন। স্বামী বিদেশে যাওয়ার পর থেকে আসমার ওপর নানা অত্যাচার-নির্যাতন শুরু করে শ্বাশুড়ী হনুফা বেগম এবং ননদ ঝর্ণা ও লুতফা বেগম। গত ১৫দিন আগেও লুতফা বেগম আসমাকে বেধড়ক মারপিট করে। রবিবার বিকালে দজ্জাল শ্বাশুড়ী হনুফা বেগম আসমাকে নির্মমভাবে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে হত্যা করেন। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আসমার মেয়ে আশামনি(৮) জানান, ‘বুবু (দাদি) মারে প্রথমে মাইর দিছে, পরে মুখে ছিপা দিয়া বিষ দিছে। বুবুর সাথে দাদাও ছিল।’ নিহত গৃহবধূ আসমার অপর দুই সন্তান মেয়ে অঞ্জনা(৯) ও ছেলে জয় (৫) নানির কাছে আছেন। আসমার মৃত্যুর পর শ্বশুরবাড়ির লোকজন পালিয়ে গেছেন। আসমার ৫ বছর বয়সী ছেলে জয় এখনও কিছু বুঝতে পারছে না। সে নানিকে বার বার শুধু মায়ের কথা জিজ্ঞেস করছে।

সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র সাহা জানান, অভিযোগ পেয়েছি ; প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply