ওসি ফারুকের ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার গ্রামের বাড়িতে শুধুই কান্না

আরিফুল ইসলাম সুমন, সরাইল :
গত শনিবার নরসিংদীতে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত পুলিশ কর্মকর্তা(ওসি) ফারুক আহমেদ চৌধুরীর গ্রামের বাড়ি ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার বুধন্তিতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। শোকাহত পরিবারের সদস্যদের কান্না থামছে না। গতকাল সোমবার বিকালে বুধন্তি গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, নিহত ফারুকের বৃদ্ধা মা ‘আমার বুকের ধন কই রে’ বলে বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন। ফারুকের বিধবা স্ত্রী জেবুন্নেসা স্বামী হারিয়ে পাগল প্রায়। কোন সান্তনাই তাকে দেয়া যাচ্ছে না। তার অবুঝ তিন কন্যা সন্তান অনিকা, অন্যা ও প্রিয়ন্তি তেমন কিছু এখনও বুঝতে পারছে না। বার বার শুধু বাবার কথাই জিজ্ঞেস করছে ওরা। শনিবার রাতে বাড়িতে নিহত ফারুকের লাশ আনা হলে বাবাকে চুপচাপ দেখে তারা কেঁদেছে অনেক। কবরে দাফনের পর তাদের বার বার জিজ্ঞাসা ছিল বাবাকে মাটির নীচে রাখা হচ্ছে কেন। ফারুকের পিতা অবসরপ্রাপ্ত প্রাইমারি প্রধান শিক্ষক আলী আহাম্মদ খান বড় ছেলে ফারুককে কবরে রেখে বিলাপ করছিল ‘এমন ভাগ্য যেন আর কারো না হয়।’ পরিবারসূত্র জানায়, ফারুক আহমেদ চৌধুরী ১৯৯৪ সালে পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেন। ১৭ বছরের চাকুরি জীবনে তেমন কিছু করতে পারেননি তিনি। ফারুক এলাকাতে ভালো ছেলে হিসেবেই পরিচিত ছিলেন। ৩ ভাইয়ের মধ্যে তিনি সবার বড়। দূর্ঘটনার পর শনিবার রাত ৯টায় বুধন্তি গ্রামে ফারুকের লাশ আনার হলে হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply