মরিশাসে নিহত তিতাসের ৩ জনের লাশ দাফন

নাজমুল করিম ফারুক, তিতাস :

মরিশাসে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত তিতাস উপজেলার সোনাকান্দা গ্রামের মোক্তার এর মা সখিনা বেগমের আহাজারি।
গত ১২ জানুয়ারী মরিশাসের সঁত জুলিয়েঁ দ্য অতমাঁ অঞ্চলে স্থানীয় সময় সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে বাসা থেকে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে বাংলাদেশী শ্রমিক বহনকারী মিনিবাসের সঙ্গে একটি লরির মুখোমুখো সংঘর্ষে নিহত বাংলাদেশী ১০ শ্রমিকের মধ্যে তিতাস উপজেলার ৩ জনের দাফন কাজ গতকাল শনিবার তাদের নিজ নিজ বাড়ীতে সম্পন্ন হয়েছে।

শুক্রবার রাত ৮টা ২৫ মিনিটে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট বাংলাদেশী ১০ শ্রমিকের লাশ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসলে তাদের মধ্যে থেকে তিতাস উপজেলার সোনাকান্দা গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা জালাল মোল্লা ছেলে জাহিদুল (১৮) এর লাশ তাহার পিতা, এইক গ্রামের মৃত মনু মোল্লার ছেলে মোক্তার (১৮) এর লাশ তাহার মামা জাহাঙ্গীর আলম ও বন্দরামপুর গ্রামের রেনু মিয়ার ছেলে সেলিম (৩৩) এর লাশ তাহার পিতা গ্রহণ করে গ্রামের বাড়ীতে নিয়ে আসে। শুক্রবার দিবগত রাতেই নিজ নিজ বাড়ীতে লাশগুলো পৌছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় সেলিমের জানাজা শেষে তাহার নিজ বাড়ী বন্দরামপুরে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়। একই দিন সকাল ১১টায় যথাক্রমে জাহিদুল ও মোক্তারের জানাজা শেষে তাহাদের নিজ বাড়ী সোনাকান্দা গ্রামের পারিবারিক গোরস্থানে তাদের দাফন করা হয়। নিহতের জানাজায় তাদের আত্মীয়-স্বজন ছাড়াও এলাকার জনপ্রতিনিধিগণ ও বিশিষ্ট্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ২৮ ডিসেম্বর দেশ ত্যাগ করে ৩০ ডিসেম্বর মরিশাসের প্যানডেমোনিও কোম্পানী লিমিটেডের একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে সুইং মেশিন অপারেটর হিসাবে চাকুরীতে যোগদান করেন এবং মাত্র ১২ দিনের মাথায় তারা সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান। ফলে নিম্নবিত্ত পরিবারগুলোর বেঁচে থাকার স্বপ্ন ভেঙ্গে যায়। বিভিন্ন ভাবে ধার, কর্জ ও ক্ষুদ্র ঋণের মাধ্যমে টাকা জোগার করে বিদেশ যাওয়ার কারণে ঋণের টাকা পরিশোধের জন্য পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা অস্থির হয়ে আছে বলে একাধিক সূত্রে জানা যায়।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply