“র‍্যাবকে প্রশিক্ষণ দেয় যুক্তরাজ্য” -উইকিলিকস

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ২২ ডিসেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডট কম) :

কয়েকশ’ বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের জন্য অভিযুক্ত র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) যুক্তরাজ্যের কর্মকর্তাদের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছিল। সাড়া জাগানো ওয়েবসাইট উইকিলিকস প্রকাশিত মার্কিন গোপন তারবার্তায় বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষ এই বাহিনীর বিষয়টি উঠে আসে। উইকিলিকসের ফাঁস করা যুক্তরাষ্ট্রের গোপন তার বার্তা থেকে মঙ্গলবার এ সংবাদ প্রকাশ করেছে ‘গার্ডিয়ান’। সূত্র: গার্ডিয়ান অনলাইন।

মার্কিন গোপন কূটনৈতিক তারবার্তায় বলা হয়, ‘সরকারি ডেথ স্কোয়াড’ হিসেবে পরিচিত বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় গঠিত বিশেষ এ বাহিনীকে প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছে বৃটিশ সরকার। বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে সরকারের এ আধাসামরিক বাহিনীর কঠোর সমালোচনা করে আসছে মানবাধিকার সংগঠনগুলো।সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রম নিয়ে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের কথা চালাচালিতে লন্ডন সরকারের র‌্যাবকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার বিষয়টি প্রকাশ্য হয়।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কয়েকশ’ বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের জন্য র‌্যাবকে দায়ী করা হয়। এছাড়া আটককৃতদের নিয়মিত নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে বিশেষ এ বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে।

একটি তারবার্তায় দেখা যায়, মানবাধিকার ছাড়া অন্য কোনো বিষয়ে র‌্যাবকে প্রশিক্ষণ দিতে রাজি হয়নি ওয়াশিংটন। তারা মনে করে, বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে র‌্যাব মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে। ফলে তাদের এ বাহিনীকে অন্য কেনো প্রশিক্ষণ দেওয়া যুক্তরাষ্ট্রের আইন লঙ্ঘন করবে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় গঠিত বিশেষ এ বাহিনী বৃটেন থেকে ‘তদন্তে জিজ্ঞাসাবাদ কৌশল’ এবং ‘তথ্য উদ্ধার পন্থা’ সম্পর্কিত প্রশিক্ষণ নেয়। প্রকাশিত বেশ কয়েকটি তারবার্তায় র‌্যাবের প্রশিক্ষণের বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়। মূলতঃ যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী উদ্দেশ্য বাস্তাবায়নকে সামনে রেখেই এ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

অবশ্য তৃণমূল পর্যায়ে মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং এসব ঘটনায় দণ্ড থেকে অব্যাহতির বিষয়টি বিবেচনা করে যুক্তরাষ্ট্র র‌্যাবকে কোনো ধরনের সহযোগিতার প্রস্তাব করেনি।

ছয় বছর আগে গঠিত এ বিশেষ বাহিনীর বিরুদ্ধে সহস্রাধিক ব্যক্তিকে বিচারবহির্ভূতভাবে হত্যার অভিযোগ করে আসছে মানবাধিকার সংগঠনগুলো। অবশ্য র‌্যাব এসব হত্যাকাণ্ডকে ‘ক্রসফায়ার’ বলে বর্ণনা করে থাকে।

র‌্যাব সদস্য কর্তৃক ৫৭৭ জন ‘ক্রসফায়ারে’ পড়ে মারা গেছে বলে গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে বিশেষ এ বাহিনীর মহাপরিচালক জানান। এ বছরের মার্চে নতুন পরিসংখ্যান অনুযায়ী নিহতের সংখ্যা ৬২২ জনে দাঁড়ায়।

গত এক দশকে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিতে তৃণমূল পর্যায়ে র‌্যাবের প্রতি সমর্থন রয়েছে বলেও প্রকাশিত তারবার্তায় বলা হয়।

বৃটিশ কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে মরিয়ার্টির পাঠানো তারবার্তায় বলা হয়, ‘তদন্তে জিজ্ঞাসাবাদ কৌশল’ এবং ‘তথ্য উদ্ধার পন্থা’ নিয়ে র‌্যাবকে ১৮ মাস প্রশিক্ষণ দেয় বৃটেন।ফাঁস হওয়া তারবার্তা থেকে স্পষ্ট, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য উভয় দেশই বাংলাদেশে সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রম শক্তিশালী করতে চায়। এমনকি র‌্যাবের কার্যক্রমের প্রশংসাও করেছেন দেশ দুটির কর্মকর্তারা।এ বিষয়ে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দপ্তরের এক কর্মকর্তা গার্ডিয়ানকে বলেন, মানবাধিকার রক্ষা বিষয়টি ছিলো তাদের প্রশিক্ষণের বিষয়।

অবশ্য র‌্যাবের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়নি। র‌্যাবের প্রশিক্ষণ প্রধান মেজবাহ উদ্দিন বলেন, গত গ্রীষ্মে তার নিয়োগের পর এ ধরনের কোনো প্রশিক্ষণের বিষয়ে তিনি অবহিত নন।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের ২৬ মার্চ যাত্রা শুরু করে সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ বাহিনী র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। প্রতিষ্ঠার পর থেকে ‘ক্রসফায়ার/বন্দুকযুদ্ধ/এনকাউন্টার’র মাধ্যমে বিচার বহির্ভূতভাবে প্রায় ১ হাজার মানুষ ‘হত্যা’র অভিযোগ রয়েছে এই বাহিনীর বিরুদ্ধে। এর মধ্যে বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত যেমন রয়েছে, তেমনি নিরাপরাধ লোকও রয়েছে বলে অভিযোগ।

সুত্র – দ্য গার্ডিয়ান, বিডিনিউজ

Check Also

রিয়াদে জ্যাবের ‘অমর একুশে’ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

ষ্টাফ রির্পোটার :– “অমর একুশের চেতনায় গন মানুষের মনে জেগে উঠুক উজ্জলতা উৎকৃষ্টতা” শীর্ষক আলোচনা ...

Leave a Reply