‘বাংলাদেশের মাদ্রাসা শিক্ষার পরিবর্তনে বৃটেনের উদ্যোগ’ -উইকিলিকস্‌

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ২২ ডিসেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডট কম) :

বিশ্বব্যপী সারা জাগানো অনলাইন সংবাদমাধ্যম উইকিলিকস্‌ কিছুদিন আগে বাংলাদেশ সম্পর্কে পশ্চিমা বিশ্বের মনোভাব সম্পর্কিত তথ্য জানিয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল । আবার মাধ্যমটি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সম্পর্কিত বিস্ফোরক তথ্য । এর একটি হল ‘বাংলাদেশের মাদ্রাসা শিক্ষার পরিবর্তনে বৃটেনের উদ্যোগ’, উইকিলিকসের তথ্য মতে –
সন্ত্রাসবিরোধী কৌশলের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের মাদ্রাসা শিক্ষার পাঠক্রম পরিবর্তনে একত্রে কাজ করছে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র, ‘সামষ্টিক সন্ত্রাসবিরোধী কৌশলের’ অংশ হিসেবে মাদ্রাসা পাঠক্রমকে প্রভাবিত করতে চায় দেশ দুটি। সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান।

সাঁড়া জাগানো ওয়েবসাইট উইকিলিকসের গোপন তারবার্তায় এ তথ্য প্রকাশ পেয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ‘সন্ত্রাসবিরোধী সাধারণ লক্ষ্য’ অর্জনে হাজার হাজার মাদ্রাসার কারিকুলাম পরিবর্তনে কীভাবে ডিপার্টমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট (ডিএফআইডি) আমেরিকার সঙ্গে যুগপৎভাবে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছে।

উইকিলিকসের ফাঁস করা যুক্তরাষ্ট্রের গোপন তারবার্তার ভিত্তিতে মঙ্গলবার গভীর রাতে যুক্তরাজ্যের দ্য গার্ডিয়ান প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে রেজুলেশনহীন মাদ্রাসাগুলোর কারিকুলাম পরিবর্তনে ঢাকায় নিযুক্ত আমেরিকান রাষ্ট্রদূত জেমস এফ মরিয়ার্টি সর্বপ্রথম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে তাদের পরিকল্পনার কথা জানান। এ পরিকল্পনা অনুযায়ী আমেরিকান সরকারের উন্নয়ন সংস্থা ইউএস এইউ বাংলাদেশ সরকারের নিকট ‘কারিকুলাম উন্নয়ন কর্মসূচি’ হস্তান্তর করে।

বাংলাদেশে প্রায় ৬৪ হাজার মাদ্রাসা রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানকে বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। অভিভাবকরা যেসব ছেলে-মেয়েদের প্রথাসিদ্ধ স্কুলে ভর্তি করাতে পারেন না তাদের এসব মাদ্রাসায় বিনা বেতনে পড়ার সুযোগ করে দেয়া হয়।

এরমধ্যে ১৫ হাজার রেজুলেজশনহীন মাদ্রাসা সরকারের জন্য উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার মানের কোনো পরিবর্তন হয়নি।

পশ্চিমাদের অভিযোগ, এসব মাদ্রাসা শিশুদের মাঝে উগ্র ও মৌলবাদী মনোভাব তৈরি হওয়ার জন্য দায়ী। আর মাদ্রাসার ওই শিশুদের পরে জিহাদি প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হিজবুত-তাহরির এমন জায়গা থেকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এ ধরনের তথ্যের ভিত্তিতে গত সপ্তাহে বাংলাদেশ সরকার মাদ্রাসার তহবিল তদন্ত করতে আদেশ দেয়।

উইকিলিকসের এসব খবরের পরিপ্রেক্ষিতে লন্ডনে মুসলিম ইনস্টিটিউটের ড. গিয়াসউদ্দিন সিদ্দিকী মন্তব্য করেন, ডিএফআইডির হস্তক্ষেপ ছিল দক্ষিণ এশিয়ায় উগ্রবাদ প্রতিহত করার পদক্ষেপ। তিনি বলেন, ‘উগ্রবাদ একটি পুরাতন সমস্যা। সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরের মাদ্রাসাগুলোর কারিকুলামের দিকে নজর দেয়া দীর্ঘদিনের দাবি’। কিন্তু ডিএফআইডি এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

Check Also

রিয়াদে জ্যাবের ‘অমর একুশে’ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

ষ্টাফ রির্পোটার :– “অমর একুশের চেতনায় গন মানুষের মনে জেগে উঠুক উজ্জলতা উৎকৃষ্টতা” শীর্ষক আলোচনা ...

Leave a Reply