চান্দিনা পৌরসভা

চান্দিনা পৌরসভা

চান্দিনা পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী নিয়ে এখনও সিদ্ধান্তহীনতায় রয়েছে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি। উভয় দল থেকেই একাধিক নেতাকর্মী ওই পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সম্ভাবনা রয়েছে। দলীয় সমর্থনের জন্য ইতোমধ্যে নেতাকর্মীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়নের প্রত্যাশায় উপজেলা পর্যায়ে দলীয় নীতি-নির্ধারকদের সাথে লবিং অব্যাহত রাখা সহ ব্যাপক গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। ১৯৯৭ সালে চান্দিনা পৌরসভা গঠিত হয়। ওই সময় পৌর প্রশাসক ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা কাজী জাহাঙ্গীর আলম। ১৯৯৯ সালে পৌরসভার প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে আবদুল মান্নান সরকার মেয়র নির্বাচিত হন। ওই নির্বাচনের পর এটি চান্দিনা পৌরসভার দ্বিতীয় নির্বাচন। ২০০৫ সালে পৌরসভাটি দ্বিতীয় শ্রেণীর পৌরসভায় উন্নীত হলেও পৌরসভার নাগরিক সুবিধা আশানুরূপ বাড়েনি। এ বছর মেয়র নির্বাচনে ভোটাররা পৌরসভার উন্নয়নকে প্রাধান্য দিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন বলে সাধারণ ভোটাররা জানিয়েছেন।

মেয়র পদে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য সাতজন প্রার্থী মাঠে প্রাচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এরা হলেন- বর্ষীয়াণ রাজনীতিক কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য, চান্দিনা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, মুক্তিযোদ্ধা তপন বক্সী। উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মো. আবু তাহের ভূইয়া, উপজেলা আওয়ামীলীগের শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক মো. শওকত হোসেন ভূইয়া, পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. মফিজুল ইসলাম কমিশনার, পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি কাজী গোলাম মোস্তফা, পৌর কাউন্সিলর আবদুল জলিল এবং মোখলেছুর রহমান দুলু মাষ্টার। আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থীর জন্যই কাজ করবে ক্ষমতাসীন মহাজোট এর নেতাকর্মীরা।

মেয়র পদে বিএনপি’র সম্ভাব্য প্রার্থী রয়েছে পাঁচজন। এরা হলেন- পৌর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. আলমগীর খান, পৌর বিএনপি’র সহ-সভাপতি মো. জহিরুল ইসলাম, পৌর বিএনপি’র সহ-সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম। তিনি পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মফিজুল ইসলাম কমিশনারের ভাই। বিএনপি’র অপর সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলেন চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ এর পরিচালনা পর্ষদ সদস্য ব্যবসায়ী আবদুল কাদের সরকার এবং হাজী মোসলেম উদ্দীন। চার দলীয় জোট বিএনপি মনোনীত প্রার্থীর জন্য কাজ করবেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানাগেছে।

সম্প্রতি উভয় দলের একাধিক সভা হলেও একক প্রার্থী ঘোষণা করতে পারেনি আওয়ামীলীগ এবং বিএনপি। ফলে এনিয়ে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মতামত নেয়ার প্রয়োজনীয়তা দেখাদিয়েছে। উপজেলা আওয়ামীলীগ গত শনিবার (১১ ডিসেম্বর) থেকে দলীয় প্রার্থী চুড়ান্ত করতে প্রার্থীদের আবেদন গ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু করেছে। উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মহিউদ্দিন আহমেদ আলম জানান, গতকাল রবিবার পর্যন্ত সাত জন সম্ভাব্য প্রার্থী আবেদন করেছেন। রবিবার বিকেলে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধা তপন বক্সী আবেদন জমা দেননি।

মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন একজন। তিনি হচ্ছেন বর্তমান মেয়র আবদুল মান্নান সরকার। শুধু মেয়র পদেই নয়, কাউন্সিলর পদেও প্রতিটি ওয়ার্ডে সক্রিয় রয়েছে একাধিক সম্ভাব্য প্রার্থী। ওই পদের জন্যও একই পক্রিয়ায় দলীয় প্রার্থী বাছাই করা হবে।

Check Also

কুমিল্লার চান্দিনায় বাসে পেট্রলবোমা : জামায়াত-শিবিরের ৭ নেতাকর্মী জেল হাজতে

কুমিল্লা প্রতিনিধি :– কুমিল্লার চান্দিনায় বাসে পেট্রলবোমা হামলার ঘটনায় আটক জামায়াত-শিবিরের সাত নেতাকর্মী আদালতে জবানবন্দী ...

Leave a Reply