পৌর নির্বাচনে সীমিত আকারে সেনা মোতায়েন করা হবে -কুমিল্লায় ছহুল হোসাইন

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, কুমিল্লা :

নির্বাচন কমিশনার মুহম্মদ ছহুল হোসাইন বলেছেন, আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উপর নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতায় শতভাগ আস্থা রয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশনকে সরকার সহায়তা করে আসছে। তাই নির্বাচন কর্মকর্তারা নিরপেক্ষ থাকতে হবে। কোন কর্মকর্তা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। নির্বাচনে সীমিতি আকারে সেনা মোতায়েন করা হবে। নির্বাচন কমিশন নিজেরদের কাজ নিজেরা করার চেষ্টা করছে। এ জন্য সব ক্ষেত্রে সেনা বাহিনী ডাকা হবে না। গতকাল ১৩ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে কুমিল্লার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে আয়োজিত আইন-শৃঙ্খলাসহ নির্বাচন সংক্রান্ত বিষয়ে বৃহত্তর কুমিল্লা ও নোয়খালী জেলার সকল রিটার্নিং অফিসার ও স্থানীয় প্রশাসনের সাথে মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। আয়োজিত ওই সভায় তিনি আরো বলেন ৬ জেলার যেসব উপজেলায় নির্বাচন কর্মকর্তার পদ শুন্য রয়েছে ১৯ ডিসেম্বরের আগেই ওই সব পদে লোকবল নিয়োগ দেয়া হবে। নিয়োগ দেয়ার পরও যে সকল কর্মকর্তা ১৯ ডিসেম্বরের মধ্যে যোগদান করবে না এদেরকে সাসপেন্ড করা হবে।

কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোঃ রেজাউল আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সভায় নির্বাচন কমিশনার আরো বলেন, নির্বাচনে প্রার্থীর বিষয়ে ভোটারদের তথ্য জানার ক্ষেত্রে ৭টি বিষয়ে ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশ করতে হবে। এর মধ্যে কোন মামলা চলমান রয়েছে কিনা, অতীতে থাকলে তার কি-অবস্থা, সর্বোচ্চ শিক্ষাগত যোগ্যতা, ব্যবসা বা পেশার ধরণ, আয়ের উৎস, সম্পদ বিবরণী ও কোন ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ঋণ রয়েছে কি না এসব বিষয়ে হলফনামার মাধ্যমে মনোনয়নপত্রের সাথে জমা দিতে হবে। ভোটার তালিকায় কিছু নাম ভূল থাকার কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, ভোটার তালিকা অনুযায়ী পিতা-মাতার নাম ঠিক থাকলে এ ক্ষেত্রে প্রার্থীদের নামের বানান ভূলের কারনে প্রার্থীতা বাতিল হবে না এবং প্রার্থী হওয়ার ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা কোন বিবেচ্য বিষয় নয়। বিভিণœ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সীমানা সংক্রান্ত বিরোধসহ বিভিন্ন কারনে উচ্চ আদালতে মামলা চলমান থাকায় দেশের ৮৫টি পৌরসভায় প্রায় ২০ বছর ধরে নির্বাচন হচ্ছে না। ওইসব পৌরসভায় উন্নয়ন কর্মকান্ড বিঘিœত হচ্ছে। তিনি বলেন, এ সমস্যা সমাধানে একমাত্র স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় উদ্যোগ নিতে পারে। এ ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের কোন এখতিয়ার নেই। অনুষ্ঠানে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক প্রিয়তোষ সাহা, নোয়াখালীর জেলা প্রশাসক মোঃ সিরাজুল ইসলাম, ফেনীর জেলা প্রশাসক আবদুল কুদ্দুস খান, লহ্মীপুরের জেলা প্রশাসক আবুল বাশার মোঃ জহিরুল ইসলাম, বি-বাড়িয়ার জেলা জেলা প্রশাসক মোঃ আবদুল মান্নানসহ, ওই সব জেলার পুলিশ সুপার, নির্বাচন কর্মকর্তা, তথ্য কর্মকর্তা, র‌্যাব-১১ এর কোম্পানী কমান্ডার, বিডিআরের সেক্টর কামন্ডার ও আনসার- ভিডিপি ছাড়াও ওই জেলা সমূহের উপজেলা নির্বাহী ও নির্বাচন কর্মর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Check Also

লাকসাম-মনোহরগঞ্জের বিএনপি’র সাবেক এমপি আলমগীরের জাতীয় পার্টিতে যোগদান

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা-১০ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) বিএনপি’র সাবেক এমপি এটিএম আলমগীর জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেছেন। সোমবার জাতীয় ...

Leave a Reply