কুবিতে জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরামের কুমিল্লা মুক্ত দিবস উদ্যাপন

এম আহসান হাবীব :

জাতির সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নজিরবিহীন আত্মত্যাগ ও দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের বিনিময়ে ১৯৭১ সালের ৮ ডিসেম্বর বর্বর পাক হানাদার বাহিনীর রাহুগ্রাস থেকে মুক্ত হয় কুমিল্লা। কুমিল্লার সর্বস্তরের প্রিয় ও চিরস্মরণীয় এই দিনটিকে যথাযোগ্য মর্যাদায় স্মরণ এবং মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত চেতনা নতুন প্রজন্মের নিকট পৌঁছে দিতে দেশের খ্যাতনামা জাতীয় দৈনিক যায়যায়দিনের লেখক, পাঠক ও শুভানুধ্যায়ীদের সংগঠন জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার উদ্যোগে গতকাল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ঐতিহাসিক কুমিল্লা মুক্ত দিবস উদ্যাপিত হয়েছে। দিবসটি উদ্যাপন উপলক্ষে ফ্রেন্ডস ফোরামের উদ্যোগে ক্যাম্পাসে এক বর্ণাঢ্য বিজয় শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। শোভাযাত্রাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিন শেষে পুনরায় প্রশাসনিক ভবনের মূল ফটকের সামনে এসে সংক্ষিপ্ত আলোচনার মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয়। সামগ্রিক আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. আমির হোসেন খান। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কামাল উদ্দিন ভূইয়া, বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ও কাজী নজরুল ইসলাম হলের প্রভোস্ট জি এম মনিরুজ্জামান, ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যান আলী রেজওয়ান তালুকদার, অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক মোসাদ্দেক হোসাইন প্রমূখ। ফ্রেন্ডস ফোরাম কুুবি শাখার আহ্বায়ক শামীম আল আজিজ লেলিনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় সমাপনী বক্তব্য রাখেন ফ্রেন্ডস ফোরামের উপদেষ্টা দৈনিক যায়যায়দিন ও রূপসী বাংলার কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি এম আহসান হাবীব। পুরো কার্যক্রমে অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সেকশন অফিসার ও সাবেক তথ্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ নুরুজ্জামান, দৈনিক আমার দেশের কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি কামরুল হাসান, দৈনিক ইনকিলাবের কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি মাসুদ মুন্সী, দৈনিক ভোরের ডাকের প্রতিনিধি নাসির উদ্দিন, ফ্রেন্ডস ফোরাম কুবি শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক জিকরিয়া সিদ্দিকী জাকি ও শাখাওয়াত হোসেন সাজু, সদস্য নাজনীন আক্তার, মাহফুজ আলম, ফারজানা আক্তার জলি, কানিজ ফাতেমা, আনোয়ার হোসেন, তানজিনা ইসলাম তানিয়া, এ টি এম তৈয়্যব, আব্দুল্লাহ আল মামুন, মেহেদী হাসান শিহাব, নাসির উদ্দিন পাটোয়ারী, শহিদুল্লাহ, জিয়া, মাহবুবসহ আরো অনেকে। প্রধান অতিথি ড. আমির হোসেন খান তাঁর বক্তব্যে বলেন, মুক্তিযুদ্ধ বাঙালির চেতনার মূল প্রেরণা। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন এই দিনে অত্যাচারী পাক হানাদারদের কাছ থেকে কুমিল্লা পুরোপুরি মুক্ত হওয়ায় দিনটি কুমিল্লা তথা গোটা জাতির জন্য একটি গৌরবোজ্জ্বল দিন। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ছাত্রছাত্রীদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সঠিকভাবে জানার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আগামী প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বুকে ধারণ করে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করে যেতে হবে।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply