প্রশাসনের রহস্যজনক নিরবতায় কুমিল্লার শাসনগাছা এলাকা মাদকের স্রোতে ভাসছে

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী,কুমিল্লা থেকে :

ব্যাংক ও ট্যাংকের নগরী কুমিল্লায় ট্যাংকের অস্থিত্ব বিলীন হওয়ার পথে হলেও বিগত ৫/৬ বছর ধরে কুমিল্লায় আমদানি নিষিদ্ধ ঘোষিত মাদকদ্রব্যের প্রবল স্রোত বয়ে যাচ্ছে জেলার প্রতিটি অলি-গলিতে। আর সেই মাদকে অবগাহন করে সর্বনাশা পথে পা বাড়াচ্ছে আবাল হতে বৃদ্ধরা। শহরে দিনদিন মাদকের প্রসার ঘটতে থাকলেও প্রশাসনের রহস্যজনক নিরবতায় মাদকব্যবসায়ীরা সর্বনাশা এই মাদক বিক্রি করে হচ্ছে মোটা অংকের মালিক। আর বিপদগামী হচ্ছে আগামী দিনের আলোকবর্তিকা উত্তোলনকারীরা। আর এইভাবে চলতে থাকলে দেশ অন্ধকারে নিমজ্জিত হবে।

কুমিল্লা শহরের প্রায় শতাধিক মাদক বিক্রির স্পটের মধ্যে অন্যতম হল রেলষ্টেশন সংলগ্ন শাসনগাছা এলাকাটি। প্রশাসন রহস্যজনক ভুমিকা পালন করায় কুমিল্লার শাসনগাছা এলাকা এখন মাদকের তীর্থভূমিতে পরিণত হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক গুরুত্বর্পূণ সূত্র জানায়, আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর কতিপয় অসৎ কর্মকর্তাদের ম্যানেজের মাধ্যমে একাধিক মাদকব্যবসায়ীর সিন্ডিকেট শাসনগাছা এলাকায় তাদের আধিপত্য কায়েম করে চলেছে।

সূত্রমতে,কুমিল্লা শহরের শাসনগাছা রেললাইনের পশ্চিম পাশের বস্তিতে মাদক বেচা-কেনার কাজটি নিয়ন্ত্রন করছে কুখ্যাত মাদক সম্রাট একাধিক মামলার আসামী নান্নু। কুখ্যাত এ মাদক সম্রাটের নিজ গ্রাম মন্দবাগ রেলওয়ে ষ্টেশন হতে ২০/৩০ গজ দুরে ভারত সীমান্ত পিলার সংলগ্ন স্থানে। সেই সুবাদে নান্নু খুব সহসায় হাতের নাগালে ভারতের নিষিদ্ধ ঘোষিত ফেনসিডিল, গাজা, হেরোইন, মদ, হুস্কি, বিয়ার সহ বিভিন্ন মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থেকে ঢাকা সহ সারা দেশে লক্ষ লক্ষ টাকার মাদক পাচার করছেন। এলাকাবাসি জানায়, নান্নুর গ্রামের বাড়ী হতে মাদক ব্যবসার প্রসার ঘটানোর জন্য শহরের শাসনগাছা রেললাইনের পশ্চিম পাশে বাড়ী করেন এবং গড়ে তোলেন বিশাল এক চোরাচালানী ব্যবসার সিন্ডিকেট । এছাড়াও, কুমিল্লা জেলার বিভিন্ন স্থানে সে একাধিক মাদক স্পট পরিচালনা করছে। সে মাদক ব্যবসা পরিচালনার জন্য ৩ মাদক সম্রাঙ্গী মহিলাকে বিয়ে করেন। এদের পরিবারের প্রায় সবাই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। স্থানীয়রা আরো জানায়, নান্নুর এ ব্যবসায় যেন কেউ প্রতিবাদ করতে না পারে সে জন্য একটি প্রভাবশালী মহলকে নিয়ে গড়ে তুলেছে বিশাল এক সন্ত্রাসী সিন্ডিকেট। তার এই সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে এলাকাবাসী টু শব্দটি পর্যন্ত করার সাহস পায় না। নান্নু দম্ভে^র সাথে বলে বেড়ায় তার নাকি উপর প্রশাসনের মহলের সাথে ভালো হাত রয়েছে। তার ব্যবসায় কেহ প্রতিবাদ করলে খুন-খারাপী সহ মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানী করার হুমকি দিয়ে থাকে। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক সূত্রে জানা যায়, মাদক সম্রাট নান্নুর ছেলে সুমন (২২) কে পুলিশ রিকোডেক্স সহ আটক করে মাদক আইনে গত রবিবার কোর্ট হাজতে প্রেরণ করেন। এমতাবস্থায় এলাকাবাসী নান্নুর এই অত্যাচারের হাত হতে রক্ষা পেতে ও মাদক মুক্ত সমাজ গড়তে আইনশৃংখলা বাহিনীর আশুহস্তক্ষেপ কামনা করছেন। এছাড়াও এই এলাকায় নান্নু ছাড়াও ফারুক,রেণু বিবির মত মাদক ব্যবসায়ীর প্রভাবে এলাকাবাসি ভীত-সন্ত্রস্ত। এ বিষয়ে বক্তব্য জানার জন্য কুমিল্লার পুলিশ সুপারের মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে মোবাইল সংযোগে পাওয়া যায়নি। (চলবে)

Check Also

কুমিল্লায় ডিবির অভিযানে ১৭ হাজার পিস ইয়াবাসহ ডাক্তার গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টারঃ- রাজধানীতে ইয়াবা পাচারকালে ১৭ হাজার ইয়াবাসহ গ্রেফতার হয়েছেন মো. রেজাউল হক (৪৫) নামের ...

Leave a Reply