চৌদ্দগ্রামে নারী লোভী মেম্বারের দৌরাত্ন :পুত্রবধুকে বাচাঁতে গিয়ে প্রাণ হারাল শশুর

কুমিল্লা, ১৫ নভেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডট কম) :

পুত্রবধুর ইজ্জ্বত রক্ষা করতে গিয়ে ইউপি মেম্বারের লাঠিত আঘাতে মোসলেম মিয়া নামে হতভাগ্য দিনমজুর এক বৃদ্ধার মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে নালঘর গ্রামের মুন্সিবাড়িতে রোববার রাতে এ ঘটনা ঘটে।নিহতের পরিবার সুত্রে জানা গেছে, রোববার রাত সাড়ে ১১ টায় মৃত কুনু মিস্ত্রীর ছেলে ও স্থানীয় শ্রীপুর ইউপি মেম্বার হারুনুর রশিদ ওরফে হারেছ মেম্বার(৪৮) পাশ্ববর্তী বাড়ির মোসলেম মিয়ার ছেলে স্বপনের ঘরের সামনে গিয়ে তার স্ত্রী আছিয়াকে ডাকাডাকি করে। টের পেয়ে স্বপন ও তার স্ত্রী ঘুম থেকে উঠে চিৎকার করলে মোসলেম মিয়াও ঘুম থেকে উঠে বাহিরে ঘরের যায়। মোসলেম মিয়া ছেলেদের ঘুমাতে বলে এবং হারেছ মেম্বারকে ডেকে বাড়ি থেকে বের করে দেয় । ছেলেরা ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করার পর পরই হারেছ মেম্বার মোসলেম মিয়াকে পিছন থেকে লাঠি দিয়ে আঘাত করলে সে মাটিতে লুটে পড়ে। চিৎকার শুনে তার ছেলে ও বাড়ির সবাই বেরিয়ে আসলে হারেছ মেম্বার পালিয়ে যায়। পরে লোকজন আহত অবস্থায় মোসলেম মিয়াকে তুলে ঘরে নেয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুল হাসান ও ইন্সপেক্টর মাহবুব আলম ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘাতক হারেছ মেম্বারকে আটক করে । লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে। এব্যাপারে চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি মামলা হয়েছে। ওই গ্রামের অনেকেই জানান, ঘাতক হারেছ মেম্বার দীর্ঘদিন ধরে ভিজিএফ-ভিজিডি কার্ড দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে এলাকার অসহায় হতদরিদ্র পরিবারের মহিলাদের শ্লীলতাহানি ও ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। আবার কেউ ধর্ষিত বা নির্যাতিত হলেও ভয়ে মুখ খুলতে চাইতনা । ইতোপূর্বে তার লালসার হাত থেকে রক্ষা পেতে জনৈক প্রবাসীর স্ত্রী দৌঁড় দিয়ে পালানোর সময় পা ভেঙ্গে যায়। প্রভাবশালীদের চাপে তার এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে কেউই ভয়ে কখনো মুখ খুলতে পারাতো না বলে অভিযোগ করেছেন। নিহত বৃদ্ধার ছেলে ও মেয়েরা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, নারী লোভীদের হাতে যেন আর কোন পিতাকে জীবন দিতে না হয়। তারা পিতার হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচার দাবী করেছেন।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply