জাতীয় চার নেতার হত্যার বিচারও বাংলার মাটিতে হবে- তিতাসে প্রধানমন্ত্রী

নাজমুল করিম ফারুক, তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি :

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের হত্যার বিচার যেমন বাংলার মাটিতে শেষ হয়েছে তেমনি জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাংলার মাটিতেই হবে গতকাল কুমিল্লার তিতাস উপজেলা ৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন শেষে তিতাস উপজেলা কমপ্লেক্স মাঠে এক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একথা বলেন। তিনি বলেন, আমি আমার বাবা-মা, ভাই-বোন হারিয়ে এদেশের মানুষের কাছে এসেছি কারণ আমার বাবা বাংলার মানুষকে ভালবাসতেন। তাহার স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যেই ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার কাজ আওয়ামীলীগ সরকার হাতে নিয়েছে। বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন প্রসংঙ্গে তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালে আমরা ক্ষমতায় থাকাকালীন এ প্রকল্পটি দাউদকান্দি নামে নিয়েছিলাম তখন তা ছিল ১০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র। তা পরবর্তীতে ৫০ মেগাওয়াটে উত্তীর্ণ করেছি। দেশের ৩০টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩টি শেষ হয়েছে বাকিগুলোর আগামী ২০১৩ সালের মধ্যে সমাপ্ত করা হবে। তার বাইরেও আরো ১০টি কেন্দ্র স্থাপনের জন্য কাজ চলছে। বিরোধী দলের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ২০০১ সালের পর এদেশে বিএনপি সরকার জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাস ও দুর্নীতির জন্ম দিয়েছে। যার ফলে দেশ আজ পিছিয়ে গেছে। কিন্তু আওয়ামীলীগ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। কৃষকদের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ৩০ লক্ষ মানুষের রক্তের বিনিময়ে এদেশ স্বাধীন হয়েছে এদেশের মানুষ সার চাইতে গিয়ে বুকে গুলি খেয়ে রক্ত দিতে হয়েছে। কিন্তু আমরা কৃষকদের জন্য ভর্তুকী দিয়ে আসছি। কৃষক যাতে তাদের ভর্তুকী ঠিক মতো পাইতে পারে তাহার জন্য ব্যাংক একাউন্টের ব্যবস্থা করেছি। শিক্ষার প্রসঙ্গ টেনে তিনি আরো বলেন, গরীব শিক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে প্রাথমিক পর্যায়ে বিনামূল্যে বই বিতরণ করা হচ্ছে, মাধ্যমিক পর্যায়েও বিনামূল্যে বই বিতরণ করা হবে। যে সব গ্রামে বিদ্যালয় নেই সে সমস্ত গ্রামে বিদ্যালয় স্থাপন করা হবে। মেয়েদের শিক্ষার কথা বিবেচনা করে উপবৃত্তি চালু করা হয়েছে। এদেশের কোন শিশু যেন তার মায়ের কুলে বিনা চিকিৎসায় মারা না যায় তার জন্য আমরা ২০০১ সালে কমিউনিটি ক্লিনিক চালু করেছিলাম কিন্তু দুঃখের বিষয় জোট সরকার ক্ষমতা এসে এসব ক্লিনিককে মদ, গাজা ও জুয়ার আস্তানা হিসাবে গড়ে তুলেছিল। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার আবার পূর্ণরায় সেই সব ক্লিনিক চালুর পাশাপাশি ইতিমধ্যে ডাক্তার নিয়োগ দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে। দেশের রাস্তা-ঘাট, আইন শৃঙ্খলার উন্নতি হয়েছে। বেকার যুককদের কর্মসংস্থানের জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে। তারা যাতে জামানত ছাড়া ঋণ নিয়ে স্বনিরর্ভর হতে পারে সেই ব্যবস্থা করা হয়েছে। ১৯৯৬ সালে আমরা ক্ষমতায় থাকাকালীন ৫০ হাজার পরিবারকে বাসস্থানের ব্যবস্থা করেছি এবারও আরো ৫০ হাজার পরিবারকে পূর্ণবাসনের ব্যবস্থা করবো। তিনি তিতাসবাসীর দাবী প্রসঙ্গে বলেন, খুব শীঘ্রই গৌরীপুর-হোমনা সড়কের জিয়ারকান্দি ব্রীজটি নির্মাণ করা হবে। গোমতী, তিতাস ও মেঘনা নদী খনন করে নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনা হবে এবং তিতাসে একটি ষ্টেডিয়াম নির্মাণ করা হবে। তিনি সর্বশেষ বাংলার মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য দুঃখী মানুষের মুখে হাঁসি ফোটানোর জন্য জনগণের সহযোগিতা কামনা করেন।

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুল আউয়াল সরকারের সভাতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিদ্যু ও জ্বালানী প্রতিমন্ত্রী বিগ্রেডিয়ার (অবঃ) এনামুল হক, বিদ্যুৎ ও জ্বালানী উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই এলাহি চৌধুরী, কুমিল্লা (উত্তর) জেলা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাবেক সভাপতি আলী আশ্রাফ এমপি, বিদ্যু জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেজর জেনারেল (অবঃ) সুবিদ আলী ভূঁইয়া এমপি, কুমিল্লা সদর আসনের আ.খ.ম বাহার উদ্দিন বাহার এমপি, জাতীয় সংসদের হুইপ মজিবুল হক মজিব এমপি, সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি অধ্যক্ষ যোবেদা খাতুন পারুল, এ.বি.এম গোলাম মোস্তফা এমপি, তিতাস-হোমনা সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি আশরাফুন নেছা মোশারফ, কুমিল্লা (উত্তর) জেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক সফিকুল ইসলাম সফিক, কুমিল্লা (উত্তর) জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ এম হুমায়ুন মাহমুদ, কুমিল্লা (উত্তর) জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শ্রী বাদল রায়, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহাম্মদ হোসেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা সফিক রায়হান, হোমনা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ, আওয়ামীলীগ নেতা মাহবুবুর রহমান, তিতাস উপজেলা আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক তফাজ্জল হোসেন ভূঁইয়া, তিতাস উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা আলাউদ্দিন মাষ্টার, তিতাস উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য সচিব দেওয়ান মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, কুমিল্লা (উত্তর) জেলা যুবলীগের সভাপতি সোহেল মোস্তফা স্বপন, ঢাকা দক্ষিণ ছাত্রলীগের সভাপতি আনিছুর রহমান, কুমিল্লা (উত্তর) জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সারওয়ার হোসেন বাবু। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন কুমিল্লা (উত্তর) জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম সরকার।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply