‘‘অনুমতি ও পাস ছাড়া হজ্ব নয়’’অবৈধ হাজীদের রুখতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যাবস্হা – প্রিন্স খালেদ আল-ফয়সাল


মফিজুলইসলাম চৌধুরী, রিয়াদ সৌদিআরব :
১৮০ দেশের ৭৫ টি হজ্ব মিশনের মাধ্যমে মিলিয়ন হাজীর সমাগম হতে যাচেছ পবিত্র মক্কায়।আর পবিত্র ণগরীতে সম্পন্ন করা হয়েছে হজ্ব পালনের সমস্ত কায্যাদি গত রবি বার এক কনফারেন্সে এমনটি বললেন সৌদিআরবের হজ্ব মন্ত্রী ফুয়াদ আলফারসী।চলতি ২০১০ সালে রেকর্ড সংখক ৪ মিলিয়ন ওমরা পালনকারীর অংশ গ্রহনও ছিল উল্লেখ যোগ্য ।পবিত্র মক্কা নগরীর গবর্নর প্রিন্স খালেদ আল-ফয়সাল গত শনিবার তৃতীয় দফায় অধিকতর হজ্ব সচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শুরু করেন। তিনি বিদেশী হজ্ব মিশনের প্রতি তাদের হাজীদের নিরাপত্তা বিষয়ক দিক নির্দেশনা এবং সৌদি আরবের নিয়ম-কানুন মেনে চলা নিশ্চিত করতে আরো বেশি কিছু করার আহবান জানিয়েছেন।দুই বছর আগে মিডিয়া প্রচারাভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে প্রকাশ্য স্থানে বসবাসকারী অবৈধ হাজী বিশেষ করে যারা মক্কার বাইরে থেকে আসেন তাদের সংখ্যা শতকরা ৭ ভাগ হ্রাস পেয়েছে। মিডিয়ায় প্রচারাভিযানের ফলে সফলভাবে এই হ্রাস হয়েছে।
এতদসত্ত্বেও হজ্ব সার্ভিস কোম্পানিগুলো ক্রমবর্ধমানহারে ২ হাজার থেকে ১০ হাজার সৌদি রিয়াল চার্জ আরোপ করায় সৌদি কর্মচারী সাকের আন্দাবী তার আতঙ্কের কথা উল্লেখ করে জানান, ‘‘অনুমতি ছাড়া হজ্ব নয়’’ অভিযান ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আন্দাবি আরব নিউজকে জানান, এই চার্জ অতিরিক্ত হওয়ায় বহুলোক বিশেষ করে সেসব সৌদি নাগরিক এবং অভিবাসী তাদের পরিবার নিয়ে পবিত্র হজ্ব পালন করতে চান তারা তাতে সমর্থ হবেন না।
যুবরাজ খালেদ বলেন, যত্রতত্র বা প্রকাশ্য স্থানে অবৈধ হাজীদের ঝোঁক প্রবণতার অবসানে সরকার আসন্ন বছরগুলোতে এই প্রচারাভিযান অব্যাহত রাখবে। গবর্নর সমাবেশে বলেন, সরকারের হজ্ব পরিকল্পনার সফল বাস্তবায়নের উপর এই হজ্ব অনুমোদন ব্যবহারের বিষয়টি বড় প্রভাব পড়বে। সমাবেশে হজ্ব মন্ত্রী ফুয়াদ আল ফারসীও যোগ দেন। তিনি আরো বলেন, এটা হজ্ব পালনকারী লোকের প্রকৃত সংখ্যা জানতে সহায়তা করবে এবং তাদের আবাসনের জন্য প্রস্তুতি, খাদ্য ও পরিবহনের বিষয়টিও জানতে সহায়তা করবে। যুবরাজ খালেদ হজ্ব পরিচালনা বড় সফলতায় সংশ্লিষ্ট সকল কর্মচারী ও কর্মকর্তা বিশেষ করে হজ্ব মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ জানান।
গবর্নর হাজীদের প্রতি ধর্মীয় আচার, অনুযায়ী প্রার্থনা ও একাগ্রতায় মনোযোগী হওয়া এবং সৌদি আরবের নিয়ম-নীতি মেনে চলার আহবান জানান।
তিনি বলেন, এই নিয়ম-নীতি হাজীদের সুবিধার জন্যে করা হয়েছে এবং তাদের উপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়নি। যুবরাজ খালেদ স্বীকার করেন পবিত্র হজ্ব একটি সহজ কাজ নয় এই সময় থেকে প্রকাশ্য স্থানে বসবাসকারী অবৈধ হাজীদের সরিয়ে দেয়া হচ্ছে। অভ্যন্তরীণ হজ্ব সফল আয়োজনকারী আব্দুল আজিজ আল রশিদ পবিত্র স্থানগুলোতে যাওয়ার পূর্বে হজ্ব অনুমোদন লাভের প্রয়োজনীয়তা সংক্রান্ত জনসাধারণকে অবহিত করতে সৌদি আরবে ব্যাপক প্রচারাভিযান চালানোর আহবান জানান। তিনি হাজীসহ হজ্ব পরিচালনাকারীদের ক্ষতি না হয় এমনভাবে হজ্ব সার্ভিসের ভাড়া ভারসাম্যপূর্ণ করার আহবান জানান। তিনি নিম্নহারে শিবির স্থাপন করার আহবান জানান যাতে করে বিপুল সংখ্যক হাজী সেখানে বসবাস করতে পারেন। এসব শিবিরগুলো হজ্ব ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধান করা উচিত বলেও তিনি জানান। সৌদি তথ্যমন্ত্রী আব্দুল্লাহ আলখোজা বলেন,বিভিন্ন ভাষাভাষি হাজীদের সেবা দিযে তাদের পবিত্র ইবাদত পালনে সহযোগিতার জন্য প্রস্তুত মক্কা।দুইটি ভিন্ন কনফারেন্সে তারা এই মন্তব্য করেন।

Check Also

রিয়াদে জ্যাবের ‘অমর একুশে’ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

ষ্টাফ রির্পোটার :– “অমর একুশের চেতনায় গন মানুষের মনে জেগে উঠুক উজ্জলতা উৎকৃষ্টতা” শীর্ষক আলোচনা ...

Leave a Reply