কুমিল্লা সরকারি কলেজে বাবু ভাই….

শফিকুল ইসলাম শফিক, কুমিল্লা সরকারী কলেজ থেকে::
২৫ সেপ্টেম্বর, রাত ৯টা। হঠাৎ ফোন বেজে উঠল। স্ক্রীনে মুনিফ ভাই’র নাম। ওপার থেকে ভেসে এলো, আগামী জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম’র বিভাগীয় সম্পাদক জ্যোতিশ সমাদ্দার বাবু ভাই সরকারি কলেজে যাবেন। চমকে উঠলাম। সংবাদটা আনন্দের কিন্তু ভাবনারও। কলেজে পরীক্ষা চলছে। এ সময়ে সব বন্ধুদের একসাথে করা অনেক কষ্টকর। কিন্তু বাবু ভাই কলেজে আসবেন, অন্তত কাছের বন্ধুদের তো উপস্থিত করাতেই হবে। ফোন করার কাজে মন দিলাম। একে একে ফোন করলাম সদস্য সচিব বন্ধু শিমুল, যুগ্ম আহবায়ক আল আমিন, রাসেল, রুবেল, পৃথা, মাহমুদ…..সব বন্ধুদের। কেউ কেউ তৃতীয় হাত, অর্থাৎ বিভিন্ন অজুহাত দেখাতে লাগলো। তবে খুশি হলো অনেকেই।
রাতে ভালো ঘুম হলো না। কলেজে চলে গেলাম খুব সকালে। সবার সাথে আবারো যোগাযোগ করতে চেষ্টা করলাম। কেউ কেউ চলেও এলো। যাযাদি’র স্টাফ রিপোর্টার নুরু ভাই ফোন দিলেন। জানিয়ে দিলেন কিছুণের মধ্যেই বাবু ভাই কলেজে যাবেন। ততোণে অনেক বন্ধুরাই চলে এলো।
বেলা তখন ১১টা। কুমিল্লা ফ্রেন্ডস ফোরাম’র সদস্য সচিব মুনিফ আম্মার বাবু ভাইকে নিয়ে কলেজে প্রবেশ করলেন। বন্ধুরা স্বাগত জানালো সবাই।
বাবু ভাই প্রথমেই গেলেন কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. একেএম আছাদুজ্জামানের কক্ষে। অধ্যক্ষের সাথে নানা আলাপচারিতায় কেটে গেল অনেকণ। চললো চায়ের পর্বও।
বন্ধুরা অপেমান অনার্স ভবনের নীচতলায়। বাবু আসতেই আনন্দে উদ্বেলিত হলো সবাই। বয়স, শ্রেণীর ব্যবধান ভুলে বাবু ভাই’র সাথে মেতে উঠলাম সীমাহীন আনন্দ কথায়। আর দুখের কথাও বিনিময় হলো বাবু ভাই’র সাথে। জম্পেশ আড্ডা হলো। কথায় কথায় অনেক কথা হলো। পেরিয়ে গেল অনেক সময়। ওদিকে বাবু ভাই’রও তাড়া। ঢাকায় ফিরতে হবে। কেন্দ্রীয় ফ্রেন্ডস ফোরাম’র সভায় যোগ দিতে হবে। আমরাও তাই আর দেরি করলাম না। যদিও মন চাইছিল বাবু ভাই’র সাথে অনেক অনেক কাটিয়ে দিই। সরকারি কলেজের যে বন্ধুরা আমাদের সাথে সেদিনের আড্ডায় ছিল, তারা হলো-মৌসুমী, আফসানা, শিবলী, পৃথা, লিপি, নিপা, মিশু, রোকন, রাসেল, রুবেল, ছোটন, মনির, নাজিম, মনজু, লিজাসহ আরো অনেক বন্ধু।

Check Also

দেবিদ্বারে অগ্নিকান্ডে ১কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

দেবিদ্বার প্রতিনিধিঃ– কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ফতেহাবাদ ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামে রান্না ঘরের গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরনে ১৫টি ...