শ্রীমঙ্গলে চালককে হত্যা করে ছিনতাইকৃত মাইক্রোবাস বরুড়ায় উদ্ধার::উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ৩

কুমিল্লাওয়েব ডটকম নিউজ:::
ঘটনার সূত্রপাত ২৮ সেপ্টেম্বর মৌলভী বাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলা থেকে, অবশেষে ৭ অক্টোবর বুধবার এর যবনিকাপাত হলো কুমিল্লার বরুড়া উপজেলায়। চালককে খুন করে মাইক্রেবাস নিয়ে আসা হয় বরুড়া উপজেলার সদরে, আর পুলিশি অভিযানে এর হদিস মিলে খোদ সেই উপজেলার পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানের বাড়িতে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি করেছে। তাই পুলিশ বরুড়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সোলায়মান পাটোয়ারী মন্টিসহ ৩ জনকে গত বুধবার গভীর রাতে গ্রেফতার করেছে। মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানা এলাকা থেকে চালককে হত্যা করে একটি মাইক্রোবাস ছিনতাইয়ের ঘটনায় পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতার অভিযান চালায়। বৃহস্পতিবার সকালে গ্রেফতারকৃত উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ অপর ২ জনকে নেয়া হয়েছে শ্রীমঙ্গল থানায়।
বরুড়া থানার ওসি আবু সালাম চৌধুরী জানান, শ্রীমঙ্গলের সিন্দুনগর গ্রামের মহসিন নামের এক মাইক্রো চালককে হত্যা করে যাত্রীবেশী ছিনতাইকারীরা গত ২৮ সেপ্টেম্বর একটি মাইক্রেবাস (ঢাকা মেট্রো-চ-১৪-০৭৭) ছিনিয়ে নেয়। বুধবার পুলিশ হবিগঞ্জের চুনারুঘাট থানার শাহজিবাজার এলাকার রাস্তার পার্শ্ব থেকে ওই মাইক্রোচালকের গলিত লাশ উদ্ধার করে। এদিকে, মোবাইল ট্রেকিং ও বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মৌলভীবাজার জেলা পুলিশের সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ আলমগীরের নেতৃত্বে শ্রীমঙ্গল ও বরুড়া থানা পুলিশ বুধবার গভীর রাতে কুমিল্লার বরুড়া থানা এলাকায় যৌথ অভিযান চালিয়ে প্রথমে বরুড়ার কাজী বাড়ির মিজান মিয়ার ছেলে আজম ও একই উপজেলার লতিফপুর গ্রামে ভাড়ায় বসবাসকারী গোপালগঞ্জ জেলার গোপালনগর গ্রামের শাহজাহান মিয়ার ছেলে সুমনকে আটক করে। তাদের দেয়া স্বীকারোক্তি মতে পুলিশ ওই রাতেই বরুড়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সোলায়মান পাটোয়ারী মন্টির উপজেলা সদরের বাড়িতে অভিযান চালায়। এসময় পুলিশ তার বাড়ি থেকে ছিনতাই হওয়া মাইক্রেবাসটি উদ্ধার করে এবং ভাইস চেয়ারম্যান মন্টিকে আটক করে। বৃহস্পতিবার সকালে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ কড়া প্রহরায় গ্রেফতারকৃতদের বরুড়া থানা থেকে শ্রীমঙ্গলে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার ওসি মোঃ আবদুল্লাহ বৃহস্পতিবার মোবাইল ফোনে জানান, এ ঘটনায় গ্রেফতারকৃতদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। বরুড়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মন্টির গ্রেফতারের ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। বুধবার রাতে তার বাড়িতে রাখা গাড়িটি কে বা কারা রেখেছিল তা’ তার পরিবারের কেউ জানতো না এবং ওই ঘটনার সাথে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের কোন সম্পৃক্ততা নেই বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়। তবে ওই ভাইস চেয়ারম্যান কি ওই চোরাই গাড়িটি ক্রয় করেছিলেন, নাকি ছিনতাইকারীদের সাথে তার কোন সম্পৃক্ততা ছিল কিংবা সবার অজান্তেই নিরাপদ ভেবে ছিনতাইকারী চক্র কৌশলে ষেকানে গাড়ি রেখেছিল এসব বিষয় খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

Check Also

মিনি ওয়াক-ইন-সেন্টারের মাধ্যমে রবি’র গ্রাহক সেবা সম্প্রসারণ

ঢাকা :– গ্রাহক সেবাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে মোবাইলফোন অপারেটর রবি আজিয়াটা লিমিটেড সম্প্রতি মিনি ওয়াক ...