অযোধ্যা বিতর্কের রায় দিয়েছে এলাহাবাদ হাইকোর্ট : তিন ভাগ হচ্ছে বাবরি মসজিদের জমি


ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ৩০ সেপ্টেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম) :
অযোধ্যা কমপে�ক্সের জমি বৃহস্পতিবার হিন্দু ও মুসলিমদের মধ্যে ভাগাভাগির রায় দিয়েছে ভারতের এলাহাবাদ হাইকোর্ট। স্থানীয় টেলিভিশন এবং হিন্দু আইনজীবীরা একথা জানিয়েছে।তবে তিন মাসের জন্য মালিকানা বণ্টনে স্থিতি বজায় থাকবে বলে আদালতের রায়ে বলা হয়।
এনডিটিভি জানায়, রায়ে বাবরি মসজিদ এলাকার জমি হিন্দু ও মুসলিমদের মধ্যে ভাগ করা হয়েছে। দুই-তৃতীয়াংশ জমি পাচ্ছে হিন্দুরা। আর মুসলিমরা পাচ্ছে এক তৃতীয়াংশ জমি। স্থানীয় টেলিভিশন একথা জানিয়েছে। তবে টেলিভিশনের এ খবর নিশ্চিত করেনি আদালত।
বার্তা সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, বিতর্কিত জমিটি তিনভাগে ভাগ করার রায় হয়েছে। এ জমি সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, নির্মোহি আখড়া এবং রাম লালা গোষ্ঠীর মধ্যে ভাগ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে আদালত।
বিচারকরা মেনে নিয়েছেন যে, ঐ চত্বরের একটি জায়গা হিন্দু দেবতা রামের জন্মস্থান ৻ গরিষ্ঠসংখ্যক বিচারকের সমর্থনে আদালত এই রায় দেয় ৻ রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আপিল করা যাবে ৻ ভারতের প্রধানমন্ত্রী মানমোহন সিং সহ রাজনৈতিক নেতারা রায় ঘোষণার আগেই উভয় সম্প্রদায়ের প্রতি শান্ত থাকার এবং আদালতে রায় মেনে নেবার আহ্বান জানিয়েছিলেন৻
ওদিকে, হিন্দু আপীলকারীদের আইনজীবী শংকর প্রসাদ সাংবাদিকদের বলেছেন, বেঞ্চের বেশির ভাগ সদস্য বিতর্কিত জায়গাটি রামের জন্মস্থান ছিল বলে রায় দিয়েছে।
এলাহাবাদ হাইকোর্টের এ রায়ের বিরুদ্ধে আপীল করবেন বলে জানান সুপ্রিম কোর্টে মুসলিম স�প্রদায়ের আইনজীবী জাফারিয়েব জিলানি । তিনি বলেন, রায়টির মধ্য দিয়ে আমরা বিতর্ক নিরসনে একধাপ এগিয়েছি। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টে এর বিরুদ্ধে আপীল করা হবে। এপি বার্তা সংস্থা এ খবর জানিয়েছে।উভয় ধর্মীয় স�প্রদায়ের নেতারা এ রায়ে জনগণকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

বাবরি মসজিদের জায়গা নিয়ে হিন্দু-মুসলমান স�প্রদায়ের মধ্যে কয়েক শতক ধরে বিরোধ রয়েছে। জায়গাটিকে তাদের দেবতা রামের জস্মস্থান বলে দাবি করে আসছে হিন্দু স�প্রদায়। ১৯৯২ সালে উগ্র হিন্দুরা বাবরি মসজিদ ভেঙে ফেললে ভারতজুড়ে হিন্দু-মুসলমান দাঙ্গা শুরু হয়। সে দাঙ্গায় ২ হাজার মানুষ নিহত হয়।
কর্মকর্তারা বলছেন, আজ রায় ঘোষণার আগে উত্তর প্রদেশ রাজ্যসহ গোটা দেশজুড়েই নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে৻ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি. চিদাম্বরাম গতকাল বলেছেন, উত্তর প্রদেশ রাজ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর প্রায় দু‘লাখ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে৻ বিতর্কিত জায়গাটিতে বিমান থেকে নজরদারি চালানো হচ্ছে ৻ নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে বাড়তি কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেট সরবরাহ করা হয়েছে ৻ দোকানপাট বন্ধ হয়ে গেছে ৻
প্রধানমন্ত্রী মানমোহন সিং, কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী এবং প্রধান বিরোধী দল বিজেপিসহ সব পক্ষ থেকেই সাধারণ মানুষের প্রতি শান্ত থাকার আহবান জানানো হয়েছে৻
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, কিছু প্ররোচনামূলক এসএমএস মোবাইল ফোনে পাঠানো হচ্ছিলো বলে আগে থেকেই বেশি মাত্রায় এসএমএস পাঠানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিলো৻ সেই নিষেধাজ্ঞা এখনও বলবৎ রয়েছে৻
-সূত্র: দ্যা টাইমস অব ইন্ডিয়া, এনডিটিভি, পিটিআই, বিবিসি

Check Also

রিয়াদে জ্যাবের ‘অমর একুশে’ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

ষ্টাফ রির্পোটার :– “অমর একুশের চেতনায় গন মানুষের মনে জেগে উঠুক উজ্জলতা উৎকৃষ্টতা” শীর্ষক আলোচনা ...

Leave a Reply