বাংলাকে জাতিসঙ্ঘের দাপ্তরিক ভাষা করার আহ্বান শেখ হাসিনার


ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ২৬ সেপ্টেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম) :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসঙ্ঘের অন্যতম দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে বাংলাকে অন্তর্ভুক্ত করার আহবান জানিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি বিশ্ব শান্তি ও সমৃদ্ধি অর্জনের মাধ্যমে নতুন বিশ্ব গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। শনিবার বাংলাদেশ সময় রাত আড়াইটার দিকে নিউইর্য়কে জাতিসঙ্ঘে সাধারণ পরিষদের ৬৫তম অধিবেশনে দেয়া ভাষণে বিশ্ব নেতাদের প্রতি এ আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী।
বাংলাকে জাতিসঙ্ঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে গ্রহণ করার যুক্তিতে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিশ্বের প্রায় ৩০ কোটি মানুষ আজ বাংলায় কথা বলেন। এ ভাষার রয়েছে সমৃদ্ধ ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং সাহিত্য। ২১শে ফেব্রুয়ারি ইউনেস্কো কর্তৃক আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের মাধ্যমে বাংলাদেশের ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান দেয়া হচ্ছে।এজন্য বাংলাকে দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে গ্রহণ করার অনুরোধ জানাচ্ছি।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিতে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক ক্ষতির কথা উল্লেখ করে বলেন, এর ফলে দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, আবাসন ও জীব বৈচিত্র্য হুমকির মুখে। এই হুমকি মোকাবিলায় গঠিত তহবিলে বিশ্ব সম্প্রদায়কে উদার হাতে অনুদান প্রদানের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এতে বাংলাদেশ তার টিকে থাকার সংগ্রামে সফল হতে পারে।
ভাষণের শুরুর দিকে তিনি বলেন, ‘৩৬ বছর আগে জাতির পিতা এবং সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্থপতি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই মঞ্চে দাঁড়িয়ে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠা ও মানবতার সেবায় জাতিসঙ্ঘের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কথা উল্লেখ করেছিলেন। এরপর দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেছে। কিন্তু আজও জাতিসঙ্ঘ সারা বিশ্বের বিপন্ন মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণের শেষ ঠিকানা হিসাবে কাজ করে যাচ্ছে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার জাতিসঙ্ঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে বিশ্ব শান্তি ও নিরাপত্তা বজায় রাখতে আন্তরিকতার প্রমাণ দিয়েছে। ১৯৮৮ সালে শুরু করে আজ পর্যন্ত বাংলাদেশ ২৪টি দেশে ৩২টি মিশনে ৯৭ হাজার সৈন্য প্রেরণ করেছে। ‘এসব শান্তি মিশনে আমরা বাংলাদেশের ৯২ জন বীর সৈনিককে হারিয়েছি। বাংলাদেশ এখন জাতিসঙ্ঘ শান্তিরক্ষা মিশনে সর্বোচ্চ সেনা প্রেরণকারী দেশ।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, খাদ্যনিরাপত্তা, আবাসন ও জীব বৈচিত্র্য আজ হুমকির মুখে। বন্যা, খরা, সাইক্লোনের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ মানুষের ক্ষতি করছে। কার্বন-ডাই-অক্সাইড নিঃসরণের কারণেই এ অবস্থা। বাংলাদেশ এক্ষেত্রে দায়ী না হয়েও মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। ফলে সহস্রাব্দের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন আজ কঠিন চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয়েছে। তবে বাংলাদেশ এই ক্ষতি মোকাবিলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এই দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য ১৩৪টি কর্ম পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন নদ-নদীর ড্রেজিং, ক্ষতিগ্রস্ত জনগণের পুনর্বাসনের জন্য চাষযোগ্য জমি পুনরুদ্ধার এবং খাদ্য উৎপাদনের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা। এ ছাড়াও রয়েছে কার্বন আধার তৈরি। ২০১৫ সালের মধ্যে ২০ শতাংশ জমিকে বনায়নের আওতায় আনা এবং সবুজ বেষ্টনী সৃষ্টির মাধ্যমে সমুদ্র উপকূল রক্ষা করা। আমরা জনগণকে সম্পৃক্ত করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা আধুনিকায়নের উদ্যোগ নিয়েছি। পাশাপাশি, পরিবর্তিত জলবায়ুর সঙ্গে খাপ খায় এমন ধরনের শস্যের জাত উদ্ভাবনে গবেষণার কাজ করে যাচ্ছি। দুর্যোগকালীন আশ্রয়ের জন্য সমুদ্র উপকূলে ইতোমধ্যে ১৪ হাজার আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। আরো আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। এজন্য প্রয়োজন বিপুল পরিমাণ অর্থের।
তিনি বিশ্ব সম্প্রদায়কে উদার হাতে অনুদান প্রদানের আহ্বান জানান যাতে বাংলাদেশ তার টিকে থাকার সংগ্রামে সফল হয়
শেখ হাসিনা বলেন, স্বল্পোন্নত দেশগুলো নিজ দেশের বেকার সমস্যার পাশাপাশি বিদেশে চাকরির ক্ষেত্রেও অভিবাসন বাধার সম্মুখীন হচ্ছে। এসব দেশের জাতীয় আয়ের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ আসে রেমিটেন্স থেকে। এজন্য তাদের অর্থনৈতিক উন্নয়ন নিশ্চিত করতে উন্নত দেশগুলোতে অভিবাসীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ নিশ্চিত করতে হবে। অভিবাসী শ্রমিকদের অধিকার রক্ষার উদ্যোগ নিতে হবে।

Check Also

রিয়াদে জ্যাবের ‘অমর একুশে’ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

ষ্টাফ রির্পোটার :– “অমর একুশের চেতনায় গন মানুষের মনে জেগে উঠুক উজ্জলতা উৎকৃষ্টতা” শীর্ষক আলোচনা ...

Leave a Reply