মুরাদনগরে ছাত্রলীগের কমিটি বাতিলের দাবিতে সভাপতি ও সম্পাদকসহ ৫৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা


স্টাফ রিপোর্টার :
মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সদ্য ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবিতে কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপন, সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, কুমিল্ল¬া উত্তর জেলা কমিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার বাবুসহ ৫৫ জন নেতার বিরুদ্ধে মামলা (যার নং-৮০) করা হয়েছে। বুধবার কুমিল্লার মুরাদনগর সহকারী জজ আদালতে এ মামলা করেছেন মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী আশিকুল ইসলাম। অপর আসামীরা হলেন- মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সদ্য ঘোষিত কমিটির ৫১ সদস্য। ওই কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়ে ৭ দিনের সময় চেয়ে গত ২৯ আগস্ট জেলা কমিটিকে উকিল নোটিশ দেন আশিকুল ইসলামের পক্ষে কুমিল্ল¬া জজকোর্টের এডভোকেট নুরুল আবছার মিজান। এ ব্যাপারে সদয় অবগতির জন্য ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে কপিও দেয়া হয়েছিল। উকিল নোটিশের জবাব না পাওয়ায় আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হন বলে মামলার বাদী ও মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী আশিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।
জানা যায়, ১৬ আগষ্ট সোমবার রাতে কুমিল্ল¬¬া উত্তর জেলা ছাত্র লীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার বাবু’র স্বাক্ষরিত এক পত্রে মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে সৈয়দ রাজিব আহাম্মদকে সভাপতি, আনোয়ার হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক ও রুহুল আমিনকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়।
মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন ছাড়াই কমিটি ঘোষণা নিয়ে দলের মধ্যেই চরম অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের মাঝে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়। তারা ওই পকেট কমিটি বাতিল করে অবিলম্বে দলীয় গঠনতন্ত্রের আলোকে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠন করার দাবি জানান। পোড় খাওয়া ছাত্র নেতারা অছাত্র ও বিবাহিতদের ছাত্রলীগ কমিটিতে অন্তর্ভূক্ত করায় মূল দলেও এর বিরূপ প্রভাব পড়েছে বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আ’লীগ ও যুবলীগের কতেক নেতা। এ নিয়ে দলীয় অঙ্গণে ক’দিন ধরে রীতিমত তোলপাড় চলছে। এ কমিটিকে অবৈধ ও মনগড়া পকেট কমিটি বলে দাবি করছেন অনেকে। ঘোঘিত কমিটির সভাপতি সৈয়দ রাজিব আহাম্মদের বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজী ছাড়াও অনেকের বিরুদ্ধে রয়েছে অছাত্র ও বিবাহিত হওয়ার অভিযোগ। সাংগঠনিক বিধি বহির্ভূতভাবে করা ওই কমিটির কতেক সদস্যের সন্তানাদিও রয়েছে বলে জানায় তারা। যেখানে সম্মেলন করা হয় না এবং উপজেলা ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগ এবং আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সংগঠনগুলোর অধিকাংশ নেতা-কর্মী এ বিষয়ে কিছুই জানেন না, সেখানে গঠনতন্ত্রকে পাশ কাটিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি কি উদ্দেশ্যে বা কার স্বার্থে গঠন করা হলো তা’ প্রশ্নবোধক।
এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি নাছির উদ্দিন শিশির বলেন, গঠনতন্ত্র মোতাবেক ইউনিয়ন সম্মেলনের পর ইউনিয়ন সভাপতি ও সম্পাদকরা উপজেলা সম্মেলনে ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে উপজেলা কমিটি গঠন করার কথা। তা’ অনুসরণ না করলে সে কমিটি হবে অবৈধ। কোন অছাত্র, বিবাহিত ও ব্যবসায়ীসহ অভিযুক্ত কোন ব্যাক্তি ছাত্রলীগের কমিটিতে থাকতে পারবে না। তিনি আরো বলেন, সম্মেলন ছাড়াই জেলা কমিটি যদি ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন দিয়ে থাকে তা হবে অত্যন্ত দুঃখজনক।
কুমিল্ল¬¬া উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার বাবু বলেন, ইউনিয়ন কমিটিগুলো অকার্যকর। তাই কুমিল্ল¬¬া উত্তর জেলা ছাত্রলীগ তথা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকারের সুপারিশ নিয়ে উক্ত কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। কোন প্রকার সম্মেলন ছাড়াই শোকের মাসে অছাত্র ও বিবাহিতদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করার বিষয়টি তারা এড়িয়ে যান।
মুরাদনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুবকর সবুজ বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার গঠনের পর ঘোষিত কমিটির সভাপতি সৈয়দ রাজিব আহাম্মদের বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজীসহ অসংখ্য সন্ত্রাসী ও অপরাধরাধমূলক কার্যকলাপের অভিযোগ রয়েছে। সাধারণ সম্পাদকসহ অনেকে এলাকায় থাকেন না। তিনি উক্ত কমিটিকে ছাত্রলীগ রাজনীতির ভবিয্যত ষড়যন্ত্রের একটি অংশ বলে মন্তব্য করেন।
নব-গঠিত কমিটির সভাপতি সৈয়দ রাজিব আহাম্মদ বলেন, তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ নেই। তার কমিটিতে কোন অছাত্র ও বিবাহিত সদস্য থাকার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

Check Also

দেবিদ্বারের সাবেক চেয়ারম্যান করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় মৃত্যু: কঠোর নিরাপত্তায় গ্রামের বাড়িতে লাশ দাফন

দেবিদ্বার প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ভাণী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান (৫৫) করোনায় আক্রান্ত ...

Leave a Reply