পবিত্র কোরআন পুড়িয়ে ওয়ান ইলেভেনের বর্ষপূর্তি পালন করবে মার্কিন খ্রিস্টানরা


ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, ০৯ সেপ্টেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম) :
পবিত্র কোরআন পুড়িয়ে ওয়ান ইলেভেনের বর্ষপূর্তি পালন পরিকল্পনা করেছেন ফ্লোরিডার চার্চ প্রধান রেভ টেরি জোনস, ইসলামকে ‘শয়তানের ধর্ম’ আখ্যায়িত করে রেভ টেরি দাবি করেছেন যে, কোরআন পোড়ানোটা নাকি তার সাংবিধানিক অধিকার।
এদিকে পবিত্র কোরআন পুড়িয়ে ওয়ান ইলেভেনের বর্ষপূর্তি পালন পরিকল্পনার খবরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদ ও নিন্দার ঝড় উঠেছে। কোরআন পোড়ানোর পরিকল্পনাকারী ফ্লোরিডার চার্চ প্রধান রেভ টেরি জোনসকে ইতিমধ্যে এ কর্মসূচি থেকে সরে আসতে চাপ দিয়েছে ফ্লোরিডা প্রশাসন। এমনকি আফগানিস্তানে নিযুক্ত মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনীর প্রধান জেনারেল ডেভিড পেট্রাউসও এ কর্মসূচির ভয়াবহতা নিয়ে সতর্ক করে দিয়েছেন। তবে এখনো নিজ অবস্থানে অনড় রয়েছেন রেভ টেরি জোনস। একইসঙ্গে খ্রিস্টান ধর্মানুসারিদেরকে এ কর্মসূচি পালনে উদ্বুদ্ধ করে চলছেন।
ভ্যাটিকান এবং জাতিসঙ্ঘও এই পরিকল্পনার কঠোর সমালোচনা করেছে। এ পরিকল্পনাকে ‘লজ্জাজনক’ হিসাবে উল্লেখ করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন। ভ্যাটিকান বলেছে, ৯/১১ সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে কোরআন পোড়ানোর পরিকল্পনা নীতিবিগর্হিত। এ ধরনের পরিকল্পনা ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে সঙ্ঘাত ছড়িয়ে দিতে পারে।মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র পিজে ক্রাউলি চার্চ কর্তৃপক্ষের এ পরিকল্পনার নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, এ ধরনের পদক্ষেপ মার্কিন নাগরিকদের মূল্যবোধকে আঘাত করবে। একজন দেশপ্রেমিক হিসাবে সংবাদ মাধ্যমকে এ ধরনের ঘটনার সংবাদ প্রচার করা উচিত নয় উল্লেখ করে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টন বলেছেন, এটা খুবই অনুতাপের বিষয় যে ফ্লোরিডার একজন যাজকের পক্ষ থেকে এমন জঘন্য পরিকল্পনার কথা ঘোষিত হয়েছে।

পরিকল্পনার সমালোচনা করে জার্মান চান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল বলেছেন, ‘যদি আমেরিকার কট্টরপন্থী ধর্মীয় খ্রিষ্টান অ্যাভানজেলিস্টরা ১১ সেপ্টেম্বর পবিত্র কোরআন পোড়ানোর কাজটি করে, তাহলে তা খুবই নীচু ও অসম্মান এবং নিদারুণ বিরক্তিকর হবে। এক কথায় এটা হবে পুরোপুরি অন্যায় একটি কাজ।’
এর আগে মঙ্গলবার বার্তা সংস্থা এপিকে দেয়া এক ই-মেইলে জেনারেল ডেভিড পেট্রাউস বলেছিলেন, কোরআন পোড়ানোর দৃশ্য ব্যবহার করে চরমপন্থীরা আফগানিস্তান এমনকি বিশ্বব্যাপী নিজেদের পক্ষে জনমত গঠনের হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করবে। মানুষকে খেপিয়ে তুলবে। কেবল আফগানিস্তানে নয় বরং সমগ্র বিশ্বেই মুসলমানদের সঙ্গে মার্কিন সম্পর্ক বিপদের মুখে পড়বে। বিপদের মুখে পড়বে আফগানিস্তানে মোতায়েন বিদেশি সেনাদের জীবনও।
প্রসঙ্গত, ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার বার্ষিকীতে ‘দ্য ডাভ ওয়ার্ল্ড আউটরিচ সেন্টার’ নামের ওই সংস্থা ‘আন্তর্জাতিক কোরআন পোড়ানো দিবস’ হিসাবে পালনের এ কর্মসূচি গ্রহণ করে।

Check Also

রিয়াদে জ্যাবের ‘অমর একুশে’ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

ষ্টাফ রির্পোটার :– “অমর একুশের চেতনায় গন মানুষের মনে জেগে উঠুক উজ্জলতা উৎকৃষ্টতা” শীর্ষক আলোচনা ...

Leave a Reply