মুরাদনগরের যুগান্তর প্রতিনিধি ঢাকায় আটক : অতপর…

স্টাফ রিপোর্টার :
দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার কুমিল্লার মুরাদনগর প্রতিনিধি কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বেলালকে মঙ্গলবার গভীর রাতে ঢাকার মিরপুর থানা পুলিশ আটক করেছে। বন্ধুর স্ত্রীর সাথে পরকীয়ায় জড়িত থাকার অভিযোগে এলাকাবাসী হাতে নাতে ধরে গণধোলাই দিয়ে দিয়ে তাকে পুলিশে সোপর্দ করে। পরে পরকীয়া প্রেমিকাকে বিবাহ করতে বাধ্য হয়ে ছাড়া পায়।

জানা যায়, ঢাকা মীরপুরের শেওড়াপাড়া এলাকার ব্যবসায়ী রফিকুর রহমানের সাথে পারিবারিক কলহের জের ধরে সম্প্রতি তার স্ত্রী ঝরনা বেগমের ঝগড়া হয়। উক্ত ঝগড়া মিমাংসার মধ্যস্থতা করতে গিয়ে রফিকুর রহমানের বন্ধু দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার কুমিল্লার মুরাদনগর প্রতিনিধি কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বেলালের সাথে ঝরনা বেগমের পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে উঠে। সম্প্রতি তাদের স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক নষ্ট করার জন্য কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বেলাল তার বন্ধু রফিকুর রহমানের বিরুদ্ধে ঝরনা বেগমকে দিয়ে মিরপুর থানায় একটি মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেন। তাদের ৭ বছরের একটি পুত্র ও ৩ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। এমনকি স্বামী রফিকুর রহমানকে বাসায় আসতে না দিয়ে স্ত্রী ঝরনা বেগম প্রায়ই কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বেলালের সাথে পরকীয়ায় লিপ্ত থাকতো। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত মতানৈক্য চলে আসছিল। বিষয়টি আশ-পাশের লোকজন আচ্ করতে পেরে তারা দু’জনকে হাতেনাতে ধরার সিদ্ধান্ত নেয়। অন্যান্য রাতের মতই কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বেলাল মঙ্গলবার রাত অনুমান ১১ টায় ঐ বাসায় ঢুকে ঝরনা বেগমের সাথে অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকা অবস্থায় এলাকার লোকজন তাকে হাতেনাতে ধরে গণপিটুনি দেয়। পরে খবর পেয়ে ডিএমপির মিরপুর থানা পুলিশের এস আই গোলাম নবীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁেছ কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বেলালকে রাত অনুমান সাড়ে ১২টায় আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে মিরপুর থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার কুমিল্লার মুরাদনগর প্রতিনিধি কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বেলালকে আটক করার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিয়ে ছাড়াই অবৈধ ভাবে মেলামেশা করার অভিযোগে তাকে আটক করা হয়। বর্তমানে উভয় পক্ষই থানায় আছে। বিষয়টি মিমাংসার প্রক্রিয়া চলছে।

এ দিকে এস আই গোলাম নবী ও রফিকুল ইসলামের মামা আবু মুছা সরকার জানান, ঝরনা বেগমকে নিয়ে রফিকুর রহমান ঘর করতে অসম্মতি প্রকাশ করায় তার পরকীয়া প্রেমিক কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বেলালের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হবার সিদ্ধান্ত গৃহীত হলে মুচলেকা রেখে ছেড়ে দেয়া হয়।

অপর দিকে ব্যাবসায়ী রফিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমার দীর্ঘদিনের সাজানো সংসারটি বন্ধু কাজী দ্বীন মোহাম্মদ বেলালের কারনে তছনছ হয়ে গেল। এ জন্য আমার স্ত্রী ঝরনা বেগমও দায়ী। আমি তাদের বিচারের ভার আল্লাহর উপর ছেড়ে দিলাম।

Check Also

দেবিদ্বারের সাবেক চেয়ারম্যান করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় মৃত্যু: কঠোর নিরাপত্তায় গ্রামের বাড়িতে লাশ দাফন

দেবিদ্বার প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ভাণী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান (৫৫) করোনায় আক্রান্ত ...

Leave a Reply